সমস্যার সমাধান না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা শিক্ষার্থীদের

Send
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৪:১২, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:১৪, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০

শিক্ষার্থীদের সংবাদ সম্মেলন

বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগ অনুমোদনের দাবিতে টানা ১৪ দিনের মতো আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে শিক্ষার্থীরা জানান, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন ইতিহাস বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র কারিমুল হক ও মো. আবতাবুজ্জান।

কারিমুল হক বলেন, ‘গতকাল মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে একটি সভা করেছে ইউজিসি, এটা আমরা রেজিস্ট্রার অফিস সূত্রে জানতে পেরেছি। সভায় ইউজিসির সদস্য দিল আফরোজ বেগমকে প্রধান করে ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে। কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের কোনও নিদিষ্ট সময়সীমা দেওয়া হয়নি। এই কারণে আমরা বিভাগ অনুমোদন ঘোষণার আগ পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো।’ যদি কেউ আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে চায় তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

মো. আবতাবুজ্জান বলেন, ‘চলতি আন্দোলনে এখন পর্যন্ত ১০জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তারপরও আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি।’

সংবাদ সম্মেলনের পরে দুপুর সাড়ে ১২টায় বিক্ষোভ মিছিল বের করেন আন্দোলনকারীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আন্দোলনস্থল প্রশাসনিক ভবনের সামনে শেষ হয়।

জানা যায়, প্রতিদিনের মতো আজ বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে আন্দোলন শুরু করে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থীরা। লাগাতার আন্দোলনে বিশ্ববিদালয়ের সব ধরনের ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ রয়েছে।

এদিকে, সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে গতকাল মঙ্গলবার বেলা দেড়টায় ঢাকায় ইউজিসি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্যের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধি দলের বৈঠক হয়। বৈঠকে ইউজিসি সদস্য দিল আফরোজ বেগমকে প্রধান করে সাত সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার অধ্যাপক মো. নূরউদ্দিন আহম্মেদ।

প্রসঙ্গত, ৬ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনে (ইউজিসি) অনুষ্ঠিত এক সভায় গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগের অনুমোদন না দিয়ে আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি না করার নির্দেশ প্রদান করা হয়। এরপর শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামেন। বর্তমানে এই বিভাগে ৪১৩ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছেন।

 

 

/এএইচ/

লাইভ

টপ