অ্যামাজনে আগুন লাগিয়ে জঙ্গল পরিষ্কারে ব্রাজিলের নিষেধাজ্ঞা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:৩৩, আগস্ট ২৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৫১, আগস্ট ৩০, ২০১৯

অ্যামাজন রেইনফরেস্টের আগুন রেকর্ড সংখ্যক বৃদ্ধির কারণে আগামী ৬০ দিনের জন্য জঙ্গল পরিষ্কার করতে আগুন লাগানো নিষিদ্ধ করেছে ব্রাজিল। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, অ্যামাজনের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ব্যর্থতার জন্য দেশে-বিদেশে তীব্র সমালোচনার মুখে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো।

ব্রাজিলের অরণ্য বিনাশ পর্যবেক্ষণকারী গ্রুপ ম্যাপবায়োমাস-এর সমন্বয়ক তাসো আজেভেদো বুধবার সতর্ক করে বলেন, ‘আগুনের সবচেয়ে খারাপ ঘটনাটি এখনও আসেনি।’ এই সংকট নিয়ে আগামী সপ্তাহে আলোচনায় বসছে দক্ষিণ আমেরিকার দেশগুলো।

এবছর এখন পর্যন্ত ব্রাজিলে প্রায় ৮০ হাজার আগুনের ঘটনা শনাক্ত হয়েছে। এর অর্ধেকেরও বেশি আগুনের ঘটনা ঘটেছে অ্যামাজন বনাঞ্চলে। তবে শনিবারও দেশটির উগ্র ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারো দাবি করেছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসছে। সোমবার ব্রাজিলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফার্নান্দো আজেভেদো সিলভা সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘পরিস্থিতি কোনও সোজাসাপ্টা পথে নেই কিন্তু নিয়ন্ত্রণে রয়েছে আর ইতিমধ্যে সুন্দরভাবে ঠান্ডা হয়ে আসছে।’

তবে এ নিষেধাজ্ঞার ফলে কী প্রভাব পড়বে, তা পরিষ্কার নয়। পরিবেশবিদরা বলছেন, ব্রাজিলের অ্যামাজনে ভূমি পরিষ্কারের অধিকাংশ ঘটনাই অবৈধ ও এখানে আইন শিথিল। বলসোনারো প্রশাসনের নীতির কারণেই বন উজাড়করণ বৃদ্ধি পেয়েছে।

কৌঁসূলিরা বলছেন, অবৈধভাবে ভূমি পরিষ্কারকরণের কারণে আগুনে সংখ্যা বাড়ছে; এমন কিছু অভিযোগ তদন্ত করা হচ্ছে। এই কারণে সারাদেশ জুড়ে আগুন লাগিয়ে ভূমি পরিষ্কারের ওপর নিষেধাজ্ঞার ডিক্রি জারি করা হয়েছে।

তবে তিনটি ব্যতিক্রম ক্ষেত্রে আগুন লাগানোর অনুমতি দেওয়া যাবে। উদ্ভিদ স্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত কারণে, দাবানলের বিরুদ্ধে লড়তে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসেবে ও আদিবাসীদের প্রচলিত ঐতিহ্যবাহী কৃষিকাজের অংশ হিসাবে অনুমতি দিতে পারবে পরিবেশ কর্তৃপক্ষ।

নভেম্বরে শুষ্ক মওসুম শেষ না হওয়া পর্যন্ত অ্যামাজন এলাকায় আগুন লাগানোর ওপর নিষেধাজ্ঞার আহ্বান জানিয়েছেন পরিবেশবিদ আজেভেদো। বন উজাড়করণ বন্ধ করতে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন,  ভূমি দখলদার, স্বর্ণ খনি ব্যবসায়ী ও গাছ চুরির সঙ্গে জড়িত অপরাধীরাই এই বন উজাড়করণের সঙ্গে জড়িত।

আজেভেদো বলেন, ‘আমরা যা দেখছি তা একটি আসল সংকট। তাৎক্ষণিকভাবে এই আগুন যদি বন্ধ করতে না পারি তাহলে বর্তমানের থেকে আরও আগুন অনেক বড় ও বেশি হয়ে ট্র্যাজেডিতে পরিণত হতে পারে।’

/এইচকে/এএ/

লাইভ

টপ