আট জেলায় বন্যার পানিতে ডুবে ১৭ জনের মৃত্যু

Send
বাংলা ট্রিবিউন ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৮:০০, আগস্ট ০৪, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৫৯, আগস্ট ০৪, ২০২০

পানিতে ডুবে গেছে শিশুমঙ্গলবার (৪ আগস্ট) দেশের আট জেলায় বন্যার পানিতে ডুবে ১৭ জনের মৃত্যু এবং চার জনের নিখোঁজ হওয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে। নিহতদের মধ্যে মা-ছেলে এবং একই পরিবারের তিন ভাই-বোনও রয়েছেন।

শেরপুর প্রতিনিধি জানান, জেলার শ্রীবরদীতে পানিতে ডুবে তিন শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৪ আগষ্ট) পৃথক পৃথক সময়ে জান্নাত (৫), সিয়াম (৭) ও মুসাফির (৭) নামে ওই তিন শিশুর মৃত্যু হয়। নিহত জান্নাত ও সিয়ামের বাড়ি বকশিগঞ্জের নিলক্ষিয়ায়। তারা দুজনই একই বাড়ির। জান্নাত রাশেদের মেয়ে ও সিয়াম আফজাল মিয়ার ছেলে। মুসাফির শ্রীবরদীর চাংপাড়া গ্রামের মনির হোসেনের ছেলে।
এ তথ্য নিশ্চিত করে শ্রীবরদী থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) বন্দে আলী জানান, মঙ্গলবার সকালে নিলক্ষিয়া গ্রামের জান্নাত ও সিয়াম অন্যান্য শিশুদের সঙ্গে খেলার ছলে বাড়ির পাশের পুকুরে ডুবে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে শ্রীবরদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আনোয়ার হোসেন তাদের মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে পরিবার সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরে খেলাধুলার এক পর্যায়ে সবার অজান্তে বাড়ির পাশের ডোবার পানিতে পড়ে যায় মুসাফির। খোঁজাখুজি পর পরিবারের লোকজন ডোবা থেকে মুসাফিরকে উদ্ধার করে শ্রীবরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। শ্রীবরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত ডা. তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ তথ্য নিশ্চিত করে শ্রীবরদী থানার ওসি মোহাম্মদ রুহুল আমিন তালুকদার বলেন, এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

লালমনিরহাট প্রতিনিধি জানান, লালমনিরহাটে মামার বাড়িড়ে বেড়াতে এসে মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) দুপুরে সতী নদীর পানিতে ডুবে আনোয়ারুল হক (২৫) ও বৃষ্টি বেগম (১৯) নামে এক নব দম্পতির মৃত্যু হয়েছে। জেলার সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের জগতবেড় এলাকার সতী নদীর পানিতে গোসল করতে নেমে ওই নব দম্পতির মৃত্যু হয়। ৬-৭ মাস আগে তারা বিয়ে করেন। এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন নিহত বৃষ্টির মামা ফারুক হোসেন, লালমনিরহাট সদর ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের হাবিলদার আব্দুর রহমান ও রাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন মোফা। 






































লালমনিরহাট সদর থানার পুলিশ ও নিহতের পরিবার জানায়, মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে রংপুর কামাল কাছনা এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে আনোয়ারুল হক (২৫) তার মামা শ্বশুর ফারুক হোসেনের বাড়ির পাশ্ববর্তী সতী নদীতে গোসল করতে গেলে পানিতে ডুবে যায়। স্বামীকে বাঁচাতে নদীতে নেমে স্ত্রী বৃষ্টি বেগমও (১৯) পানিতে ডুবে যান। স্থানীয়রা নদীতে খোঁজাখুজি করে তাদের সন্ধান না পেলে লালমনিরহাট ফায়ার সার্ভিসকে জানায় বৃষ্টির মামা ফারুক হোসেন। পরে লালমনিরহাট ফায়ার সার্ভিস এবং কুড়িগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট প্রায় তিন ঘণ্টা তল্লাশি চালিয়ে সতী নদী থেকে আনোয়ারুল হক ও বৃষ্টি বেগমের লাশ উদ্ধার করে।















উল্লেখ্য, সোমবার (৩ আগষ্ট) বৃষ্টি বেগমের মামা ফারুক হোসেনের বাড়িতে বেড়াতে আসেন এই দম্পতি।  

পঞ্চগড় প্রতিনিধি জানান, পঞ্চগড়ে পুকুরের পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। দু’জনই দুই বছর বয়সী। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া ও আটোয়ারী উপজেলায় পৃথক এ দুটি ঘটনা ঘটে। নিহত শিশুরা হলেন-তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের বড় দলুয়াগছ গ্রামের মো. মোমিনের ছেলে মো. নয়ন ও আটোয়ারী উপজেলার তোড়িয়া ইউনিয়নের কাটালি গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে সাব্বির হোসেন।

নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নয়নকে বাড়িতে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। খুঁজতে গিয়ে দেখা যায় বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে ভাসছে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে তেঁতুলিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক  ডা. পলাশ চন্দ্র সাহা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। অন্যদিকে সাব্বিরকে কোথাও খুঁজে না পেয়ে এক পর্যায়ে বাড়ির পাশ্ববর্তী পুকুরে ভাসতে দেখে পরিবারের লোকজন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে উদ্ধার করে বাসায় নিয়ে আসা হয়। সাব্বির মোস্তাফিজুর দম্পত্তির একমাত্র সন্তান হওয়ায় গোটা এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

দুই শিশুর পানিতে ডুবে মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন তেঁতুলিয়া থানার ওসি জহিরুল ইসলাম এবং আটোয়ারী থানার ওসি মো. ইজার উদ্দিন। 


জামালপুর প্রতিনিধি জানান, জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলায় পুকুর ও বন্যার পানিতে ডুবে সিয়াম (৮) ও জান্নাত (৫) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) দুপুর ১২টার দিকে বকশীগঞ্জ উপজেলার নীলাক্ষিয়া ইউনিয়নের ঝালোপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মৃত সিয়াম ঝালোরপাড়া এলাকার লিটন মিয়ার ছেলে এবং জান্নাত একই এলাকার রাশেদ মিয়ার মেয়ে।

বকশীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. প্রতাপ কুমার নন্দী এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সকাল ১১টার দিকে বাড়ির পাশে খেলা করছিল সিয়াম ও জান্নাত। একপর্যায়ে তারা বাড়ির পাশের পুকুরে ও বন্যার পানিতে ডুবে যায়। স্থানীয়রা উদ্ধার করে বকশীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করে।

এ ঘটনায় চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ এনে চিকিৎসকের ওপর হামলা করেছে নিহত দুই শিশুর পরিবার। এতে আহত হয় বকশীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা. নাজিম শাহারিয়ারসহ অপর এক কর্মরত ডাক্তার, স্টাফ, নার্সসহ ৪ জন।
















বকশীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. প্রতাপ কুমার নন্দী জানান, হাসপাতালে এসে শিশুর স্বজনরা ডাক্তারদের ওপর হামলা চালায়। হামলায় ডাক্তারসহ ৪ জন আহত হয়। এ ঘটনায় বকশীগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে কথা বলতে বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শফিকুল ইসলাম সম্রাটের মোবাইলে করা হলেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

এর আগে মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) সকাল ১১টার দিকে জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার ভেলামারি এলাকার ছানাউল্লাহ মিয়ার কন্যা সাম্মি আক্তার (৯) বন্যার পানিতে ডুবে মারা যায়। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এদিন সকাল ১১টার দিকে সাম্মি বন্যার পানিতে গোসল করতে যায়। হঠাৎ তাকে দেখতে না পেয়ে স্বজনরা খোঁজ করতে থাকেন। প্রায় ঘণ্টাখানেক পর পানিতে তার লাশ ভেসে ওঠে। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, মাদারগঞ্জ নেওয়ার পর কর্তব্যরত মেডিক্যাল অফিসার ডা. শামিম ইফতেখার সাম্মিকে মৃত ঘোষণা করেন। মাদারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

কু‌ড়িগ্রাম প্রতি‌নি‌ধি জানান, জেলার উলিপুরে বন‌্যার পানিতে ডুবে নুরাইয়া খাতুন নামের আড়াই বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) বিকালে উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের মিয়াজী পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু ওই গ্রামের নুর আলমের মেয়ে।বেগমগঞ্জ ইউনিয়ন প‌রিষদ চেয়ারম্যান বেলাল হোসেন এ তথ‌্য জানিয়ে বলেন, শিশু‌টি প‌রিবারের সবার অজান্তে বা‌ড়ির পাশে জমে থাকা বন‌্যার পানিতে পড়ে যায়। পরে স্বজনরা তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে মৃত‌ অবস্থায় উদ্ধার করে।

চেয়ারম‌্যান জানান, এ নিয়ে চল‌তি বন‌্যায় ওই গ্রামে পা‌নিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত‌্যু হলো। এ নিয়ে চল‌তি বন‌্যায় কু‌ড়িগ্রামে পা‌নিতে ডুবে ১৯ শিশুসহ ‌মোট ২৪ জনের মৃত‌্যু হয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে বগুড়ার আদমদীঘির ঐতিহাসিক রক্তদহ বিলে ডিঙি নৌকা ডুবে মা ও ছেলের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন আদমদীঘি উপজেলার সান্দিড়া গ্রামের শহীদ হোসেনের স্ত্রী চাঁদনী বেগম (২৯) ও তাদের শিশু সন্তান মোহাম্মদ শাদ (৭)।

অন্যদিকে দুপুর পৌনে ২টার দিকে মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর উপজেলার চরমাস্তল চরপাড়া এলাকায় নৌকা ডুবে তিন ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন হনুফা (৩৭), তার বোন রোকসানা (৩০) ও ভাই রিয়াজুল (২৫)। এ ঘটনায় আরও দুই শিশু নিখোঁজ রয়েছে।

এছাড়া হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গের হাওরে নৌকা ডুবে দুলন আক্তার (৩৮) নামে এক নারী নিহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন বাবা-ছেলেসহ দুই জন। বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমরান হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহত দুলন আজমিরীগঞ্জ উপজেলার শিবপাশা গ্রামের বাসিন্দা।

 

/আরআইজে/এমওএফ/

লাইভ

টপ