অস্ত্র আইন সংস্কারের পক্ষে রায় দিলো নিউ জিল্যান্ডের পার্লামেন্ট

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৫০, এপ্রিল ১০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৪, এপ্রিল ১০, ২০১৯

দেশের সব ধরনের আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট রাইফেল নিষিদ্ধ করার পক্ষে ভোট দিয়েছেন নিউ জিল্যান্ডের আইনপ্রণেতারা। বুধবার (১০ এপ্রিল) সে দেশের পার্লামেন্টে চূড়ান্ত পর্যালোচনার পর ১১৯-১ ভোটে অস্ত্র আইন সংস্কার বিলটি পাস হয়। আশা করা হচ্ছে, কয়েকদিনের মধ্যে গভর্নর জেনারেলের কাছ থেকে রাজ সম্মতি পাওয়ার পর বিলটি আইনে পরিণত হবে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি’র প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।


পার্লামেন্টে নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন

গত ১৫ মার্চ ২৮ বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারান্ট নামের সন্দেহভাজন হামলাকারীর লক্ষ্যবস্তু হয় নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দু’টি মসজিদ। শহরের হাগলি পার্কমুখী সড়ক ডিনস এভিনিউয়ের আল নুর মসজিদসহ লিনউডের আরেকটি মসজিদে তার তাণ্ডবের বলি হয় অর্ধশত মানুষ। হামলা চালাতে একটি এআর-১৫-সহ কয়েকটি আধা-স্বয়ংক্রিয় রাইফেল ব্যবহার করেছিল ট্যারান্ট। এ ঘটনার পর নিউ জিল্যান্ডে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র ও অ্যাসল্ট রাইফেল নিষিদ্ধ করার ঘোষণা দেন সে দেশের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন। অন্য অস্ত্রকে আধা স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রে পরিণত করতে যেসব যন্ত্র ব্যবহার করা হয় সেগুলোও নিষিদ্ধ করা হবে বলে জানান তিনি। ঘোষণা দেন বিদ্যমান অস্ত্র আইন পরিবর্তনের। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার নিউ জিল্যান্ডের পার্লামেন্টে পাস হলো অস্ত্র সংস্কার বিল।
বিবিসি‘র প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বুধবার পার্লামেন্টে বক্তব্য দেওয়ার সময় কোনোরকমে কান্না আটকে রাখছিলেন নিউ জিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী। বলেন, হামলায় হতাহত ও তাদের পরিবারের কারণেই আজ তারা সেখানে আছেন। আহতদের দেখতে হাসপাতালে যাওয়ার দিনগুলোকে স্মরণ করেন জাসিন্ডা। আহতদের সবার গায়ে একাধিক গুলির চিহ্ন দেখতে পেয়েছিলেন বলে জানান তিনি।
আইনপ্রণেতাদের জাসিন্ডা বলেন ‘হত্যা করার উদ্দেশ্যে এসব অস্ত্র তৈরি করা হয়েছে, পঙ্গু করে ফেলতে এগুলো তৈরি হয়েছে, আর ১৫ মার্চ তা-ই করেছে তারা।’
যেসব অস্ত্র নিষিদ্ধ হচ্ছে তাদের মালিকরা যেন বাই-ব্যাক স্কিমের আওতায় নিজেদের কাছে থাকা অস্ত্রগুলো ফেরত দিতে পারেন তা নিশ্চিত করতে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছে। জাসিন্ডা জানিয়েছেন, বাই-ব্যাক স্কিমের আওতায় তার দেশের ২০ কোটি ডলার ক্ষতি হতে পারে। তবে দেশের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে এ অর্থ খরচ জরুরি বলে মনে করছেন তিনি।
উল্লেখ্য, হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারান্টের বিরুদ্ধে নিউ জিল্যান্ডের আদালতে বিচার চলছে। তার বিরুদ্ধে ৫০টি হত্যা ও ৩৯টি হত্যা প্রচেষ্টার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

/এফইউ/এমওএফ/

লাইভ

টপ