ইরানের তথ্যমন্ত্রীর ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৪:১৫, নভেম্বর ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৪:১৮, নভেম্বর ২৩, ২০১৯

ইরানের তথ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ আজারি-জাহরোমির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ইন্টারনেট বন্ধে ভূমিকা রাখার কারণে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে দাবি ওয়াশিংটনের। শুক্রবার মার্কিন রাজস্ব মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, নিষেধাজ্ঞার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের আওতায় থাকা জাহরোমির সম্পত্তি জব্দ করা হবে। তবে এক টুইট বার্তায় নিজের কাজ চালিয়ে যাবার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ওই ইরানি মন্ত্রী।ইরানের তথ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ আজারি-জাহরোমি

১৫ নভেম্বর ইরানি কর্তৃপক্ষ সরকারি রেশনে দেওয়া পেট্রোলের দাম ৫০ শতাংশ বাড়ানোর ঘোষণা দিলে সেদিন থেকেই বিক্ষোভ শুরু হয়। একপর্যায়ে তা সরকারবিরোধী আন্দোলনে রূপ নেয়। এতে সমর্থনের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের দাবি, রাজধানী তেহরানসহ বিভিন্ন স্থানে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে অন্তত ১০৬ বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। বিক্ষোভ ঠেকাতে ইন্টারনেট বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয় ইরানের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল। তবে বৃহস্পতিবার থেকে বিভিন্ন এলাকায় ধাপে ধাপে তা চালু কর হচ্ছে বলে জানিয়েছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের রাজস্ব মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে ইন্টারনেট বন্ধ রাখাকে তেহরানে নিপীড়নমূলক নীতি আখ্যা দেওয়া হয়। অভিযোগ করা হয় ইরানের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ আজারি-জাহরোমি এই নীতি বাস্তবায়ন করেছেন। তাকে সাবেক গোয়েন্দা কর্মকর্তা আখ্যা দিয়ে ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ইরানের নেতারা জানে অবাধ ও উন্মুক্ত ইন্টারনেট তাদের অবৈধতাকে উন্মোচন করে দিতে পারে, সেকারণে শাসক বিরোধী বিক্ষোভ ঠেকাতে ইন্টারনেটে প্রবেশের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছে তারা।

নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর এক টুইট বার্তায় ইরানি মন্ত্রী জাহরোমি লিখেছেন, ‘নিষেধাজ্ঞাভুক্ত ব্যক্তিদের (ট্রাম্পের রুপকথা মোতাবেক) ক্লাবে আমিই একমাত্র সদস্য নই। আমার আগে ইরানের আইসিটি স্টার্টআপ, ডেভেলপার, ক্যান্সার রোগী ও অসুস্থ শিশুও রয়েছে। ইন্টারনেটে প্রবেশযোগ্যতা নিয়ে আমি কাজ চালিয়ে যাবো আর যুক্তরাষ্ট্রকে ইরানের উন্নয়ন আটকাতে দেবো না’।

/জেজে/

লাইভ

টপ