মাদ্রাসাছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার, পরিবারের দাবি ধর্ষণের পর হত্যা

Send
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০৬:৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫৩, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২০

ঝুলন্ত-লাশব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার সলিমগঞ্জ জান্নাতুল ফেরদৌস মহিলা মাদ্রাসার হোস্টেলের সিঁড়িঘর থেকে আছমা আক্তার আমেনা (১১) নামে এক শিশুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে লাশটি উদ্ধার করা হয়। সে ওই মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী।

পরিবারের দাবি, শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেছেন। পরে ঘটনায় জড়িত থাকতে পারেন সন্দেহে মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফাসহ চার জন শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, নিহত আমেনা পাশের বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ছয়ফুল্লাকান্দি ইউনিয়নের কাঞ্চনপুর গ্রামের প্রবাসী মুমিনুল হকের মেয়ে। সে তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে মাদ্রাসার হোস্টেলে থাকতো। ঘটনার দিন দুপুরে খাবারের পর বিকালে ঘুমানোর কথা ছিল আমেনার। রুমে না থাকায় সহপাঠীরা তাকে খুঁজতে সিঁড়িরুমে যায়। এ সময় তার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করে তারা। পরে এলাকাবাসী এগিয়ে আসেন। খবর পেয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় রাতেই বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ছাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থতার জন্য মাদ্রাসার অধ্যক্ষ গোলাম মোস্তফাকে দায়ী করে মিছিল করেন এবং দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।
ঘটনার পর নিহত শিক্ষার্থী আমেনার মা সেলিনা বেগম বাদী হয়ে মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ৬ জনকে আসামি করে নবীনগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি অধ্যক্ষ মাওলানা গোলাম মোস্তফা, সহকারী শিক্ষক আল আমিন, আনোয়ার হোসেন ও হাফেজ ইউনুস মিয়াকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠানো হয়। সেলিনা বেগম দাবি করেন, তার মেয়ে গলায় ফাঁস দেয়নি, হত্যা করে তাকে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এ সময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ ব্যাপারে নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি রণজিৎ রায় বলেন, ‘সোমবার সন্ধ্যায় সংবাদ পেয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। মঙ্গলবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়। বাদীর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট এলে বলা যাবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা। এরপর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে, ঘটনার রাতেই অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের হোস্টেল থেকে বাড়িতে নিয়ে গেছেন। এরপর থেকে মাদ্রাসা বন্ধ রয়েছে।

/আইএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ