পুড়ে যাওয়া শিশু আব্দুল্লাহর দায়িত্ব নিলেন পলক

Send
নাটোর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২৩:১৫, অক্টোবর ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:১৫, অক্টোবর ২৬, ২০২০

ঝলসে যাওয়া শিশু আব্দুল্লাহনাটোরের সিংড়া পৌর এলাকার উত্তর দমদমা মহল্লায় গরম পানিতে ঝলসে যাওয়া দরিদ্র শিশু আব্দুল্লাহর পাশে দাঁড়ালেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি অন্যের ফোনে ভিডিও কলে ঝলসানো শিশুকে দেখেন, তার সঙ্গে কথা বলেন এবং চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। সব শুনে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন এবং সঙ্গে সঙ্গে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ণ ইউনিটে ভর্তির ব্যবস্থা করেন।

আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) রাতে শিশুটিকে ঢাকায় নেওয়া হয়। রাত ১০টার দিকে তাকে ভর্তি করা হয়। সিংড়া পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গরম পানিতে ঝলসে যাওয়া ৩ বছর বয়সী আব্দুল্লাহ সিংড়া পৌর এলাকার উত্তর দমদমা মহল্লার রিকশাচালক মৃদুল গাজী ও খাদিজা বেগমের একমাত্র সন্তান।

মায়ের কাছে আব্দুল্লাহমৃদুল গাজী জানান, সাম্প্রতিক বন্যায় বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় গত ১৫-১৬ দিন থেকে তিনি দমদমা স্কুল আশ্রয়কেন্দ্রে সপরিবারে অবস্থান করছেন। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আব্দুল্লাহ খেলতে গিয়ে রান্না অবস্থায় থাকা ভাতের পাতিলের ওপর পড়ে যায়। এ সময় ভাতের পাতিল চুলা থেকে উল্টে তার গায়ে পড়লে প্রায় সারা শরীর ঝলসে যায়। এ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে অবস্থা দেখে তারা চিকিৎসা করতে অসম্মতি জানান। বড় কোনও হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর টাকা নেই বিধায় বাধ্য হয়ে আব্দুল্লাকে স্থানীয় এক কবিরাজের মাধ্যমে চিকিৎসা করাচ্ছিলেন। কিন্তু তেমন কোনও উন্নতি না হওয়ায় তারা দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছিলেন। এমন খবর পেয়ে প্রতিমন্ত্রী পলক ভিডিও কলের মাধ্যমে শিশুটির অবস্থা দেখে তাৎক্ষণিক ৫ হাজার টাকা পাঠান। পরে মন্ত্রীর নির্দেশে পৌর মেয়র তাদের অ্যাম্বুলেন্সে শিশুটিকে ঢাকায় পাঠান। রাত ১০টার দিকে শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্তানের চিকিৎসার ব্যবস্থা করায় পলকের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন মৃদুল গাজী ও খাদিজা দম্পতি।

পৌর মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, স্থানীয় অধিবাসী রবিন ও রাজু আহমেদ জানান, সিংড়াবাসীর বিপদের বন্ধু হিসেবে সব সময়ই তাদের পাশে থাকেন পলক।  

 

/আরআইজে/

লাইভ

টপ