দলীয় কোন্দলের বলি৯ দিনের লড়াই শেষে না ফেরার দেশে ছাত্রলীগ নেতা বিজয়

Send
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৭:৩১, জুলাই ০৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:১৬, জুলাই ০৫, ২০২০

সিরাজগঞ্জের ছাত্রলীগ নেতা এনামুল হক বিজয়

টানা ৯ দিন হাসপাতালের বেডে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করলেও ফিরে আসতে পারলেন না সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক বিজয়। দলীয় প্রতিপক্ষের দ্বারা ক্ষত-বিক্ষত হয়ে শেষ পর্যন্ত রবিবার (৫ জুলাই) সকাল ১১ টার দিকে ঢাকার ‘নিউরো সায়েন্স ইনস্টিটিউট-অব-বাংলাদেশ’ হাসপাতালের আইসিইউ ওয়ার্ডে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

বিজয়ের ভাই রুবেল আহম্মেদের বরাত দিয়ে সদর থানার ওসি হাফিজুর রহমান তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি হাফিজুর জানান, অনলাইনে ঢাকার শেরেবাংলা নগর থানায় সুরতহাল প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের পর বিজয়ের লাশ সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলায় চালা গ্রামে পাঠানো হবে। সেখানেই তার দাফন সম্পন্ন করা হবে।

এদিকে, এ ঘটনার প্রতিবাদে জেলা ছাত্রলীগের একাংশ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়ে ঘণ্টাব্যাপী বিক্ষোভ করেছে।

গত ২৬ জুন বিজয় আহত হবার পর গুরতর অবস্থায় ঢাকার নিউরো হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। ২৫ জুন বিকেলে সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত মোহাম্মদ নাসিমের স্মরণে জেলা ছাত্রলীগ আয়োজিত দোয়া মাহফিলে যোগ দিতে আসার পথে জেলা শহরের বাজার স্টেশন এলাকায় বিজয়কে আটকে তার মারধর ও কুপিয়ে আহত করে দলীয় প্রতিপক্ষ। এ ঘটনায় বিজয়ের বড় ভাই রুবেল আহম্মেদ বাদী হয়ে জেলা ছাত্রলীগের দু’সাংগঠনিক সম্পাদক শিহাব আহম্মেদ জিহাদ ও আল আমিন এবং তাদের সহযোগী ছাত্রলীগের সমর্থক আশিকুর রহমান বিজয়, সাগর ও জাহিদুল ইসলামসহ ৫ জনকে আসামি করে গত ২৭ জুন সদর থানায় মামলা করেন। এরইমধ্যে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা সিরাজগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের আলোচিত দু’সাংগঠনিক সম্পাদক শিহাব আহম্মেদ জিহাদ ও আল আমিনকে সাময়িক বহিষ্কার করেন। পুলিশ পরে অভিযান চালিয়ে আল আমিন, আশিকুর রহমান বিজয়, সাগর ও জাহিদুলকে গ্রেফতার করে কারাগারে পাঠান। অপর বহিষ্কৃত নেতা শিহাব আহম্মেদ জিহাদ ফেরার রয়েছেন।

অন্যদিকে, নেতা এনামুল হক বিজয় নিহতের পর ধৃত ৪ জনের রিমান্ডের আবেদন করেছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার উপ-পরিদর্শক আনিসুর রহমান।

নিহতের খবর ছড়িয়ে পড়লে জেলা শহরে ও কামারখন্দ উপজেলায় উত্তেজনা দেখা দেয়। জেলা শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বাড়তি পুলিশের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। হাজী কোরপ আলী ডিগ্রি কলেজ শাখার ছাত্রলীগের সভাপতি বিজয় কামারখন্দের চালা গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। এলাকায় বেশ জনপ্রিয় ছিলেন তিনি।

কামারখন্দ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বিকেল ৩টায় জানান, ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়নি। লাশ আসার পর স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক নিরাপত্তার মধ্যে নেতাকর্মীদের শ্রদ্ধা ও ভালবাসা নিবেদন শেষে দাফন করা হবে বলে জানা গেছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ বিন আহম্মেদ জানান, দলের মধ্যে কোন্দল থাকতে পারে। কিন্তু এমনভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট করা নিন্দনীয় অপরাধ। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন তিনি।

একই সংগঠনের সভাপতি আহসান হাবিব খোকা বলেন, ঘটনার পরে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আমাকেও দায়ী করা হয়েছে। দলের মধ্যে কোনও ধরনের কোন্দল নেই। আমি নিজে এ ঘটনার সুষ্ঠু পুলিশি তদন্ত ও দোষীদের গ্রেফতারের দাবি করছি।

সিরাজগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতাদের শোক:
ছাত্রলীগ নেতা এনামুল হক বিজয়ের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সিরাজগঞ্জ-২(সদর ও কামারখন্দ) আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত মুন্না। দলীয় এক শোক বার্তায় জেলা আওয়ামী লীগের থেকে মরহুমের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করে এনামুলের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন তারা।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ