সুনামগঞ্জে প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণ, কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টা: গ্রেফতার ২

Send
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ০২:৪৬, অক্টোবর ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৩৫, অক্টোবর ২৩, ২০২০

 ধর্ষণ
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণ এবং ছাতকে আরেক প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের হয়েছে। উভয় ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাহিরপুরে বুধবার বিকালে ও ছাতকে একইদিন রাতে ঘটনা দুটি ঘটে। এসব ঘটনায় বৃহস্পতিবার মামলা হলে অভিযুক্তরা গ্রেফতার হয়।

জানা গেছে, তাহিরপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা একটি গ্রামে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে (১৯) বাড়িতে ঢুকে ধর্ষণ করে প্রতিবেশী সোহাগ মিয়া (২৫)। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার তরুণীর বাবা তাহিরপুর থানায় অভিযোগ দিলে অভিযুক্ত সোহাগকে আটক করে পুলিশ। সে উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়ন দক্ষিণ মুকশেদপুর গ্রামের আব্দুল হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় তরুণীর বাবা পরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করলে (মামলা নং ১৭, তারিখ ২২-১০-২০২০) অভিযুক্ত সোহাগকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিকালে আদালতের পাঠানো হয়। পরে বিচারক তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ধর্ষণের শিকার তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে পাঠানোর হয়েছে।

এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ তরফদার।

অন্যদিকে, জেলার ছাতক উপজেলার আরেকটি গ্রামে বুধবার রাতে আরেক বাকপ্রতিবন্ধী কিশোরীকে (১৫) ধর্ষণের চেষ্টা করে জগেশ বৈদ্য ওরফে যোগেশ শুক্ল বৈদ্য (৬০)। এ সময় কিশোরীর চিৎকারে মাসহ প্রতিবেশীরা ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে। এরপর কিশোরীর বাবা গ্রামের গণ্যমান্য লোকদের জানালে তারা থানায় জানানোর পরামর্শ দেন। কিশোরীর বাবা থানায় অভিযোগ দিলে ওই রাতেই জাহিদপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক পলাশ চন্দ্র দাশের নেতৃত্বে জগেশ বৈদ্যকে আটক করা হয়। পরে তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে থানায় নেওয়ার পর মামলা দায়ের করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে জগেশকে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জাহিদপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক পলাশ চন্দ্র দাশ মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, অভিযোগের ব্যাপারে তদন্তপূর্বক আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

/টিএন/এমওএফ/

লাইভ

টপ