১৪ দিন বাধ্যতামূলক মাস্ক পরতে হবে

Send
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১২:৫৪, আগস্ট ০৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫৯, আগস্ট ০৮, ২০২০

দিনাজপুরে দিন দিন করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তু এর পরেও মানুষ এখনও নিয়মিত মাস্ক ব্যবহার করছেন না। একারণে আগামী ১৪ দিন বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহারের বিশেষ কার্যক্রম নিয়েছে জেলা প্রশাসন। মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য মাঠে নামছে ভ্রাম্যমাণ আদালত, সেনাবাহিনী, পুলিশ ও প্রশাসন।

দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, এখন পর্যন্ত জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ৯৮০ জন। যার মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ৪২ জন। শুধু তাই নয়, পরিসংখ্যান অনুযায়ী গত ২৫ দিনে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় দ্বিগুণ। আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি জেলা সদরে। ১৩টি উপজেলার মধ্যে শুধু সদর উপজেলাতেই আক্রান্ত হয়েছে ৮৮৪ জন ও মৃত্যুবরণ করেছে ১২ জন।

তাই শুক্রবার সকাল থেকে বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহারের কার্যক্রমের প্রচারণার অংশ হিসেবে জেলা শহরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়েছে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। যেখানেই যারা মাস্ক ব্যবহার করছেন না, তাদের মাস্ক ব্যবহারে বাধ্য করা হয়। সেই সঙ্গে করোনার ব্যাপারে যাতে জনগণ সচেতন হয়, সেজন্য সচেতনতা কার্যক্রমও চালাচ্ছেন তারা। এর আগে বৃহস্পতিবার করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। কমিটি ও প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিয়েছে, মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে বিভিন্ন এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে। আর এজন্য শনিবার থেকে মাঠে থাকছে সেনাবাহিনী, পুলিশ, প্রশাসনের কর্মকর্তারাসহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা। পাশাপাশি পৌরসভার মধ্যে ১২টি কমিটি তালিকা তৈরি করে জনসমাগম হয় কিংবা হাট-বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করবে।

শুক্রবার সকালে দিনাজপুর গোড়-এ শহীদ মাঠ, মিশন রোড, সিএন্ডবি মোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় পায়ে হেঁটে অভিযান চালান দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম। এসময় তিনি রাস্তায় চলাচলকারী মোটরসাইকেল চালক, সাইকেল চালক, রিকশা চালক ও যাত্রী সাধারণদের মাস্ক না থাকলে তাদের থামিয়ে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ প্রদান করেন। যারা মাস্ক ব্যবহার করছেন না, তাদের যানবাহন আটকিয়ে মাস্ক নিয়ে আসতে বাধ্য করা হয়।

প্রশাসনের এই কার্যক্রমে সহযোগিতা করছে আলোর পথে জাগো যুব, বাংলাদেশ স্কাউট, নাগরিক উদ্যোগসহ বিভিন্ন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীরা। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শরিফুল ইসলাম, সহকারী কমিশনারসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা বিভিন্ন এলাকার কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, এর আগে করোনা ভাইরাসের প্রার্দুভাব ঠেকাতে ৪ জুলাই দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরসহ হাকিমপুর উপজেলায় ‘নো মাস্ক নো সেল’ কর্মসূচি শুরু করা হয়। এই কার্যক্রমের ফলে ওই উপজেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা অনেক কমে যায়। এই কার্যক্রম গ্রহণ করার পর এই উপজেলায় মাত্র ৩৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যেখানে এই সময়ের মধ্যে বাকি ১২টি উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছে ১ হাজার ২২৪ জন, যা গড়ে প্রায় ১০২ জন এবং ওই সময়ে মোট আক্রান্তের মধ্যে শুধু সদর উপজেলাতেই আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩১ জন।

 

 

/এএইচ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ