ঈদ বিশেষ‘আম্মুই আমার হাত হয়ে কাজ করে দিয়েছেন’

Send
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:০৫, আগস্ট ১৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৪, আগস্ট ১৪, ২০১৯

ঈদুল আজহা মানে যতটা উৎসব, ততধিক স্যাক্রিফাইসের গল্প। প্রিয় পশু কোরবানির মধ্য দিয়ে সারা বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় এই উৎসব পালন করে। অনেকটা এই ভাবধারাকে সামনে রেখে এই ঈদে আমরা তারকাদের কাছে জানবার চেষ্টা করেছি- তাদের জীবনে ঘটে যাওয়া স্যাক্রিফাইস বা আত্মত্যাগের কিছু স্মৃতি। যে ত্যাগের বিনিময়ে তাদের অনেকেই হয়েছেন আজকের আলোকিত তারকা। জেনে নিন এই প্রজন্মের অন্যতম টিভিমুখ সাবিলা নূরের বয়ানে-

সাবিলা নূর

আমার মায়ের নাম নুসরাত জাহান। আজকের সাবিলা নূর হয়ে ওঠার পেছনে এই ভদ্রমহিলার ত্যাগ ও ভূমিকা ছিল অপরিসীম।
শুরুটা সেই ছোটবেলা থেকে। আমার বয়স যখন সাড়ে তিন বছর, তখন মা-ই আমাকে বিখ্যাত বুলবুল ললিতকলা একাডেমিতে ভর্তি করে দেন। সেই ছোট বয়সে আমি যখন ক্লাসে, মা-ও তখন সেখানে বসে থাকতেন। এরপর আস্তে আস্তে যখন বড় হই, মডেলিংয়ে যুক্ত হই, তখন মাঝে মধ্যে নাচের ক্লাসে যেতে ইচ্ছে হতো না। কিন্তু মা’র জন্যই যেতে হতো।
একই ঘটনা হয়েছে যখন নাটকে অভিনয় শুরু করি। এমনও হতো রাত গড়িয়ে ভোর। মা আমার সঙ্গেই থাকতেন। এরমধ্যে শুরু হলো রোজা। কিন্তু মা যেন মাথার ওপর বটবৃক্ষ হয়েই থাকলেন। শুটিং শেষ হতে হতে সেহেরির সময় হয়ে যায়। মা শুটিং শেষ করে বাসায় ফিরতেন, আবার বাবার জন্য সেহেরি তৈরি করতেন। এরপর থাকতো সংসারের নানা কাজ। আমি হয়তো ঘুমিয়ে যেতাম, মা বাকি সব কাজ শেষ করে বিছানায় যেতেন। পরদিন ঘুম থেকে উঠেই আবার শুটিংয়ের জন্য দৌড়।
আর একটা কথা বলে রাখি, বাবা কিন্তু প্রথম দিকে মিডিয়ায় কাজ করাটা একদমই পছন্দ করতেন না। তবে মা বিষয়টি সামলে নেন।
এগুলো বলতে যতটা সহজ মনে হচ্ছে, আসলে কাজগুলো খুবই কঠিন ছিল। সংসারের কাজ, পরিবারের যত্ন, আবার আমার জন্য মাকে দিনের পর দিন ওভারটাইমের মতোই পরিশ্রম করে যেতে হয়েছে।
ক্লাসে গিয়ে বসে থাকা, শুটিং শেষ হওয়া পর্যন্ত থাকা, আমাকে গুছিয়ে দেওয়া- সবই মা করতেন। আমি একবার এক টিভি সাক্ষাৎকারে বলেছিলাম, আমি কাঁটাচামচে ভাত খাই কিংবা মায়ের হাতে। এর কারণ ছিল আমার হাতের নখ। এগুলো এতই ছোট আর সেনসিটিভ ছিল যে আঙুলে ঝোল লাগলেই নখের চারপাশে জ্বালা করতো। তাই আম্মুই আমার হাতের কাজ করে দিতো। বলা যায়, সারা জীবন আম্মুই আমার হাত হয়ে কাজ করে দিয়েছেন।

অনুলিখন: ওয়ালিউল বিশ্বাস

/এম/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ