গান্ধী পরিবারের জন্য বরাদ্দ ৯ বছরের পুরনো গাড়ি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৩৬, নভেম্বর ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৪১, নভেম্বর ২০, ২০১৯

ভারতের গান্ধী পরিবারের বিশেষ নিরাপত্তা প্রত্যাহারের পর নয় বছরের পুরনো টাটা সাফারি গাড়ি ও বাড়িতে সিআরপিএ-এর নিরাপত্তা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর আগে সোনিয়া গান্ধী ও রাহুল গান্ধী পেতেন স্পেশাল প্রোটেকশন গ্রুপের (এসপিজি) নিরাপত্তা সুবিধা। সম্প্রতি এই সুবিধা বাতিল করেছে মোদি সরকার। নতুন নিরাপত্তা বরাদ্দের পর কংগ্রেস অভিযোগ করেছে, প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে মোদি সরকার তাদের নিরাপত্তা কাটছাঁট করেছে। এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) পার্লামেন্ট ঘেরাও করার পরিকল্পনা করেছে যুব কংগ্রেস।

সম্প্রতি এক নিরাপত্তা পর্যালোচনা শেষে ৮ নভেম্বর গান্ধী পরিবারের বিশেষ নিরাপত্তা তুলে নেওয়া হয়। তিন হাজার সদস্য বিশিষ্ট এসপিজি এখন থেকে শুধু দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিরাপত্তা দেবে। আর গান্ধী পরিবার পাবে জেড প্লাস নিরাপত্তা। এর আওতায়, ১০০ সদস্যের সংরক্ষিত কেন্দ্রীয় পুলিশ দল (সিআরপিএফ) নিয়োজিত থাকবে কংগ্রেস সভাপতি সোনিয়া গান্ধী, তার দুই সন্তান রাহুল গান্ধী ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর নিরাপত্তায়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, এতোদিন মূলত মাওবাদী, শিখ সন্ত্রাসবাদী ও এলটিটিই’র থেকে গান্ধী পরিবারের ওপরে হামলার আশঙ্কা ছিল। তবে এখন দেশে সন্ত্রাসবাদ বা জঙ্গি আন্দোলন কমে আসায় তাদের ওপর হামলার আশঙ্কাও কমে গিয়েছে।

বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থায় সোনিয়া ও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর জন্য ওই নিরাপত্তা সংস্থার কোটা থেকে ‘বুলেটপ্রুফ’ রেঞ্জরোভার গাড়ি বরাদ্দ ছিল। রাহুলের জন্য ছিল ফরচুনার। তবে এখন তার বদলে ২০১০-এর টাটা সাফারি বরাদ্দ হয়েছে তাদের জন্য। অথচ এর আগে টাটা সাফারি গাড়ি ৭.৬২ এমএম বুলেট আটকাতে পারে না বলেই তা পরবির্তন করা হয়েছিল। সিআরপিএফ অবশ্য গান্ধী পরিবারের জন্য আগের গাড়িই রেখে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের যুক্তি, ওই গাড়িও যথেষ্ট শক্তপোক্ত।

উল্লেখ্য, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও জেড প্লাস ক্যাটাগরির নিরাপত্তা পান।

এতোদিন সোনিয়ার নিরাপত্তা প্রায় প্রধানমন্ত্রীর সমান ছিল। নতুন ব্যবস্থায় তার জন্য ‘অ্যাডভান্সড সিকিউরিটি লিয়াজো’ টিম রয়েছে। সোনিয়া কোথাও যাওয়ার আগে যারা নিরাপত্তা ব্যবস্থার মহড়া সেরে আসবে। এর সঙ্গে ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী, বাড়ির নিরাপত্তারক্ষী, অ্যাকসেস কন্ট্রোল নজরদারি ও অ্যান্টি-সাবোটাজ চেক করার ব্যবস্থা বজায় থাকছে। 

বুধবার লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী বলেন, ‘সোনিয়া ও রাহুল গান্ধী কোনও সাধারণ নিরাপত্তাপ্রাপ্ত ব্যক্তি নন। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী এ পরিবারের জন্য এসপিজি নিরাপত্তার বন্দোবস্ত করেছিলেন। ১৯৯১ থেকে ২০১৯-এ দুই বার কেন্দ্রে এনডিএ সরকার এসেছে। কিন্তু এসপিজি নিরাপত্তা তোলা হয়নি।’

উল্লেখ্য, নিজের দেহরক্ষীদের হাতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী নিহত হওয়ার পরের বছর ১৯৮৫ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারদের নিরাপত্তায় বিশেষ বাহিনী এসপিজি গড়ে তোলা হয়। 

/এইচকে/বিএ/

লাইভ

টপ