বৃহস্পতিবার নাবিলকে নেওয়া হবে আদালতে

Send
ভোলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৮:১৩, এপ্রিল ০১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:২৬, এপ্রিল ০১, ২০২০

নাবিল হায়দার (ছবি: সংগৃহীত)ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় সাংবাদিক সাগর চৌধুরীকে নির্যাতনের ঘটনায় গ্রেফতার উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও স্থানীয় বড় মানিকা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হায়দারের ছেলে আদনান রহমান নাবিল হায়দারকে বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) আদালতে উপস্থিত করা হবে। বুধবার (১ এপ্রিল) জেলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার এ তথ্য জানান।

পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, সাংবাদিক সাগর চৌধুরীর ওপর নাবিলের হামলার ঘটনায় মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) রাতেই মামলা হয়। পরে সাগর চৌধুরীর মামলায় বুধবার বেলা ১১টার দিকে নাবিলের বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সে এখন পুলিশ হেফাজতে আছে। রাতে জিজ্ঞাসাবাদ করে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে নাবিলকে আদালতে উপস্থিত করা হবে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, দণ্ডবিধির ১৪৩, ৩৪২, ৩২৩, ৩০৭ এবং ৫০৬ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। এই মামলায় নাবিল ও অজ্ঞাত আরও ৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এদিকে নাবিল গ্রেফতারের খবরে কিছুটা স্বস্তি আসলেও ভোলার সাংবাদিকদের মধ্যে শঙ্কাও কাজ করছে। ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সাংবাদিক সাগর চৌধুরী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান।

ভোলার পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সারতবে সাগরসহ সব সাংবাদিকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন ভোলা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি শওকাত হোসেন ও ভোলা জেলা টিভি জার্নালিস্ট ফোরামের সভাপতি আহাদ চৌধুরী তুহিন। তারা বলেন, যেহেতু নাবিল রাজনৈতিক পরিচয়ে ও প্রভাবে অপকর্ম করেছে, তার মানে তার পেছনে রাজনৈতিক গডফাদার আছেন। তবে আইনের চোখে নাবিলকে একজন অপরাধী হিসেবে দেখার জন্য দাবি জানান তারা। বলেন, নাবিলরা দলের সম্পদ নয়, দলের জন্য বিপদ। সবাইকে মনে রাখতে হবে অন্ধ হলেই কিন্তু প্রলয় বন্ধ হয় না।

নির্যাতনের শিকার সাংবাদিক সাগর চৌধুরীবাংলাদেশ অনলাইন এডিটরস কাউন্সিলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ বলেন, সন্ত্রাসী নাবিলকে গ্রেফতার গণমাধ্যম কর্মীদের জোর দাবির ফল। তিনি নাবিলের যথাযথ বিচার দাবি করে বলেন, এই গ্রেফতার যদি আইওয়াশ হয়, তাহলে গণমাধ্যমকর্মীদের আন্দোলনে নামতে হবে।

প্রসঙ্গত, বড় মানিকা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে জেলেদের জন্য আসা চাল চুরির অভিযোগ করায় সাংবাদিক সাগর চৌধুরীর ওপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে নাবিল হায়দারের বিরুদ্ধে। ক্ষোভ মেটাতে ওই সাংবাদিককে মোবাইল চোর ও ছিনতাইকারী অপবাদ দিয়ে পেটানো হয়। পরে নির্যাতনের ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এরপর ওই সাংবাদিকের বক্তব্যের একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সকালে উপজেলা সদরের রাজমনি সিনেমা হলের সামনে নির্যাতনের এ ঘটনা ঘটে। তবে হামলার ঘটনায় নাবিল ও তার বাবার কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:

সাংবাদিক নির্যাতনকারী সেই নাবিল গ্রেফতার
চাল চুরির অভিযোগ করায় সাংবাদিককে নির্যাতন, ফেসবুকে লাইভ

/টিটি/

লাইভ

টপ