‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বের কারণে পরাশক্তিগুলো বাংলাদেশকে মর্যাদার চোখে দেখে’

Send
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৭:৪৯, অক্টোবর ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৩৫, অক্টোবর ১৯, ২০২০

বিরলে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরীপরাশক্তি দেশগুলো বাংলাদেশের পাশে থাকতে চায় বলে মন্তব্য করেছেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘করোনা মহামারির মধ্যেও ভারত যখন বলে, আমরা বাংলাদেশের পাশে থাকতে চাই। আমরা যখন দেখি, আমেরিকার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী এসে বলেন, আমরা বাংলাদেশকে পাশে পেতে চাই। যখন দেখি, চীনের রাষ্ট্রদূত পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বলেন, আমরা বাংলাদেশের পাশে থাকতে চাই। তখন বোঝা যায়, এসব দেশ আমাদের জন্য আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিকভাবে পরাশক্তির ভূমিকায় আছে। তখন আমরা গর্ববোধ করি বাংলাদেশের জন্য। শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের কারণে এসব পরাশক্তিগুলো বাংলাদেশকে মর্যাদার চোখে দেখে।’

সোমবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে দিনাজপুরের বিরল উপজেলা হলরুমে শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে সরকারি অনুদানের অর্থ বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘করোনা মহামারির মধ্যে সমগ্র পৃথিবীর অর্থনীতি যেখানে স্থবির হয়ে পড়েছে, সেখানে বাংলাদেশের অর্থনীতি বিপর্যস্ততা থেকে উঠে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি ভারতের থেকে ঊর্ধ্বমুখী। এই সংবাদের পর ভারতীয় গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন জায়গায় ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ যে এগিয়ে যাচ্ছে, এটা আওয়ামী লীগের নেতা, মন্ত্রী বা সরকারের কথা নয়; আন্তর্জাতিক  অর্থনীতি মনিটরিং ইউনিটগুলোর বিশ্লেষণের কথা।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব রাজনীতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলছেন। পৃথিবীর যেকোনও দেশের সরকার প্রধান ও রাষ্ট্রপ্রধানের থেকে তিনি জাতিসংঘের অধিবেশনে বেশি তৎপর ছিলেন। তার দূরদর্শী ও  অভিজ্ঞ নেতৃত্বের কারণে সমগ্র পৃথিবী শেখ হাসিনাকে দৃষ্টির মধ্যে রেখেছেন।’

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বলা হয় খালেদা জিয়া নাকি আপসহীন নেত্রী, তিনি নাকি কোনোকিছুতে আপস করেন না। তিনি যে জেল থেকে বের হয়েছেন, সেটি নির্বাহী নির্দেশে। আদালত তাকে জামিন দেননি। নির্বাহী প্রধান দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে জেল থেকে বেরিয়েছেন তিনি। এরপরও কি বলা হবে, খালেদা জিয়া আপসহীন নেত্রী।’

তিনি বলেন, ‘ডা. জাফরুল্লাহ বলছেন, মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে হবে। মধ্যবর্তী নির্বাচন কখন হয়, যখন একটি সরকার দেশ চালাতে পারে না। বাংলাদেশের অর্থনীতি ঠিক আছে, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ঠিক আছে। দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, এখন বলছেন মধ্যবর্তী নির্বাচনের কথা। মির্জা ফখরুল বলেন, মধ্যবর্তী নির্বাচন না, ফ্রেশ নির্বাচন দিতে হবে। আপনারা ফ্রেশ চিন্তা আর ফ্রেশ মন নিয়ে আগামী নির্বাচনের জন্য অপেক্ষা করেন। নিজের আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের জন্য জনগণের কাছে ক্ষমা চেয়ে ফ্রেশভাবে রাজনীতি করেন। ফ্রেশ নির্বাচনের জন্য বিএনপিকে যুদ্ধাপরাধী, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ ছেড়ে রাজনৈতিকভাবে ফ্রেশ হয়ে আসতে হবে।’

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘গত বছর মহামারি ছিল না, আমরা তখন প্রতি মণ্ডপে ১২ হাজার করে টাকা দিয়েছিলাম। এবার দীর্ঘ লকডাউনের পর প্রত্যেকটি পূজা মণ্ডপে ১৮ হাজার করে টাকা দিয়েছি। বাংলাদেশের অর্থনীতি খারাপ নেই।’ 

বিরল উপজেলার ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা জাবের মোহাম্মদ সোয়াইবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন, বিরল উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রমাকান্ত রায়, সাধারণ সম্পাদক সুবল রায়, বিরল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর প্রমুখ।

/আইএ/

লাইভ

টপ