জামালপুরের ‘গানের পাখি’ সাম্যর গাওয়া হলো না স্টার জলসায়

Send
জামালপুর প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ২১:৩৬, মে ৩০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৪৫, মে ৩১, ২০১৯

লিউনা তাসনিম সাম্যজামালপুরের ‘গানের পাখি’ নয় বছর বয়সী লিউনা তাসনিম সাম্য’র গান গাওয়া  হলো না কলকাতার স্টার জলসার প্রতিযোগিতায়।
আগামী ১ জুন শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা থেকে ‘সুপার সিঙ্গার’ নামের এই রিয়েলিটি শো’র সম্প্রচার শুরু হতে যাচ্ছে। ৫ থেকে ১২ বছরের শিশুদের নিয়ে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে গাওয়ার জন্য কলকাতা থেকে ডাক পেয়েছিলেন সাম্য। গত মে মাসে মায়ের হাত ধরে গিয়েছিলেনও সেখানে। কিন্তু ঠান্ডাজনিত কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ে এই গানের পাখি। অবশেষে স্টার জলসা কর্তৃপক্ষ সাম্যকে ডাক্তার দেখিয়ে ২৩ মে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেন।

সাম্য বর্তমানে জামালপুরের মেলান্দহে সরকারি কোয়ার্টারের নিজ বাসায় চিকিৎসাধীন।
মেলান্দহ উপজেলার সমাজসেবা অধিদফতরের অফিস সহকারী-কাম কম্পিউটার অপারেটর আজমত আলীর কন্যা লিউনা তাসনিম সাম্য।


সাম্য ছোটবেলা থেকেই গান, নাচ ও পড়াশোনায় অত্যন্ত মেধাবী।
গানে তার এই মেধা দেখে বাবা আজমত আলী স্থানীয় গানের শিক্ষক রফিক মিয়াকে গান শেখানোর দায়িত্ব দেন। এছাড়া স্থানীয় গানের শিক্ষক শান্ত তাকে গান শেখান। বর্তমানে তাকে উচ্চাঙ্গ এবং অন্যান্য সংগীতে তালিম দিচ্ছেন জামালপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমির উচ্চাঙ্গসংগীত প্রশিক্ষক সুশান্ত কুমার দেব কানু।
সাম্য এই বয়সেই যেকোনও কঠিন গান একবার শুনেই হারমোনিয়ামে অনায়াসে তুলে ফেলতে পারে। তার এই গানের গলায় মুগ্ধ হয়ে মেলান্দহ উপজেলা কর্মকর্তা তামিম আল ইয়ামিন একটি গান মোবাইলে ধারণ করে ফেসবুকে প্রকাশ করেন। এরপর থেকে ভাইরাল হতে থাকে সাম্যর গাওয়া গান।


তার এই কণ্ঠ প্রতিভা নজর কাড়ে স্টার জলসার ‘সুপার সিঙ্গার’ (জুনিয়ার)-এর বিচারকমণ্ডলী—কুমার সানু, জিৎ

গাঙ্গুলি এবং কৌশিকী চক্রবর্তীর। সেখানে অডিশন রাউন্ড শেষ হওয়ার পরেও কোনও অডিশন ছাড়াই সাম্যকে এই প্রতিযোগিতায় গান গাওয়ার অনুমতিপত্র পাঠান কর্তৃপক্ষ। কিন্তু কলকাতা গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ায় এক গান রেকর্ড করেই ফিরে আসতে হলো ছোট্ট সাম্যকে।
এ প্রসঙ্গে তৃতীয় শ্রেণি পড়ুয়া সাম্য জানায়, স্টার জলসার কর্মকর্তারা তার খুব যত্ন নিয়েছেন এবং বাংলাদেশে আসার জন্য তাদের বিমানবন্দরে পৌঁছে দিয়েছেন। তারা সাম্যকে বলেছেন, ‘তুমি অসুস্থতার জন্য গান গাইতে পারনি, কিন্তু আগামী সিজনে এই প্রতিযোগিতায় তোমাকে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে সুযোগ দেওয়া হবে।’কলকাতা যাওয়ার আগে সাম্যকে প্রস্তুত করছিলেন শিক্ষক সুশান্ত কানু
সাম্যর সংগীত শিক্ষক সুশান্ত কানু বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সাম্য একজন মেধাবী ছোট্ট গানের পাখি। তার ঈশ্বর প্রদত্ত কণ্ঠ এবং গান রপ্ত করার মেধা আমাকে অবাক করে দিয়েছে। যে আশা নিয়ে আমি তাকে ভারতে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছিলাম, সে আশা পূরণ হয়নি। আমার বিশ্বাস সাম্য একদিন বাংলাদেশের বড় শিল্পী হবে।’
এদিকে কলকাতায় যাওয়ার আগেই সাম্য বিটিভিতে একটি গান গাওয়ার সুযোগ পায় এবং গানটি রেকর্ডও করা হয়। সে গানটি বিটিভিতে ঈদের দিন রাত ১০টার ইংরেজি সংবাদের পর ‘আনন্দ মেলা’য় প্রচার হবে। এমনটাই জানিয়েছেন সাম্য’র আজমত আলী।বিটিভির ‘আনন্দ মেলা’ অনুষ্ঠানে সাম্য

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ