ধর্ষণের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেলেন অ্যাসাঞ্জ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:৩০, নভেম্বর ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪৮, নভেম্বর ১৯, ২০১৯

সাড়াজাগানো বিকল্পধারার সংবাদমাধ্যম উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ ২০১০ সালে তার বিরুদ্ধে আনা ধর্ষণের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন সুইডেনের প্রসিকিউটররা। তবে তাদের দাবি, অ্যাসাঞ্জের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ বিশ্বাসযোগ্য। তবে প্রমাণ দুর্বল।

 

২০১২ সালের জুন থেকে লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে রাজনৈতিক আশ্রয়ে ছিলেন উইকিলিকস প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ। গত ১১ এপ্রিল রাজনৈতিক আশ্রয় প্রত্যাহার করে তাকে ব্রিটিশ পুলিশের হাতে তুলে দেয় ইকুয়েডর। ১১ এপ্রিল তাকে জামিনের শর্ত ভঙ্গের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে ব্রিটিশ আদালত। তখন থেকে বেলমার্শ নামক ‘যুক্তরাজ্যের গুয়ানতানামো বে’ খ্যাত কুখ্যাত কারাগারে রাখা হয়েছে তাকে। বর্তমানে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণ মামলার শুনানির অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি।

সুইডেনের পাবলিক প্রসিকিউশনের উপপরিচালক ইভা মারি পারসন বলেন, আমার মনে হয় সব ধরনের অনুসন্ধান করা সম্ভব। তবে তথ্য প্রমাণ খুব শক্তিশালী নয়।  

সুইডেনের দুই নারী অভিযোগ করেছিলেন তাদের অনিচ্ছা সত্ত্বেও অ্যাসাঞ্জ যৌনপ্রতিরোধক ছাড়াই মিলনে লিপ্ত হয়েছিলেন। তবে অ্যাসাঞ্জের দাবি, কারোর ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু করেননি তিনি। মতপ্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষের অ্যাকটিভিস্টরাও এই অভিযোগকে হাস্যকর মনে করেন। 

এক বিবৃতিতে মারি পারসন বলেন, ‘আমি বলতে চাই বাদী খুবই বিশ্বাসযোগ্য অভিযোগ করেছেন। তার বিবৃতি স্পষ্ট ও বিশদ। তবে আমার মনে হয় তার প্রমাণাদি এত দুর্বল হয়ে পড়েছে যে এখন আর তদন্ত কার্যক্রম চালানোর প্রয়োজন নেই।

এর আগে লন্ডনের ইকুয়েডর দুতাবাসে অ্যাসাঞ্জের রাজনৈতিক আশ্রয় বিবেচনায় নিয়ে ২০১৭ সালে বন্ধ করে দেওয়া হয় এই অভিযোগের তদন্ত। বাতিল করা হয় তার বিরুদ্ধে সুইডেনের জারি করা আন্তর্জাতিক পরোয়ানা।চলতি বছর এপ্রিলে রাজনৈতিক আশ্রয় বাতিলের পর ইকুয়েডর দূতাবাস কর্তৃপক্ষ যুক্তরাজ্যের পুলিশ ডেকে অ্যাসাঞ্জকে ধরিয়ে দেওয়ার পর ওই মামলার তদন্ত পুনরায় শুরুর আহ্বান জানিয়েছেন ধর্ষণের অভিযোগ তোলা নারীর আইনজীবী। 

 

/এমএইচ/

লাইভ

টপ