ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হিসেবে কঙ্গনার অভিষেক

Send
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ১০:৫৫, জুন ০৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:২০, জুন ০৫, ২০২০

কঙ্গনা রনৌতের ডিজাইন করা রঙ্গোলি চান্ডেলের বাড়িবলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রনৌত পরিবারের সব আনন্দ উদযাপনে শামিল হতে চেষ্টা করেন। ভারতে থাকলে তো কথাই নেই। শত ব্যস্ততাও তাকে দূরে রাখতে পারবে না! তার ছোট বোন রঙ্গোলি চান্ডেল হিমাচল প্রদেশের কুল্লুতে নতুন বাড়ি কিনেছেন। অন্তর্জালে এখন এর বিভিন্ন কক্ষ ও বসার ঘরের ছবি ঘুরছে।

রঙ্গোলির স্বপ্নের বাড়ির ডিজাইন করেছেন কঙ্গনা। বলা যায় নিজের হাতেই ভেতরের সবকিছু সাজিয়েছেন। এর মাধ্যমে অনানুষ্ঠানিকভাবে ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হিসেবে অভিষেক হয়ে গেলো তার!
যদিও বোনের সঙ্গে অনেক কিছু নিয়ে দ্বিমত হয়েছে ৩৩ বছর বয়সী এই তারকার। পরে কঙ্গনার ওপর আস্থা রেখেছেন। দেশের উপকরণ ব্যবহার করেছেন তিনি। ইন্টেরিয়রের জন্য সবকিছু অর্ডার দিয়েছেন অনলাইনে। বেঙ্গালুরু থেকে মন্দিরের প্রতিমা, উদয়পুর থেকে কার্পেট ও দিল্লি থেকে বাতি আনা হয়েছে।
পুরো কাজ শেষ হওয়ার পর তো রঙ্গোলি রীতিমতো মুগ্ধ। ছয় হাজার বর্গফুটের বাড়িটিতে গৃহকর্মীদের থাকার জন্য আছে আলাদা কক্ষ। চারপাশে নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখা যায়।
রঙ্গোলি বাড়িটির নাম রেখেছেন ‘ভিলা পেগাসাস’। গ্রিক ভাষাটির বাংলা হলো, অমর পঙ্খীরাজ ঘোড়া। মুম্বাইয়ে একই নামের একটি অ্যাপার্টমেন্টে স্বামী অজয়ের সঙ্গে দাম্পত্য জীবন শুরু করেন রঙ্গোলি। সেখানেই পৃথ্বি তার গর্ভে আসে। তাই নামটির সঙ্গে তার স্মৃতি জড়িয়ে আছে।
এদিকে নতুন বাড়ি কেনা উপলক্ষে দুই বোন বিশেষ কিছু মুহূর্ত উপভোগ করেছেন। যেকোনও ছোট উপলক্ষকে বড় উদযাপনে রূপ দিতে কঙ্গনার জুড়ি নেই। তাই রঙ্গোলির ছেলে পৃথ্বিকে নতুন বাড়িতে আরতি, পূজা ও হালুয়া ভোগের মাধ্যমে বরণ করে নেন তিনি। তাদের মা-ও ছিলেন অনুষ্ঠানে।
যদিও ইন্টেরিয়র ডিজাইনার হওয়ার পরিকল্পনা ছিল না কঙ্গনার। তিনি বলেন, ‘এ নিয়ে ভাবিনি। কেন যেন মনে হয়, সৃজনশীলতা আপনাআপনি আমার মধ্যে চলে আসে। বোনের বাড়ি বলেই ডিজাইনের কাজটি করেছি। কুল্লু জেলায় তেমন কাউকে পাওয়া যেতো না। তাই রঙ্গোলি বলার পর কাজে নেমে পড়েছি।’
কঙ্গনা রনৌত ও রঙ্গোলি চান্ডেলকঙ্গনার কাছে বাড়িটির সবচেয়ে প্রিয় জায়গা হলো রান্নাঘর। তার কথায়, ‘কিচেনে গেলে পরিবারের সবার কাছ থেকে আলাদা হয়ে যায় মানুষ। তাই রঙ্গোলির রান্নাঘর এমনভাবে সাজিয়েছি যেন ডাইনিং টেবিল থেকে তার সঙ্গে আলাপ করা যায়। এছাড়া রান্নাটা যেন উপভোগ্য হয় সেজন্য গান শোনার ব্যবস্থা রেখেছি।’
সম্প্রতি মুম্বাইয়ের পালি হিলে একটি বাংলো কিনেছেন কঙ্গনা। এজন্য তাকে গুনতে হয়েছে ৪৮ কোটি রুপি। এখানে নিজের অফিস বানিয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে ডিজাইনার শবনম গুপ্তর সহযোগিতা লেগেছে তার।
বোনের বাড়ির ডিজাইন করে আরেকটি গুণের পরিচয় দিলেন কঙ্গনা। এর আগে নিজের অভিনীত ‘মনিকর্ণিকা: দ্য কুইন অব ঝাঁসি’ ছবিটি পরিচালনা করে ক্যামেরার পেছনেও দক্ষতার প্রমাণ রেখেছেন তিনি।

/জেএইচ/এমএম/

লাইভ

টপ