সতীর্থদের বয়ানে আইয়ুব বাচ্চুর জীবন ও কর্ম (ভিডিও)

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৬:৩০, অক্টোবর ১৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪৫, অক্টোবর ১৮, ২০২০

কুমার বিশ্বজিৎ, শহীদ মাহমুদ জঙ্গী, আসিফ ইকবাল ও নকীব খানগিটার কিংবদন্তি আইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় প্রয়াণ দিবসে কাঁদছে সংগীতাঙ্গন। প্রিয় শিল্পীর স্মরণে আজকের (১৮ অক্টোবর) ফেসবুক টাইমলাইন ভেসে যাচ্ছে স্মৃতিকাতরতায়।
এরমধ্যে আইয়ুব বাচ্চুকে ঘিরে অনেকেই প্রকাশ করেছেন নতুন গান। তবে এরমধ্যে ভিন্ন একটি প্রকাশনার উদ্যোগ নিয়েছেন সংগীতশিল্পী জয় শাহরিয়ার।
তার পরিকল্পনা ও প্রযোজনায় রবিবার (১৮ অক্টোবর) প্রকাশ পেয়েছে ‘স্মৃতির ক্যানভাসে আইয়ুব বাচ্চু’ শিরোনামের একটি ডকুমেন্টারি। যেখানে তিনি সংগীতের চার জন নন্দিত ব্যক্তির বয়ানে তুলে এনেছেন আইয়ুব বাচ্চুর নানা দিক। যে চার জনের সঙ্গে আইয়ুব বাচ্চুর পুরো সংগীত জীবন জড়িয়ে ছিল নানাভাবে। তারা হলেন গীতিকবি শহীদ মাহমুদ জঙ্গী ও আসিফ ইকবাল এবং সংগীতশিল্পী নকীব খান ও কুমার বিশ্বজিৎ।
ফরহাদের আবহসংগীতে এই কমেন্টরি ভিডিওটির শুরু হয় জয় শাহরিয়ারের ভূমিকা পাঠের মধ্য দিয়ে। এরপর একে একে অতিথিরা স্মৃতির ঝাঁপি খুলে দেন আইয়ুব বাচ্চুর জীবন ও কর্ম বিষয়ে।
স্মৃতি থেকে শহীদ মাহমুদ জঙ্গী জানান, এলআরবি’র তুমুল জনপ্রিয় গান ‘এক দিন ঘুম ভাঙা শহরে’ সৃষ্টির গল্প। নকীব খান জানান, তার হাত ধরে চট্টগ্রামের তরুণ গিটারিস্ট আইয়ুব বাচ্চুর উঠে আসার ঘটনা। আসিফ ইকবাল স্মৃতি থেকে বলেন, ‘হি ওয়াজ আ রিয়েল মিউজিক ফাইটার। যিনি পুরো জীবনে গান ছাড়া আর কিছুই করেননি।’ জানান, আইয়ুব বাচ্চুর দ্বিতীয় অ্যালবামে গান লিখেই তার আজ এই অবস্থানে আসা।
অন্যদিকে শৈশব থেকে শেষ পর্যন্ত আইয়ুব বাচ্চুর সবচেয়ে নিকট বন্ধু কুমার বিশ্বজিৎ বলেন, ‘বাংলা রক মিউজিককে আইয়ুব একাই টেনে এনেছে বহুদূর। তার সুর, কণ্ঠ আর গিটার দিয়ে শ্রোতাদের সম্মোহন করার যে জাদুকরি ক্ষমতা, সেটা খুব কম শিল্পীর থাকে।’
এদিকে এই প্রজেক্টের উদ্যোক্তা জয় শাহরিয়ার বলেন, ‘বাচ্চু ভাইয়ের সৃষ্টি সংরক্ষণের জন্য সরকারের কপিরাইট অফিস এগিয়ে এসেছে। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত স্বস্তির খবর। আমি মনে করি, প্রকৃত শিল্পীদের এভাবেই লালন করা উচিত রাষ্ট্রীয়ভাবে। তো আমি নিজেও চেয়েছি এই মানুষটি সম্পর্কে নতুন কিছু জানাতে ও জানাতে। যে কথাগুলো বেশিরভাগ মানুষই জানেন না। সে জন্যই বাচ্চু ভাইয়ের সবচেয়ে কাছের চার জন মানুষের স্মৃতি তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। তবে এই চেষ্টাটি আমি অব্যাহত রাখবো। কারণ, বাচ্চু ভাই হলেন আমাদের রক সংগীতের বটবৃক্ষ। ফলে তার জীবনের গল্প এত দ্রুত ফুরাবার নয়। আমি এই গল্পগুলো ধারাবাহিকভাবে শুনতে ও শোনাতে চাই। তারই প্রথম পর্ব এটি।’

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ