দক্ষিণের যুদ্ধবাজদের হুঁশিয়ারি জানাতেই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ: উত্তর কোরিয়া

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:২২, জুলাই ২৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:২৩, জুলাই ২৬, ২০১৯

উত্তর কোরিয়া তাদের সর্বশেষ দুটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাকে দক্ষিণ কোরিয়ার যুদ্ধবাজদের প্রতি গুরুতর হুঁশিয়ারি বলে আখ্যায়িত করেছে। দক্ষিণ কোরিয়ার সমালোচনার জবাবে পিয়ংইয়ংয়ের পক্ষ থেকে এই মন্তব্য করা হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

উত্তর কোরিয়া বৃহস্পতিবার সাগর অভিমুখে স্বল্পপাল্লার দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে। ওয়াশিংটন ও সিউলের মধ্যে আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় সামরিক মহড়া প্রশ্নে পিয়ংইয়ংয়ের পক্ষ থেকে সতর্কবার্তা উচ্চারণের পর তারা ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়লো। দক্ষিণ কোরিয়ার জয়েন্ট চীফস অব স্টাফ একথা জানান। 

দক্ষিণ কোরিয়া সতর্ক করে দিয়ে জানায়, এ যুদ্ধ মহড়া ওয়াশিংটন ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যে নিরস্ত্রীকরণ আলোচনা ফের শুরুর পরিকল্পনাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে। দেশটির জয়েন্ট চীফস অব স্টাফের এক কর্মকর্তা জানান, উত্তর কোরিয়া ভোরের দিকে এ দুই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করে। ক্ষেপণাস্ত্র দু’টি পূর্ব সাগরে পড়ার আগে প্রায় ৪৩০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে। এটি জাপান সাগর নামেও পরিচিত।
উত্তর কোরিয়ার নেতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘উৎক্ষেপণ স্থলে কিম জং উন উপস্থিত ছিলেন কিনা সে ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু জানা যায়নি।’ ওই কর্মকর্তা এএফপি’কে বলেন, ওয়াশিংটনের সাথে একটি যৌথ সামরিক মহড়ার প্রক্রিয়া চলছে।
টোকিও জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র দু’টি জাপানের জলসীমায় পৌঁছায়নি। জাপানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী পিয়ংইয়ংয়ের এমন পদক্ষেপকে ‘অত্যন্ত দুঃখজনক’ বলে অভিহিত করেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রী তাকাশি ইওয়া সাংবাদিকদের বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত যতটা নিশ্চিত হয়েছি তাতে বলা হয়েছে ক্ষেপণাস্ত্র দু’টি জাপান ভূখণ্ডে বা গুরুত্বপূর্ণ অর্থনৈতিক জোনে পৌঁছাতে পারেনি।
এর আগে গত ৯ মে উত্তর কোরিয়া সর্বশেষ স্বল্প-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করেছিল।

উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উন বলেছেন, তার দেশ সম্ভাব্য ও সরাসরি শত্রুদের নিশ্চিহ্ন করতে অস্ত্রের উন্নয়ন ঘটাচ্ছে। তিনি দাবি করেন, সর্বশেষ ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষায় একটি নতুন অস্ত্র ব্যবস্থা ছিল।

কিম জানিয়েছেন, নতুন অস্ত্র ব্যবস্থার পরীক্ষার ফলাফলে তিনি সন্তুষ্ট এবং এটা মোকাবিলা করা সহজ হবে না। এই হুঁশিয়ারি আমলে না নেওয়ার ভুল করা উচিত হবে না দক্ষিণ কোরিয়ার।

 

/এএ/

লাইভ

টপ