ম্যাজিস্ট্রেট আসায় বাল্যবিয়ে হয়ে গেলো দাদার কুলখানি

Send
ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৯:৩৪, অক্টোবর ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৪৭, অক্টোবর ১৮, ২০২০

বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে স্কুলছাত্রীর বাড়িতে যান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। 
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার বাদৈর ইউনিয়নের মান্দারপুর গ্রামে বাল্যবিয়ে বন্ধ করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ রবিবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবা খান কনের বাড়িতে গিয়ে এ বিয়ে বন্ধ করে দেন। এ সময় মামলা ও জরিমানা এড়াতে কনের পরিবারের লোকজন জানান, বাল্যবিয়ে নয়  কনের দাদার কুলখানি আয়োজন করা হয়েছিল। পরে অবশ্য কনের পরিবারের লোকজন বিয়ে না দেওয়ার শর্তে মুচলেকা দেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসিবা খান জানান, ওই গ্রামের এক প্রবাসীর কন্যার বিয়ের দিন ধার্য্য ছিল আজ রবিবার।  কনে নবম শ্রেণির ছাত্রী হওয়ার বিষয়টি এক সংবাদকর্মীর মাধ্যমে খবর পেয়ে তিনি দুপুরে বিয়ে বাড়িতে হাজির হন। ওই কনের হাতে মেহেদি লাগানো দেখে বিষয়টি তিনি নিশ্চিত হন। তবে পরিবারের লোকজন জানান, আলোচিত ওই কনের দাদার কুলখানি উপলক্ষে খাবার-দাবারের আয়োজন করা হয়। নবম শ্রেণি পড়ুয়া ওই মেয়ে এমনিতেই হাতে মেহেদি দেয়। কিন্তু সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় বিয়ে আয়োজনের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে কনের পরিবারের কাছ থেকে মুচলেকা আদায় করা হয়। এ সময় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ এলাকার গণ্যমান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, আজ রবিবার রাতে ওই স্কুলপড়ুয়া কন্যার বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বিষয়টি আগেভাগে জানাজানি হওয়ায় আজ দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কনের বাড়িতে এসে বিয়ের আয়োজন বন্ধ করে দেন।

 

/টিএন/

লাইভ

টপ