X
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪
১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

অস্কারের পরতে পরতে যুদ্ধের আবহে শান্তির জয়গান

জনি হক
জনি হক
১২ মার্চ ২০২৪, ১৯:১৬আপডেট : ১৩ মার্চ ২০২৪, ১৪:১০

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই– এবারের অস্কারের পরতে পরতে মিশে আছে এই বার্তা। বেশিরভাগ পুরস্কারজয়ী ছবির বিষয়বস্তুতে, বিজয়ীদের বক্তব্যে, অনুষ্ঠানের ভেন্যুর বাইরের সড়কে, লালগালিচায়– সবখানেই যুদ্ধবিরোধী শান্তির জয়গান। অ্যাকাডেমি অব মোশন পিকচার আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেস ৯৬তম অস্কারে প্রতিযোগিতামূলক ২৩টি পুরস্কার দিয়েছে। এরমধ্যে ১৩টি বিভাগে বিজয়ীদের কাজ বলছে– যুদ্ধই মানবতার জন্য হুমকি। ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধ, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আবহ দেখা গেছে অস্কারজুড়ে। অনুষ্ঠান শুরুর আগেই সেই আভাস মিলেছে।

লালগালিচার কথা বললে, হলিউডের প্রথম সারির বেশ কয়েকজন তারকা নিজেদের পোশাকে ছোট আকারের লাল বৃত্তাকার ব্যাজ নিয়ে ঘুরেছেন। এটি হলো আর্টিস্টস ফর সিজফায়ার (যুদ্ধবিরতির জন্য শিল্পীরা) গ্রুপের ব্যাজ। ফিলিস্তিনের গাজায় অবিলম্বে ও স্থায়ীভাবে যুদ্ধবিরতি, সমস্ত জিম্মিদের মুক্তিদান এবং জরুরি ভিত্তিতে মানবিক সহায়তা সরবরাহে সমর্থন জানানোর প্রতীক হিসেবে ব্যবহার হয়েছে লাল রঙের ব্যাজ।

যেসব তারকার পোশাকে লাল ব্যাজ দেখা গেছে, তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য– দুটি করে অস্কারজয়ী আমেরিকান গায়িকা বিলি আইলিশ ও তার ভাই ফিনিয়াস ও’কনেল, ‘হাল্ক’ তারকা মার্ক রাফেলো, দুইবার অস্কারজয়ী আমেরিকান অভিনেতা মাহেরশালা আলি, পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ অভিনেতা রিজ আহমেদ, আটটি গ্র্যামি জয়ী ব্রিটিশ ডিজে মার্ক রনসন, আমেরিকান কৃষ্ণাঙ্গ নারী নির্মাতা আভা ডুভার্নে। ‘পুয়োর থিংস’ চলচ্চিত্রের জন্য এবারের আসরে সেরা পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে মনোনীত মার্ক রাফেলো ডলবি থিয়েটারে ঢুকেই মুষ্টিবদ্ধ হাত উঁচিয়ে ধরেন। তার মন্তব্য, ‘আমাদের শান্তি দরকার।’

মিসরীয় বংশোদ্ভুত আমেরিকান স্ট্যান্ড-আপ কমেডিয়ান ও অভিনেতা রামি ইউসেফ ফিলিস্তিনিদের জন্য স্থায়ী ন্যায়বিচারের আহ্বান জানিয়েছেন। ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে যুদ্ধবিরতির সমর্থনে তিনিও লাল রঙের ব্যাজ পরেছেন।

(বাঁ থেকে) বিলি আইলিশ ও আমেরিকা ফেরেরা, রিজ আহমেদ এবং আভা ডুভার্নে আর্টিস্টস ফর সিজফায়ার গ্রুপটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে প্রায় ৪০০ শিল্পীর সই করা একটি খোলা চিঠি দিয়েছে। স্বাক্ষরকারীদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য– ৯৬তম অস্কারে সেরা অভিনেতা, সেরা প্রযোজক ও সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য বিভাগে মনোনীত ব্র্যাডলি কুপার, সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে মনোনীত আমেরিকা ফেরেরা।

ইসরায়েলি-আমেরিকান চলচ্চিত্র প্রযোজক ও মারভেল এন্টারটেইনমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আভি আরাদ হলুদ রঙের রিবন পরে এসেছেন। এর মাধ্যমে গাজায় ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাসের হাতে বন্দি থাকা ইসরায়েলি জিম্মিদের প্রতি সংহতি জানিয়েছেন তিনি। ভ্যানিটি ফেয়ার ম্যাগাজিনের অস্কার-পার্টির ভেন্যুর কাছাকাছি একটি ভবনের দেয়ালে ইসরায়েলি জিম্মিদের বিশালাকার ছবি প্রদর্শন করা হয়েছে। জিম্মিদের পরিবারের সমর্থকরা এই কর্মসূচির আয়োজন করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় লস অ্যাঞ্জেলেসের হলিউড অ্যান্ড হাইল্যান্ড সেন্টারের ডলবি থিয়েটারে ১০ মার্চ রাতে (বাংলাদেশ সময় ১১ মার্চ ভোর ৫টা) ছিল অস্কারের জমকালো আসর। লালগালিচা অনুষ্ঠান চলাকালীন ভবনটির বাইরে ও আশেপাশে ফিলিস্তিনপন্থী হাজারও বিক্ষোভকারী সড়কে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করায় যানচলাচলে বিঘ্ন ঘটে। ‘কিলারস অব দ্য ফ্লাওয়ার মুন’ ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রী বিভাগে মনোনীত লিলি গ্ল্যাডস্টোনের মতো অনেক তারকা গাড়ি ছেড়ে পায়ে হেঁটে ডলবি থিয়েটারে ঢুকেছেন। তখন হলিউডের সড়কপথের একটি বড় অংশ থমকে ছিল। ট্রাফিক জ্যাম লেগে যাওয়ায় পাঁচ মিনিট দেরিতে শুরু হয় পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান।

গাজার সঙ্গে যুদ্ধে ইসরায়েলের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমর্থনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা। তারা স্লোগান দিয়েছেন, ‘এখনই যুদ্ধবিরতি’, ‘এখনই গাজা অবরুদ্ধ করে রাখা থামান।’ তাদের একজনের প্ল্যাকার্ডে দেখা যায়, ‘আপনি যখন অস্কার দেখছেন, গাজায় তখন বোমাবর্ষণ হচ্ছে।’

বিক্ষোভকারীদের মধ্যে ছিলেন জিনাব নাসরু নামের এক নারী উদ্যোক্তা। তার মন্তব্য, ‘যখন মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে ও বোমা হামলা হচ্ছে, তখন অস্কারের চাকচিক্য চলছে।’

আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন কিউবান নারী নির্মাতা ভিভিয়েন ওয়াইজম্যান। তিনি বলেন, ‘আমি এখানে প্রতিবাদ জানাতে এসেছি এবং বলতে এসেছি যে, যখন গণহত্যা চলছে তখন অস্কারসহ স্বাভাবিক কোনও কিছুই হতে পারে না। যুদ্ধের ঘটনায় অস্কার কর্তৃপক্ষের নীরবতার জন্য আমরা তাদের নিন্দা জানাই।’

না, অস্কার নীরব থাকেনি। বরং অন্য যেকোনও আসরের চেয়ে এবার আয়োজক ও সদস্যদের সরব ভূমিকা দেখা গেলো। যুদ্ধভিত্তিক যে ছয়টি চলচ্চিত্র ১৩টি পুরস্কার জিতেছে সেগুলোর নির্মাতারা শান্তির আহ্বান জানিয়েছেন মঞ্চে দাঁড়িয়ে। সেগুলো নিয়ে কথা বলা যাক এবার।

দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট (২টি অস্কার)

সেরা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র বিভাগে অস্কারজয়ী ‘দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট’-এর পরিচালক জনাথান গ্লেজার পুরস্কার গ্রহণ করে নিজের বক্তৃতায় গাজায় যুদ্ধ পরিস্থিতির ওপর আলোকপাত করেন। তার মন্তব্য, ‘ইসরায়েল ও গাজায় নিহতরা অমানবিকতার শিকার। ইসরায়েলে ৭ অক্টোবরের ক্ষতিগ্রস্তরা হোক কিংবা গাজায় চলমান হামলা, সবাই অমানবিকতার শিকার। এসব আমরা কীভাবে প্রতিরোধ করবো?’

জনাথান গ্লেজার ৭ অক্টোবর তারিখটি বলার কারণ, ২০২৩ সালের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলে হামাস সশস্ত্র হামলা চালালে ১২০০ মানুষের প্রাণহানি হয়। এরপর গাজায় ইসরায়েল ব্যাপক বোমাবর্ষণের মধ্য দিয়ে পাল্টা আক্রমণ করায় এখন পর্যন্ত ৩০ হাজার ৯০০ মানুষ নিহত হয়েছে।

এবারই প্রথম সেরা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র বিভাগের অস্কার গেলো যুক্তরাজ্যে। যদিও ‘দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট’ যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও পোল্যান্ডের যৌথ প্রযোজনা। এটি তৈরি হয়েছে জার্মান ভাষায়। ৯৬তম অস্কারে সেরা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্রসহ পাঁচটি বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছে এই ছবি।

ছবিটির গল্পে দেখা যায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পোল্যান্ডের আউশউইটজ বন্দিশিবিরের পাশেই নাৎসি কমান্ড্যান্ট হিসেবে দায়িত্বরত জার্মান কর্মকর্তা রুডলফ হস স্ত্রী ও পাঁচ সন্তান নিয়ে বসবাস করে। ১৯৪০ থেকে ১৯৪৩ সাল পর্যন্ত বন্দিশিবিরটি পরিচালনা করেন তিনি। সেখানে ১১ লাখ মানুষকে হত্যা করে নাৎসিরা, যাদের ১০ লাখ ছিল ইহুদি। একসময় বন্দিদের ক্রমাগত চিৎকার পরিবারটিকে তাড়া করে।

ব্রিটিশ লেখক মার্টিন অ্যামিসের উপন্যাস অবলম্বনে বানানো ‘দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট’ এর আগে ৭৬তম কান চলচ্চিত্র উৎসবে গ্রাঁ প্রিঁ জিতেছে। বন্দিশিবিরের ভয়াবহতা বোঝাতে পর্দায় সহিংসতা দেখানোর পরিবর্তে শব্দকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে ছবিটিতে। ‘দ্য জোন অব ইন্টারেস্ট’ সেরা শব্দ বিভাগেও অস্কার জিতেছে। ব্রিটিশ দুই শব্দ প্রকৌশলী জনি বার্ন ও টার্ন উইলার্স পুরস্কারটি পেয়েছেন। তাদের মতে, ছবিটি মানবতার বার্তা দিয়েছে।

ইহুদি ধর্মাবলম্বী জনাথান গ্লেজার বলেন, ‘আমাদের এই চলচ্চিত্র দেখিয়ে দিয়েছে, অমানবিকতা যেকোনও পরিস্থিতিকে সবচেয়ে খারাপ দিকে নিয়ে যায়। মানুষের ক্ষমতার অন্ধকার দিকে আলোকপাত করা হয়েছে এতে, যা এখনও প্রাসঙ্গিক। মানুষ হিসেবে আমরা একে অপরের সঙ্গে যা করি, এই ছবির ভেতরে সেটাই আছে। আমরা অন্যদের নিজের চেয়ে ছোট ও আলাদা ভাবি। এভাবে ধাপে ধাপে নৃশংসতার দিকে চলে যাই। আমাদের মধ্যে থাকা সহজাত সহিংসতার ক্ষমতা এবং কীভাবে সেই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে সেটাই বলতে চেয়েছি এই ছবিতে।’

অস্কার হাতে (মাঝে) পরিচালক মিস্তিস্লাভ চেরনভ টোয়েন্টি ডেজ ইন মারিউপোল (১টি অস্কার)

সেরা প্রামাণ্যচিত্র বিভাগে অস্কার জিতেছে পুলিৎজার পুরস্কার জয়ী ইউক্রেনিয়ান সাংবাদিক মিস্তিস্লাভ চেরনোভ পরিচালিত ‘টোয়েন্টি ডেজ ইন মারিউপোল’। এটাই ইউক্রেনের প্রথম অস্কার। মিস্তিস্লাভ চেরনোভের পাশাপাশি অস্কারের সোনালি ট্রফি পেয়েছেন প্রামাণ্যচিত্রটির দুই প্রযোজক র‍্যানি অ্যারনসন-রাথ ও মিশেল মাইজনার।

রুশ আক্রমণের পর অবরুদ্ধ হয়ে পড়া ইউক্রেনের মারিউপোল শহরে ২০২২ সালের মার্চে ২০ দিন কাটিয়ে প্রামাণ্যচিত্রটির শুটিং করেন মিস্তিস্লাভ চেরনোভ। পুরস্কার গ্রহণের পর তিনি জানিয়েছেন, শান্তির বিনিময়ে তার এই অস্কার দিয়ে দেবেন রাশিয়াকে।  

গত একবছরে যারা প্রয়াত হয়েছেন তাদের সম্মানে ৯৬তম অস্কার অনুষ্ঠানে ছিল ‘ইন মেমোরিয়াম’ (স্মৃতিতে) পর্ব। এর শুরুতেই দেখানো হয় গত বছর অস্কারে সেরা প্রামাণ্যচিত্র বিভাগে পুরস্কৃত ‘নাভালনি’র একটি ক্লিপ। এর মাধ্যমে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কট্টর সমালোচক অ্যালেক্সেই নাভালনির প্রতি সম্মান প্রদর্শন করা হয়েছে। তখন ‘টাইম টু সে গুডবাই’ গানটি গাইছিলেন ইতালিয়ান দুই সংগীতশিল্পী আন্ড্রেয়া বোচেল্লি ও মাত্তেও বোচেল্লি। গত মাসে সাইবেরিয়ান বন্দিশিবিরে মারা যান নাভালনি।

ওয়ার ইজ ওভার! ওয়ার ইজ ওভার! (১টি অস্কার)

সেরা অ্যানিমেটেড স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র বিভাগে অস্কার জিতেছে ডেভ মালিন্স পরিচালিত ‘ওয়ার ইজ ওভার! ইন্সপায়ার্ড বাই দ্য মিউজিক অব জন অ্যান্ড ইয়োকো’। তিনিই এর গল্প লিখেছেন। তার ও প্রযোজক ব্র্যাড বুকারের পাশাপাশি মঞ্চে ছিলেন ছবিটির নির্বাহী প্রযোজক কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী জন লেনন ও ইয়োকো ওনো দম্পতির ছেলে শন ওনো লেনন। তিনি ইয়োকো ওনোকে মা দিবসের শুভেচ্ছা জানাতে দর্শকদের প্রতি অনুরোধ করেন। তার কথায়, ‘আমার মা গত মাসে ৯১ বছরে পদার্পণ করেছে। আজ যুক্তরাজ্যে মা দিবস। তাই সবাই কি বলতে পারি, মা দিবসের শুভেচ্ছা ইয়োকো?’ অতিথিরা সবাই তখন সমস্বরে ইয়োকো ওনোকে মা দিবসের শুভেচ্ছা জানান।

১১ মিনিট দৈর্ঘ্যের ‘ওয়ার ইজ ওভার! ইন্সপায়ার্ড বাই দ্য মিউজিক অব জন অ্যান্ড ইয়োকো’ ছবির গল্পের সূত্র হলো জন লেনন ও ইয়োকো ওনো দম্পতির শান্তির বার্তা সংবলিত গান ‘হ্যাপি এক্সমাস (ওয়ার ইজ ওভার)’। অস্কারের সোনালি ট্রফি গ্রহণ করে পরিচালক ডেভ মালিন্স ও প্রযোজক ব্র্যাড বুকার জানান, তাদের ছবিটিতে যুদ্ধবিরোধী বক্তব্য রয়েছে।

অস্কারমঞ্চের পেছনে সাংবাদিকদের ডেভ মালিন্স ও ব্র্যাড বুকার জানান, ছবিটি তৈরির জন্য ২০২১ সালের জুনে শন ওনো লেননের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তারা। ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসন শুরুর দুই সপ্তাহ আগে তাদের সঙ্গে যুক্ত হন ‘লর্ড অব দ্য রিংস’ ট্রিলজির অস্কারজয়ী পরিচালক পিটার জ্যাকসন। আর ছবিটির কাজ শেষ হয় গত অক্টোবরে গাজা যুদ্ধ শুরুর ঠিক পরপর।

হায়াও মিয়াজাকি দ্য বয় অ্যান্ড দ্য হেরন (১টি অস্কার)

ইয়োকো ওনোর দেশ জাপানের জন্য এবারের অস্কার দারুণ কেটেছে। সেরা অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে দেশটির খ্যাতিমান অ্যানিমেটর হায়াও মিয়াজাকি পরিচালিত ‘দ্য বয় অ্যান্ড দ্য হেরন’। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পটভূমিতে তৈরি হয়েছে ছবিটি। গল্পটির মূল চরিত্রের মতো বাস্তবে যুদ্ধের কারণে হায়াও মিয়াজাকির পরিবার ঘরছাড়া হয়েছিল।

গডজিলা মাইনাস ওয়ান গডজিলা মাইনাস ওয়ান (১টি অস্কার)

অস্কারে জাপানের আরেক অর্জন। ১৯৪৫ সালের দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষ প্রান্তের পটভূমিতে নির্মিত ‘গডজিলা মাইনাস ওয়ান’ সেরা ভিজ্যুয়াল ইফেক্টস বিভাগে অস্কার জিতেছে। পুরস্কার পেয়েছেন ছবিটির পরিচালক তাকাশি ইয়ামাজাকি, ভিজ্যুয়াল ইফেক্টস নির্দেশক কিয়োকো শিবুয়া, থ্রিডি কম্পিউটার গ্রাফিক্স নির্দেশক মাসাকি তাকাহাশি এবং মহাসাগর ইফেক্টস উদ্ভাবক ও কম্পোজিটর তাতসুজি নোজিমা।

অস্কার হাতে কিলিয়ান মারফি ওপেনহাইমার (৭টি অস্কার)

আমেরিকান পদার্থবিদ জে. রবার্ট ওপেনহাইমার ছিলেন পারমাণবিক বোমার আবিষ্কারক। যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ফ্র্যাঙ্কলিন ডি. রুজভেল্টের অধীনে প্রতিষ্ঠিত একটি গোপন গবেষণাগারে নেতৃত্ব দেন ওপেনহাইমার। জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে বোমা হামলার আগে তিনি নিউ মেক্সিকো মরুভূমিতে প্রথম পারমাণবিক বোমা বিস্ফোরণ প্রক্রিয়ার তত্ত্বাবধানে ছিলেন। তার সেই আবিষ্কার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের গতিপথ পরিবর্তনে বড় ভূমিকা রেখেছিল।

জে. রবার্ট ওপেনহাইমারের জীবন অবলম্বনে নির্মিত ক্রিস্টোফার নোলানের ‘ওপেনহাইমার’ প্রত্যাশিতভাবেই সর্বাধিক পুরস্কার জিতেছে এবারের অস্কারে। সেরা চলচ্চিত্র, সেরা পরিচালক, সেরা অভিনেতা (কিলিয়ান মারফি), সেরা পার্শ্ব অভিনেতা (রবার্ট ডাউনি জুনিয়র), সেরা চিত্রগ্রহণ, সেরা চলচ্চিত্র সম্পাদনা এবং সেরা মৌলিক আবহসংগীত বিভাগে জয়ী তিন ঘণ্টা দৈর্ঘ্যের ‘ওপেনহাইমার’। বক্স অফিসের ব্লকবাস্টার এই বায়োপিকে তুলে ধরা হয়েছে প্রথম আণবিক বোমা তৈরিতে পরাশক্তি দেশগুলোর প্রতিযোগিতা, যা মানবতার জন্য বয়ে এনেছে বড় হুমকি।

এবারের আসরের বেশিরভাগ বিভাগের বিজয়ী আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। এরমধ্যে রবার্ট ডাউনি জুনিয়রের প্রথম অস্কারজয় অবধারিত ছিল। ৪৭ বছর বয়সী কিলিয়ান মারফি প্রথম আইরিশ তারকা হিসেবে সেরা অভিনেতা বিভাগে অস্কার জিতেছেন। জে. রবার্ট ওপেনহাইমার চরিত্রে কিলিয়ান মারফি এবং আমেরিকার আণবিক শক্তি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান লুইস স্ট্রাউস চরিত্রে অভিনয় করেছেন রবার্ট ডাউনি জুনিয়র। সেরা চলচ্চিত্র সম্পাদনা বিভাগে জেনিফার লেমের মাধ্যমে প্রায় একদশক পর কোনও নারী অস্কার জিতেছেন।

‘ওপেনহাইমার’-এর একটি দৃশ্য বিখ্যাত অনেক চলচ্চিত্র নির্মাণ করলেও এবারই প্রথম অস্কার জিতলেন ক্রিস্টোফার নোলান। ২০০২ সালে নিজের পরিচালিত ‘মেমেন্টো’ ছবির জন্য সেরা মৌলিক চিত্রনাট্য বিভাগের মাধ্যমে প্রথমবার অস্কারে মনোনয়ন পান তিনি। ২০১৯ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ বিষয়ক চলচ্চিত্র ‘ডানকার্ক’-এর জন্য সেরা পরিচালক বিভাগে মনোনীত হন ক্রিস্টোফার নোলান। অবশেষে অধরা অস্কার উঠলো তার হাতে। ট্রফি হাতে ৫৩ বছর বয়সী এই ব্রিটিশ-আমেরিকান নির্মাতা বলেন, ‘বিশ্বের সর্বত্র শান্তি স্থাপনকারীদের প্রতি এই পুরস্কার উৎসর্গ করতে চাই।’

/এমএম/
সম্পর্কিত
এবার অস্কারের পাতায় আলিয়া
এবার অস্কারের পাতায় আলিয়া
‘ওপেনহাইমার’ থেকে নোলানের আয় এক হাজার কোটি!
‘ওপেনহাইমার’ থেকে নোলানের আয় এক হাজার কোটি!
অস্কার ২০২৪: দু’হাত ভরে পুরস্কার পেয়েছে জাপান
অস্কার ২০২৪: দু’হাত ভরে পুরস্কার পেয়েছে জাপান
নগ্ন হয়ে অস্কারের মঞ্চে জন সিনা, কারণ কী
নগ্ন হয়ে অস্কারের মঞ্চে জন সিনা, কারণ কী
বিনোদন বিভাগের সর্বশেষ
যেভাবে চঞ্চলের খোঁজ পেয়েছিলেন গৌতম ঘোষ
যেভাবে চঞ্চলের খোঁজ পেয়েছিলেন গৌতম ঘোষ
বিহাইন্ড দ্য সিন নাকি নিন্দার জবাব!
বিহাইন্ড দ্য সিন নাকি নিন্দার জবাব!
পূর্ণদৈর্ঘ্যে এলেন শাকিব-মিমি-প্রীতম, যোগ দিলেন রাফীও!
পূর্ণদৈর্ঘ্যে এলেন শাকিব-মিমি-প্রীতম, যোগ দিলেন রাফীও!
সিসিমপুরের ঘরে এবার ইন্টারন্যাশনাল টেলি অ্যাওয়ার্ড
সিসিমপুরের ঘরে এবার ইন্টারন্যাশনাল টেলি অ্যাওয়ার্ড
এলো ‘পঞ্চায়েত’র নতুন সিজন, যা বলছেন সমালোচকরা
এলো ‘পঞ্চায়েত’র নতুন সিজন, যা বলছেন সমালোচকরা