চুরির অপবাদে কিশোরকে মারধর, ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে নির্যাতন

Send
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২১:৫৩, জানুয়ারি ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:০৯, জানুয়ারি ২০, ২০২০

 

চুরির অপবাদ দিয়ে কিশোরকে মারধর, ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে নির্যাতন

লক্ষ্মীপুরে চুরির অপবাদ দিয়ে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নিরব হোসেন নামে (১৬) এক কিশোরকে মারধরসহ ঝাড়ু ও জুতার মালা গলায় পরিয়ে নির্যাতন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের ২ নং ওয়ার্ডের জালালিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকায়। দোকান কর্মচারী ওই কিশোর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ভিকটিমের শ্রমের টাকা না দিয়ে তাকে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী পরিবারের।

এ ঘটনায় সোমবার (২০ জানুয়ারি) ভুক্তভোগীর নানি বাদী হয়ে সদর থানায় অভিযোগ করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে ঝাড়ু ও জুতার মালা গলায় পরিয়ে কিশোরকে এলাকায় ঘুরানোর ছবি এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল।

জানা গেছে, ওই কিশোর একটি চামড়া দোকানে কাজ করতেন। গত শনিবার (১৮ জানুয়ারি) বিকালে দোকান থেকে টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে বিদ্যুতের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে মারধর করা হয় ১৬ বছর বয়সী ওই কিশোরকে। মারধরের পর তার গলায় ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করা হয়। সেই নির্যাতনের ছবি ও ভিডিও তুলে ছেড়ে দেওয়া হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। যা এখন ভাইরাল।

এখানেই শেষ নয় নির্যাতনের পর তাকে থানা পুলিশে সোপর্দ করা হয়। পরে পুলিশের কাছ থেকে ছাড়িয়ে এনে সালিশি বৈঠকের আয়োজন করেন দোকান মালিক। বৈঠকে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ মাতব্বররা ওই কিশোরকে দোষী সাব্যস্ত করে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। কিন্তু এতিম ওই কিশোরের দায়িত্ব নিতে রাজি হননি নানা ও নানি। এতেই হট্টগোল শুরু হয়, আবারও মারধর করা হয় তাকে। পরে রবিবার রাত ৯টায় লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ভুক্তভোগী কিশোরকে। সোমবার সকালে ভুক্তভোগীর নানি আলেয়া বেগম থানায় অভিযোগ করেন।

ভুক্তভোগীর পরিবার জানায়, ৬ মাস ধরে স্থানীয় রাশেদের চামড়ার দোকানে কাজ করতেন মৃত কিরন হোসেনের ছেলে নিরব হোসেন। এরই মধ্যে মাকেও হারায় সে। দোকানে মাসিক শ্রমের টাকা পান না বলে অভিযোগ তার। তাই বাধ্য হয়ে মালিকের অগোচরে দোকানের ক্যাশ থেকে নিজের পাওনা টাকাই নিয়েছে বলে দাবি করে ওই কিশোর। তবে দোকান মালিক বলছেন চুরি করে তার মুলধন আত্মসাৎ করায় নিজে এলাকাবাসী তাকে শাস্তি হিসেবে ঝাড়ু ও জুতার মালা পরিয়ে দেন। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি (তদন্ত) জানান, নির্যাতনের অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনার তদন্ত চলছে।

/এমআর/

লাইভ

টপ