মাটি কেনাবেচা নিয়ে দ্বন্দ্বে যুবক খুন

Send
যশোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:৪৬, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:০৫, ডিসেম্বর ১০, ২০১৯

লাশ

ইটভাটায় মাটি সরবরাহকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের দ্বন্দ্বের জের ধরে যশোরে জনি (২৮) নামে এক যুবক খুন হয়েছেন। তিনি ট্রলিতে করে মাটি পরিবহন করতেন বলে তার স্বজনরা জানান। সোমবার (৯ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে যশোর সদরের নরেন্দ্রপুর মাস্টারপাড়া এলাকায় প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে তার মৃত্যু হয়। যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান এ কথা জানান।

নিহত জনি যশোরের মণিরামপুর উপজেলার তাড়ুয়াপাড়া গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

নিহতের স্বজনরা জানায়, চলতি মৌসুমে স্থানীয় একটি ইটভাটায় মাটি সরবরাহ নিয়ে নরেন্দ্রপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি শাহিন আলম ও সাবেক সভাপতি সবুজ হাসানের মধ্যে দ্বন্দ্ব ছিল। দু’পক্ষের দ্বন্দ্ব নিরসনে জন্য সোমবার রাতে নরেন্দ্রপুর মাস্টারপাড়ার একটি চায়ের দোকানের সামনে  বৈঠক হয়। সেখানে জনিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের সদস্য সুজিত বিশ্বাস জানান, ছাত্রলীগ নেতা সবুজ হাসান ও শাহিন আলম মাটি কেনাবেচার ব্যবসা করেন। সম্প্রতি দুজনেই নরেন্দ্রপুরের হাসিবের জমির মাটি কিনতে চান। এ নিয়ে বিরোধ সৃষ্টি হলে দুই পক্ষ সমঝোতা বৈঠকে বসে। সেখানে শাহিন মোটরসাইকেল, ইজিবাইক ও ট্রেকারে করে ২০/২২ জনকে নিয়ে আসে। বৈঠকে সবুজের পক্ষে ছিল জনি। বৈঠক চলাকালে শাহিনের পক্ষের কয়েকজন জনিকে পাশে ডেকে নিয়ে তার বুকে ছুরিকাঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এরপর গ্রামবাসী ধাওয়া করলে শাহিন ও তার পক্ষের লোকজন পালিয়ে যায়। তবে শাহিনের একটি পায়ে সমস্যা থাকায় সে তার মোটরসাইকেল ফেলে অন্য বাহনে করে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। রাত পৌনে তিনটার দিকে মরদেহ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের ডাক্তার শফিউল্লাহ সবুজ বলেন, ‘হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।’

নরেন্দ্রপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা জানান, মঙ্গলবার শেষ রাতে পুলিশ তার ছেলে রাসেল ও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সবুজ হাসানকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে গেছে।

কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, ‘মাটির ব্যবসা সংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জের ধরে যুবক খুন হয়েছে। তবে এ ঘটনায় কাউকে আটক করা হয়নি।’

 

 

 

/জেবি/

লাইভ

টপ