ভারতে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির শিকার অন্তঃসত্ত্বা নারী

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:২৫, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৫৯, সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯

ভারতের দিল্লিতে এবার ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির শিকার হলেন এক অন্তঃসত্ত্বা মূক ও বধির নারী। গত ২৭ আগস্ট দক্ষিণ দিল্লির তুঘলকাবাদের বাসিন্দা ৪ মাসের ওই অন্তঃসত্ত্বা নারীকে মারধর করা হয়। তবে রবিবার (১ সেপ্টেম্বর) ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে। গণপিটুনির শিকার ওই নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানিয়েছে পুলিশ। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গত ২৭ আগস্ট ছেলেধরা সন্দেহে ওই নারীকে গণপিটুনি দেওয়া হয়
গত কয়েক সপ্তাহে গুজবের জেরে শুধু উত্তর প্রদেশে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে প্রশাসন। গুজব ছড়ালে জাতীয় নিরাপত্তা আইনে ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। প্রশাসনের কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারির মধ্যেও ভারতজুড়ে অব্যাহতভাবে চলছে গণপিটুনির ঘটনা। রবিবার (১ সেপ্টেম্বর) এমনই আরেকটি গণিপটুনির ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। জানা গেছে, গুজবের জেরে গত ২৭ আগস্ট গণপিটুনির শিকার হন এক অন্তঃসত্ত্বা মূক ও বধির নারী।

তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, গত ১৮ আগস্ট শ্বশুরবাড়ি বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছিলেন ওই নারী। এরপরে কোনোভাবে দিল্লির হর্ষবিহারে পৌঁছে যান তিনি। আশ্রয় নেন ফুটপাথে। স্থানীয় মানুষজন তাকে খাবারও দিতেন। কিন্তু গত ২৭ আগস্ট গুজব রটে, ওই নারী আসলে ছেলেধরা। এরপরই তার ওপর চড়াও হয় উন্মত্ত জনতা। আহত অবস্থায় ওই নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এই ঘটনায় অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিসিপি অতুল কুমার ঠাকুর। একইসঙ্গে ছেলেধরা গুজবে কান না দেওয়ার জন্য শহরবাসীর কাছে আবেদন জানিয়েছেন তিনি। 

/এফইউ/এমওএফ/

লাইভ

টপ