‘অপারেশন অগ্নিপথ’ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় তুলকালাম

Send
ওয়ালিউল বিশ্বাস
প্রকাশিত : ১৮:১৪, ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:০৪, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৮

`অপারেশন অগ্নিপথ' এর পোস্টারশুটিং ফাঁসানো ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ এনে নির্মাতা আশিকুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করতে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্ট। এই প্রতিষ্ঠানটি শাকিব খান অভিনীত নির্মিতব্য ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ এর সহ-প্রযোজক। অন্যদিকে নির্মাতা আশিকুর পাল্টা অভিযোগ করে বলছেন, শুরু থেকেই তিনি নানা হয়রানি ও সম্মানহানির শিকার হচ্ছেন ঐ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের অস্বাভাবিক নানা কার্যক্রমে। যার জন্য অস্ট্রেলিয়া পুলিশের কাছে সম্প্রতি একটি অভিযোগও দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্ট ইতোমধ্যে এ পরিচালকের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজারের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছে।
অভিযোগ তোলা হয়েছে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ ছবিটি নিয়ে। এটির কাজ সম্পন্ন না করে পরিচালক প্রায় একই নায়ক ও কলাকুশলী নিয়ে অন্য একটি ছবির কাজ করার বিষয়টিকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে এতে।
সিনেফেক্টের প্রতিনিধি মাহিন আবেদীন বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, পরিচালক আশিকুর রহমান ২০১৫ সালে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ চলচ্চিত্রটি তৈরির জন্য প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হন। বেশ ঘটা করে ঘোষণা দিলেও, ছবির মূল শুটিংয়ের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের ১৬ সেপ্টেম্বরে। গত দুই বছরে সিনেমার কাজ প্রায় ৬০ শতাংশের মতো শেষ হয়, বাকি কাজ ঝুলে আছে এখনও।

মাহিন আবেদীন বলেন, ‘আমরা আইনি নোটিশ পাঠিয়েছি। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সমিতির সভাপতির সঙ্গে কথা বলে মেইল করেছি। পাশাপাশি আমরা মামলারও প্রস্তুতিও নিচ্ছি।’
বিষয়টি নিয়ে সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ছবিটির অস্ট্রেলিয়া অংশের প্রযোজকের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তিনি মৌখিকভাবে অভিযোগ করেছেন। আর লিখিত আকারে এটি পাঠানোর জন্য আমার মেইল আইডিটি নিয়েছেন।’
আশিকুর রহমানসিনেফেক্টের প্রতিনিধি মাহিন জানান, অন্য প্রযোজক বাংলাদেশের ভারটেক্স ক্রিয়েশনকে ছবি নির্মাণের প্রয়োজনীয় অর্থ দিতে অপারগ মনে করে, বাকি অর্থের জোগান দিয়ে হলেও সিনেমাটির শুটিং শেষ করার জন্য পরিচালককে আহবান জানানো হয়। কিন্তু ছবির তারকা শিল্পীদের শিডিউল সংক্রান্ত সমস্যা ও বিভিন্ন বাহানা দিয়ে শুটিং করা থেকে বিরত থাকছেন পরিচালক আশিকুর।
তার ভাষায়, ‘‘অথচ শাকিব খানকে নিয়ে পরিচালক ‘সুপারহিরো’ ছবির কাজ শুরু করেছে। একই লোকেশন ও প্রায় একই ইউনিট কলাকুশলী নিয়ে কাজটি চালিয়ে যাচ্ছেন আশিকুর!’’
অন্যদিকে, পরিচালকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগও আনা হয়েছে। মাহিন আবেদীন বলেন, ‘‘একে তো সিনেমার কাজ শেষ না করে আমাদের আর্থিক ক্ষতি করেছেন পরিচালক। উল্টো তিনি লাইভ টেকনোলজিস এর ইউটিউব চ্যানেলে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ ছবিটির টিজার মুক্তি দেন। এই টিজারটি অনলাইন কন্টেন্ট হিসেবে বিক্রি বাবদ লাইভ এর কাছ থেকে প্রায় ১৬ লাখ টাকা নিয়েছেন পরিচালক এবং এই টাকার কোনও অংশই পায়নি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্ট।’’
পরিচালক আশিকুর রহমান বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় ‘সুপারহিরো’ ছবির শুটিং করছেন। চলতি বছরের জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে ক্যামেরা চালু হয়েছে এটির। এতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করছেন শবনম বুবলী। এছাড়া আরও অভিনয় করছেন তারিক আনাম খান ও সিন্ডি রোলিং প্রমুখ।

অস্ট্রেলিয়া অংশের প্রযোজক প্রতিষ্ঠান সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্টের এমন গুরুতর অভিযোগের বিষয়ে শুক্রবার দুপুরে (৯ ফেব্রুয়ারি) অস্ট্রেলিয়া থেকে মুঠোফোনে বাংলা ট্রিবিউনের মুখোমুখি হন অভিযুক্ত নির্মাতা আশিকুর রহমান। সেখান থেকে তিনি নানা তথ্য-উপাত্ত ইমেইল করেন। যার মধ্য দিয়ে তিনি নিজেকে নির্দোষ ও অসহায় দাবি করেন এবং সিনেফেক্ট সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ তোলেন।  
অস্ট্রেলিয়াস্থ সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্টের তোলা অভিযোগ প্রসঙ্গে আশিকুর রহমান বলেন, ‘‘ওরা আসলে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ ছবিটি নিয়ে চিন্তিত নয়। তাদের উদ্দেশ্য শুটিং চলতি ‘সুপারাহিরো’ ছবিটির শুটিং বন্ধ করা। এখানে শুটিং করতে এসে প্রতিনিয়ত হয়রানির মুখোমুখি হচ্ছি আমরা। তারা পুলিশের কাছে নানা মিথ্যা অভিযোগ করেও আমাদের শুটিং বন্ধ করতে পারছে না। কারণ, আমাদের শুটিং প্রক্রিয়া শতভাগ নিয়মের মধ্যেই চলছে। শাকিব খান নিজেও বিষয়টি নিয়ে প্রচুর বিরক্ত।’’
অস্ট্রেলিয়ায় ‘সুপারহিরো’র শুটিংয়ে শাকিব খানসিনেফেক্টের অভিযোগ তুলে ধরে আশিকুরের কাছে পাল্টা প্রশ্ন ছিল, তাহলে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ শুটিং শেষ হতে এত সময় লাগার কারণ কী? জবাবে আশিকুর রহমান বলেন, ‘‘দেখুন তারা যা যা বলছে তার প্রত্যেকটি বিষয়ে আমার কাছে তথ্যসহ প্রমাণ আছে। যা আমি আপনাকে মেইলে পাঠানোর পর মিলিয়ে দেখবেন। যে মেইলটি আমি গত বছর ৪ সেপ্টেম্বর সিনেমার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দুই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানকেও পাঠিয়েছি। সেখানে আমি ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ এর এভরি সিঙ্গেল ডিটেল তুলে ধরেছি। এবং আমি স্পষ্টভাবে বলেছি, এরমধ্যে ছবিটির শুটিং শেষ করতে না পারলে ১৫ নভেম্বর ২০১৭ থেকে আমি এই ছবি থেকে অব্যাহতি নেবো। কারণ, শাকিব খানের সিডিউল পাওয়া তো খুব সহজ বিষয় নয়। এর পরেও গত সেপ্টেম্বরে পর পর দুইবার সিডিউল নিয়েও শুটিং করতে পারিনি। কারণ, সিনেফেক্ট শুটিংয়ের দুইদিন আগে বলে টাকা ম্যানেজ করতে পারছে না! এসব কারণেই আমি ছবিটি থেকে অব্যাহতি নেওয়ার সিদ্ধান্ত জানাই। সেই সঙ্গে শুটিং হওয়া সব ফুটেজসহ পুরো হিসাব আমি তাদের বুঝিয়ে দেই। রাগে-অভিমান নিয়ে পুরো বিষয়টি বুঝিয়ে দেওয়ার পরেও আমি তাদের কাছ থেকে কোনও রকমের সাড়া পাইনি।’’
তিনি জানান, ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ এর মাত্র ৪০ ভাগ শুটিং সম্পন্ন করতে পেরেছেন। যার পুরোটাই হয়েছে সিডনিতে। বাকি ৬০ ভাগ হওয়ার কথা বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডে। এর জন্য শাকিব খান গেল বছর আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরে একাধিকবার সিডিউল দিলেও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক অপারগতার কারণে শেষ মুহূর্তে শুটিং বাতিল করেন আশিকুর রহমান।
অস্ট্রেলিয়ায় শুটিং চলতি ‘সুপার হিরো’ ছবির প্রাথমিক পোস্টারতিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘‘১৫ দিন আগে যখন আমি ‘সুপারহিরো’র ইউনিট নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় আসি- তখন সিনেফেক্ট থেকে আমাকে বার বার বলা হচ্ছিল শাকিব-বুবলী যেহেতু অস্ট্রেলিয়ায় আছেন আমি যেন তাদের নিয়ে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ এর বাকি অংশ শুট করে ফেলি! প্রথমত এক ছবির ইউনিটে বসে আরেক ছবির শুটিং সম্ভব নয়। তাছাড়া ‘অপারেশন অগ্নিপথ’-এর নায়িকা হলেন শিবা আলী খান, সেখানে এখন বুবলীকে ইন করাবো কেমন করে! সেটা কি শাকিব-বুবলি বা শিবা মেনে নেবেন? তাদের এই প্রস্তাবে রাজি হইনি বলে- গত ১৫ দিনে আমাকে এবং পুরো শুটিং ইউনিটের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে মিথ্যে তথ্য দিয়ে যেভাবে হয়রানি করছে- সেটা ভাষায় প্রকাশযোগ্য নয়। ওরা আসলে যে করেই হোক ‘সুপার হিরো’কে ঠেকাতে চায়। আমার ব্যক্তি ইমেজটাকে নষ্ট করতে চায়। আর কিছু নয়।’’
অস্ট্রেলিয়ান ডিরেক্টরস গিল্ডের সদস্যপদ পাওয়া বাংলাদেশী নির্মাতা আশিকুর রহমান আরও জানান, তাকে নানাভাবে হয়রানি করার কারণে সেখানকার নিউ সাউথ ওয়েলস পুলিশের কাছে সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্টের বিরুদ্ধে সম্প্রতি অভিযোগও দাখিল করেছেন।
এদিকে আশিকুর রহমানের মাধ্যমে এ বিষয়ে শাকিব খানের মন্তব্য চাইলে তিনি অস্ট্রেলিয়ায় বসে ‘সুপারহিরো’র ইউনিট থেকে বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমি বিষয়টি নিয়ে খুবই বিরক্ত। খুবই। কিছু বলতেও ইচ্ছে করছে না।’

উল্লেখ্য ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ সিনেমায় জুটি বেঁধে অভিনয় করছিলেন শাকিব খান ও নবাগতা অভিনেত্রী শিবা আলী খান। এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে আরও অভিনয় করেছেন মিশা সওদাগর, টাইগার রবি প্রমুখ।

প্রথম ছবি ‘কিস্তিমাত’ এর সাফল্যের পর আশিকুর রহমান নির্মাণ করেন ‘মুসাফির’ ও ‘গ্যাংস্টার’। এরপর শাকিব খানকে নিয়ে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ এর শুটিং শেষ না হলেও সম্প্রতি শুরু করলেন ‘সুপারহিরো’ নামের ছবিটি।

/এমএম/

লাইভ

টপ