X
সকল বিভাগ
সেকশনস
সকল বিভাগ

হিলি স্থলবন্দরের সড়কগুলোর বেহাল দশা, যাতায়াতে চরম দুর্ভোগ 

আপডেট : ২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:১৬

দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরের সড়কগুলো চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কে ছোটবড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন। ঘটছে নানা ধরনের দুর্ঘটনা। নষ্ট হচ্ছে বিভিন্ন যানবাহনের যন্ত্রাংশ। 

সড়কের কার্পেটিং উঠে হয়ে গেছে ইটঢালা সড়ক। সেখানে গর্তের সৃষ্টি হয়ে চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রোগী, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রী ও পথচারীসহ সাধারণ মানুষকে।

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশের একমাত্র সড়ক হিলি সীমান্তের চেকপোস্ট থেকে শুরু করে বন্দরের গেট পর্যন্ত সড়কের বেহাল অবস্থা। এছাড়া স্থলবন্দরের চার মাথা থেকে উপজেলা পরিষদ, রাজধানী মোড় হয়ে মহিলা কলেজ, চেকপোস্ট সড়কের টেম্পুস্ট্যান্ড থেকে শুরু করে বিরামপুর, স্থলবন্দর থেকে শুরু করে ঘোড়াঘাট পর্যন্ত সড়কটির কার্পেটিং উঠে গেছে বেশ কয়েক বছর আগেই। সড়ক ও জনপথ বিভাগ এক যুগেও এসব সড়ক সংস্কার করেনি।

সর্বশেষ ২০১০ সালে হিলি স্থলবন্দরের সড়কটি সংস্কার করা হয়। একই সময়ে অন্যান্য সড়ক সংস্কার করা হয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে কষ্ট করে চলাচল করতে পারলেও বর্ষা মৌসুমে মানুষের ভোগান্তি পৌঁছায় চরমে। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারকাজ শুরু হবে বলে শোনা গেলেও এখনও না হওয়ায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে সাধারণ মানুষ।

সড়কের কার্পেটিং উঠে হয়ে গেছে ইটঢালা সড়ক

রিকশাচালক ইসমাইল হোসেন ও ভ্যানচালক খালেদ হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হিলির রাস্তাঘাট একেবারে খারাপ। সড়কে ছোটবড় গর্তে ভরা। আমাদের রিকশা-ভ্যান চালাতে খুব সমস্যা হয়। এতটাই রাস্তা খারাপ যে যাত্রীরা বসে থাকতেও পারছে না। যার কারণে আমাদের আয় হচ্ছে না। রাস্তা খারাপের কারণে রিকশা-ভ্যানের এক্সেল ভেঙে যায়।এর ওপর রয়েছে যানজটের সমস্যা। বিকালের পর হিলি স্থলবন্দরের চার মাথার দিকে ভাড়া নিয়ে যাওয়া যায় না। এত যানজট লেগে থাকে যে, একটি ভাড়া মারতে পুরো বিকাল শেষ হয়ে যায়।

অটোচালক এনতাজ আলী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা অটোচালকরা খুব কষ্টের মধ্যে আছি এই রাস্তা খারাপের কারণে, যা বলে শেষ করতে পারবো না। একে তো গরিব মানুষ সারাদিনে দুই থেকে আড়াইশ টাকা আয় হয়। কিন্তু রাস্তা এতটাই খারাপ যে, প্রতিদিন আমাদের অটোর বিয়ারিং ভেঙে যায়। যার কারণে দুইশ টাকা গাড়ি ঠিক করতে ব্যয় হয়। এতে খুব কষ্টের মধ্যে খেয়ে না খেয়ে গাড়ি চালাচ্ছি। যদি মেহেরবানি করে রাস্তাটি ঠিক করা হয় তাহলে আমাদের অনেক উপকার হয়।

বাসচালক মিরাজুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হিলির রাস্তাঘাট অনেক খারাপ, যত দিন যাচ্ছে তত বেশি খারাপ হচ্ছে রাস্তা। ঠিক করার নাম নেই। কবে যে ঠিক হবে কে জানে।

হিলি স্থলবন্দরে পণ্য নিতে আসা ট্রাকচালক আনছার আলী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ঢাকা থেকে হিলি স্থলবন্দরে এসেছি পণ্য নিতে। কিন্তু এখানকার রাস্তা পুরোটাই খারাপ। একটা স্থলবন্দরের রাস্তা এতটাই খারাপ না দেখলে কেউ বিশ্বাস করবে না। রাস্তা খারাপের কারণে আমাদের যেমন আসতে বা যেতে বাড়তি সময় লাগছে। তেমনি ট্রাকের বিভিন্ন ধরনের ক্ষয় ক্ষতি হচ্ছে, রাস্তাঘাটগুলো দ্রুত ঠিক হলে আমাদের জন্য ভালো হতো।

স্থানীয় এলাকাবাসী মুন্না হোসেন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কগুলো সংস্কার না করায় ইতোমধ্যে সড়কের পিচ উঠে গিয়ে ছোটবড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে মানুষজনের চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পিচের সড়কে ইট বিছিয়ে যানবাহন চলাচল করছে। তারপরও সেগুলো উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে সড়কে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। মানুষজনের চলাফেরা করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। যানজটের কারণে একটা রোগীকে সময়মতো হাসপাতালে নিতে পারি না। 

হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন উর রশীদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর হিলি। প্রতিবছর এই বন্দর থেকে সরকারের লক্ষ্যমাত্রার অধিক রাজস্ব আমরা দিয়ে আসছি। কিন্তু এর বিপরীতে বন্দরের সড়কগুলোতে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। বিশেষ করে বন্দরের চেকপোস্ট সড়ক থেকে শুরু করে বন্দরের গেট পর্যন্ত এবং চারমাথা থেকে শুরু করে জয়পুরহাট সীমানা পর্যন্ত সড়কটির বেহাল অবস্থা। কোনও উন্নয়ন হয়নি। এই সড়ক দিয়ে আমদানি-রফতানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাক যাতায়াত করছে। একইপথ দিয়ে ঢাকা, দিনাজপুর, বগুড়া, জয়পুরহাটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বাস চলাচল করছে। সেই সঙ্গে দেশের বিভিন্ন স্থানে পণ্য পরিবহন করছে একই সড়ক দিয়ে। রাস্তা খারাপের কারণে ভারত থেকে অনেক পণ্যবাহী ট্রাক প্রবেশ করতে ভয় পায়। ফলে বন্দর দিয়ে পণ্য আমদানি-রফতানিতে ব্যাঘাত ঘটছে। মাঝেমধ্যেই আমদানিকৃত পণ্যবাহী ট্রাক উল্টে গিয়ে পণ্য নষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি ছোটবড় দুর্ঘটনাও ঘটছে।

সড়কে গর্তের সৃষ্টি হয়ে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে

হাকিমপুর পৌরসভার মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হিলি স্থলবন্দরের রাস্তাগুলোর বেহাল দশার বিষয়টি উল্লেখ করে সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট সব দফতরে বেশ কয়েকবার করে জানানো হয়েছে। দ্রুত যেন এসব সড়কের কাজ শুরু করা হয় সে বিষয়টি তাতে উল্লেখ করা হয়েছে। আশা করছি, জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে খুব দ্রুতই এসব সড়কের কাজ শুরু হবে। বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে জোর প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে।         

সড়ক ও জনপথ বিভাগ দিনাজপুরের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী কামরুল হাসান সরকার বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, হিলি স্থলবন্দরের চেকপোস্ট গেট থেকে শুরু করে জয়পুরহাট অংশ পর্যন্ত সড়কটি আগে ২৪ ফুট ধরে নির্মাণকাজের টেন্ডার করা হয়েছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ছিল স্থলবন্দর এলাকার সড়কগুলো ফোরলেনে উন্নীত করার। ক্যাবিনেট থেকে হিলি অংশে ফোরলেনে উন্নীতকরণের নির্দেশনা এসেছে। জয়পুরহাট অংশের কাজ তারা শেষ করবে আমাদের অংশে ফোরলেন করবো। যার কারণে আগের টেন্ডার বাতিল করে ইতোমধ্যে নতুন টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। এটির ওয়ার্ক ওর্ডার হয়তো খুব দ্রুত হয়ে যাবে। এছাড়া ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া হিলি থেকে ঘোড়াঘাট পর্যন্ত সড়কটির প্রজেক্ট একনেকে পাসের অপেক্ষায় রয়েছে। এটি খুব দ্রুত পাস হয়ে যাবে। তবে কবে নাগাদ কাজ শুরু হবে তা নিশ্চিত করতে বলতে পারছি না।

/এএম/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দি হাজারও মানুষ
সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দি হাজারও মানুষ
চট্টগ্রামে জামায়াত-শিবিরের ৪৯ নেতাকর্মী আটক
চট্টগ্রামে জামায়াত-শিবিরের ৪৯ নেতাকর্মী আটক
‘স্তব্ধ দেশকে উন্নয়নের পথে ধাবিত করে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন’
‘স্তব্ধ দেশকে উন্নয়নের পথে ধাবিত করে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন’
বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর
বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর
এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
মৃত ব্যক্তির আবেদনে গ্রেফতারি পরোয়ানা, ৩২ দিন কারাভোগ
মৃত ব্যক্তির আবেদনে গ্রেফতারি পরোয়ানা, ৩২ দিন কারাভোগ
জমি নিয়ে বিরোধে সংঘর্ষ, একজনের মৃত্যু
জমি নিয়ে বিরোধে সংঘর্ষ, একজনের মৃত্যু
গুদামে পচছে পেঁয়াজ
গুদামে পচছে পেঁয়াজ
ভুট্টা চুরির অভিযোগে মারধর, হাসপাতালে যুবকের মৃত্যু
ভুট্টা চুরির অভিযোগে মারধর, হাসপাতালে যুবকের মৃত্যু
বঙ্গবন্ধু ধান-১০০ চাষে লাভের আশা কৃষকের
বঙ্গবন্ধু ধান-১০০ চাষে লাভের আশা কৃষকের