পড়ে যাওয়া সরকারি গাছ কেটে নিলেন মালি, দায় নিলেন ইউএনও!

Send
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৯:৫৮, নভেম্বর ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৯:৫৯, নভেম্বর ১৯, ২০১৯

নাটোরের লালপুর উপজেলা পরিষদের মাস্টার রোল মালি পদে কর্মরত মাসুদ রানা উপজেলা চত্বরে ঝড়ে পড়া একটি মেহগনি ও একটি শিশুগাছ কেটে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গাছ কাটার বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) উম্মুল বানীন দ্যূতি ওই মালিকে মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন বলে জানা গেছে।
লালপুর উপজেলার গোপালপুর মহিষখোলা গ্রামের আলমগীর এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগে তিনি দাবি করেন, গাছ দুটির মূল্য লক্ষাধিক টাকা। তবে বন বিভাগ এর মূল্য নির্ধারণ করেছে ১৮ হাজার ৫৩১ টাকা।
জেলা প্রশাসক শাহ রিয়াজ জানান, বিষয়টি তদন্তের জন্য ইউএনওকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে ইউএনও উম্মুল বানীন দ্যূতি বলেন, ‘আগস্ট মাসের মিটিংয়ে গাছ দুটি কেটে নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর মূল্য ধার্য করতে বন বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু গাছ দুটি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কেএম নজরুল ইসলামের ঘরের ওপর পড়ে ছিল। তাই নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে গাছ দুটি সরিয়ে নিতে মৌখিকভাবে মাসুদকে নির্দেশ দেই।’
এক প্রশ্নের জবাবে ইউএনও বলেন, ‘এ সংক্রান্ত কোনও জরুরি সভা বা লিখিত সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে গাছ দুটি সরিয়ে নেওয়ার পর বন বিভাগ থেকে ১৮ হাজার ৫৩১ টাকা মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। গাছের লগগুলো স্থানীয় বিপ্লব নামে একজনের জিম্মায় রাখা হয়েছে।
এ ব্যাপারে মালি মাসুদ রানা বলেন, ইউএনও স্যারের নির্দেশে গাছগুলো কাটা হয়েছে।

এদিকে অভিযোগকারী ও স্থানীয়রা জানান, শিশুগাছটি ১৯৮৩ সালে এবং মেহগনি গাছটি প্রায় ২০ বছর আগে লাগানো হয়।

বন বিভাগের মূল্য নির্ধারণে ক্ষুব্ধ হয়ে তারা জানান, গাছ দুটি বিক্রি করলে প্রায় লাখ টাকা দাম পাওয়া যাবে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা বন কর্মকর্তা জাহিদ বলেন, ‘গত মাসিক সভার দিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে স্থানীয় একটি স মিলে গিয়েছিলাম। সেখানে একটি শিশুগাছের তিনটি লগ দেখানো হয়েছে। লগগুলো মেপে মূল্য নির্ধারণ করলেও এখনও বিভাগীয় অফিসের মাধ্যমে তা পাস হয়নি।’ তবে মেহগনি গাছের মূল্য এখনও তারা নির্ধারণ করেননি বলে জানান।
স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, মাসুদ রানা বেশ কিছুদিন থেকে ইউএনও’র বাসায় কাজ করেন বলে তাকে বাঁচাতে ইউএনও এই দায় নিয়েছেন। অনতিবিলম্বে বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে গাছ দুটি উদ্ধার, সঠিক মূল্য নির্ধারণ ও দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়ার দাবি জানান তারা।

/এআর/

লাইভ

টপ