এবার বিহারে ধর্ষণের পর কিশোরীকে পুড়িয়ে হত্যা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৯:১২, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫২, ডিসেম্বর ০৮, ২০১৯

হায়দ্রাবাদ ও উন্নাওয়ের ধর্ষণ নিয়ে চলমান সমালোচনার মধ্যেই এবার ভারতের বিহারে এক কিশোরীকে দেড় মাস ধরে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। রবিবার বিহারের পুলিশ জানিয়েছে, ১৭ বছরের কিশোরীকে পুড়িয়ে হত্যা করতে ধর্ষণে অভিযুক্ত কিশোরের মাও সহযোগিতা করেছে। পুলিশ অভিযুক্ত মা ও ছেলেকে গ্রেফতার করেছে। ইন্ডিয়া টুডে’র এক প্রতিবেদনে এ খবর জানা গেছে।

 

পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্ত অজয় রুদ্র পাল (২৫) ও তার মা অনিমা রুদ্র পাল (৫৯)-কে শনিবার গ্রেফতার করা হয়েছে। স্থানীয় সরকারি হাসপাতাল গোবিন্দ বল্লভ পান্থ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দগ্ধ কিশোরীর মৃত্যুর পর তাদের দুজনকে গ্রেফতার করা হয়।

নিহত কিশোরীর বাবাকে উদ্ধৃত করে পুলিশ জানায়, ২৮ অক্টোবর খোয়াই জেলার কল্যাণপুরের বাড়ি থেকে তাদের মেয়েকে অপহরণ করে অজয়। অপহরণের পর কিশোরীকে দক্ষিণ ত্রিপুরার শান্তিরবাজার এলাকার বাড়িতে নিয়ে যায় সে।

পুলিশ জানায়, মেয়েকে বিয়ের জন্য যৌতুক হিসেবে ৫ লাখ রুপি দাবি করে অজয়। অপহৃত ওই মেয়েকে প্রায়ই ধর্ষণ করতো সে। কিশোরীর পরিবারের চাপের মুখে ১১ ডিসেম্বর অজয় মেয়েকে বিয়ে করতে রাজি হয় যৌতুকের প্রথম কিস্তির টাকা পাওয়ার পর। কিন্তু মায়ের সঙ্গে অজয়ের ঝগড়া লাগে যৌতুকের টাকা নিয়ে। একপর্যায়ে অজয় মেয়েটির গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়।

পুলিশ আরও জানায়, হাসপাতালে কিশোরীর মৃত্যুর পর ক্ষুব্ধ পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীরা অজয় ও অনিমাকে মারধর করে।

এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আমরা ঘটনাটি তদন্ত করছি। মৃত্যুর আগে কিশোরীর জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়েছে।

নিহত কিশোরীর প্রতিবেশীরা জানান, অজয়ের এক আত্মীয় কিশোরীর পরিবারের সদস্যকে বিয়ে করেছেন। এই আত্মীয়তার সূত্রে তাদের পরিচয়। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও মোবাইল ফোনে কথা বলে ঘনিষ্ঠ হয় তারা।

/এএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ