বিয়ের আসরের নিরাপত্তা নিয়ে অভিযোগ সৌম্যর বাবার

Send
খুলনা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৩:৪৩, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:২৩, ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০২০

সৌম্য সরকারের বিয়ে (ফাইল ছবি)

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার সৌম্য সরকারের বিয়ের অনুষ্ঠান বুধবার রাতে খুলনা ক্লাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মোবাইল ফোন চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে অনুষ্ঠান শুরু হতে ৪০ মিনিট দেরি হয়। জানা যায়, ৭টি মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে চোরচক্রের ২ জনকে ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেওয়া হয়েছে। পরে তাদের কাছ থেকে মোবাইল ফোনগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। সৌম্যর বাবা কিশোরী মোহন সরকার বলেন, ‘খুলনা ক্লাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো না। নিরাপত্তা টিম সক্রিয় থাকলে এই ধরনের ঘটনা ঘটতো না।'

আটক দুজন হচ্ছে- ঢাকার শ্যামপুরের সিরাজুল ইসলামের ছেলে রাসেল (২৭) ও ভাষানটেকের আব্দুল মান্নানের ছেলে সেলিম (৩০)।

খুলনা থানার এসআই টিপু সুলতান এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘রাতে গণধোলাইয়ের শিকার ২ জন থানা হাজতে রয়েছে। তাদের নামে মামলা হচ্ছে। বাদী হচ্ছেন সৌম্য পরিবারের সদস্য সুখময় সরকার।’

তিনি আরও জানান, রাসেলের নামে শ্যামপুর থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। দুজনেই চোর চক্রের সদস্য। সৌম্যর বিয়ে অনুষ্ঠানে তারা চুরি করার জন্য ঢাকা থেকে খুলনা আসে।

জানা গেছে, বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রায় পাঁচশ’ বরযাত্রী নিয়ে সৌম্য সরকার খুলনা ক্লাবে প্রবেশ করেন। এসময় ৩টি মোবাইল ফোন চুরি হয়। রাত ১০টার দিকে মালা বদলের আগে আরও ৪টি মোবাইল ফোন চুরি হয়। সৌম্যর বাবা ও বন্ধু অলিসহ বর যাত্রীদের মোট ৭টি মোবাইল ফোন চুরি হওয়ার ঘটনায় হট্টগোল শুরু হলে মালাবদল বন্ধ হয়ে যায়। পরে দুই চোরকে ধরে গণধোলাই দেওয়া হয়।

সৌম্য সরকারের মামা স্বদেশ কুমার সরকার বলেন, ‘ভিড়ের মধ্যে গেট থেকে ঢোকার সময় দ্বীনবন্ধু মিত্রের মোবাইল চুরি হয়। এরপর সৌম্যর বাবা, বন্ধু অলিসহ বর যাত্রীদের ৭টি মোবাইল চুরি হয়। চোরদের হাতেনাতে ধরে ফেললে খুলনা ক্লাবের কর্মচারীরা আমাদের ওপর হামলা করেন।’

সৌম্যর বাবা কিশোরী মোহন সরকার বলেন, ‘খুলনা ক্লাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভালো না। নিরাপত্তা টিম সক্রিয় থাকলে এই ধরনের ঘটনা ঘটতো না। নিরাপত্তা টিমের দুর্বলতার কারণে বরযাত্রীদের কয়েকজনকে হেনস্থা হতে হয়েছে।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, মোবাইল ফোন চুরি হওয়ার পর হারানো মোবাইল নম্বরে কল দেন সৌম্যের স্বজনরা। তখন একজনের কাছে মোবাইল বেজে ওঠে। তাকে আটক করে তল্লাশি করে তার কাছ থেকে পাঁচটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম বাহার বুলবুল বলেন, ‘মোবাইল ফোন চুরিকে কেন্দ্র করে খুলনা ক্লাবে অপ্রীতিকর ঘটনা হয়েছে। পুলিশ আটক ২ জনের কাছ থেকে ৭টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে।’

/এএইচ/

লাইভ

টপ