সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন প্রক্রিয়ায় বাধ সাধলো রিপাবলিকানরা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৮:৫৬, জানুয়ারি ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:৩৬, জানুয়ারি ২২, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ সিনেটে দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন শুনানির প্রথম দিনই ধাক্কা খেয়েছে এই শুনানির প্রক্রিয়া। এর আগে বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি নিয়ন্ত্রিত পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদে এ সংক্রান্ত বিল পাস হয়। তবে সিনেটে ট্রাম্পের নিজ দল ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান পার্টির নিয়ন্ত্রণ থাকায় শুরুতেই সেখানে এ নিয়ে বিপত্তি বাধে। প্রথম দিনই ট্রাম্পের অভিশংসনের উদ্যোগে বাধ সাধেন রিপাবলিকান সিনেটররা। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম রয়টার্স।
প্রতিবেদনে বলা হয়, সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসনের জন্য প্রয়োজনীয় নথি পেতে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির তিনটি উদ্যোগ নাকচ করে দেয় রিপাবলিকান পার্টি। সেখানে ৫৩-৪৭ ভোটে ডেমোক্র্যাটদের উদ্যোগ বাতিল হয়ে যায়। এ ইস্যুতে এটি সিনেটে ট্রাম্পের প্রাথমিক বিজয় হিসেবে প্রতীয়মান হচ্ছে। তবে সিনেটে ট্রাম্পের অভিশংসন শুনানির প্রারম্ভিক সাক্ষ্যে ডেমোক্র্যাট নেতা অ্যাডাম স্কিফ বলেছেন, সত্য উন্মোচিত হবে। মঙ্গলবার সিনেটে বিচার প্রক্রিয়া শুরু হলে এই বক্তব্য দেন তিনি। তার অভিযোগ, 'ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার বিরুদ্ধে কাজ করছেন।'

ট্রাম্পের দাবি, বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া বিলটি অসাংবিধানিক। তাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে তারা এ সংক্রান্ত বিল উত্থাপন করেছে। ডেমোক্র্যাটরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে তার অভিশংসন চান। আর রিপাবলিকানরা চান যত দ্রুত সম্ভব এই বিচার থেকে ট্রাম্পকে মুক্ত করতে। সিনেটে শেষ পর্যন্ত ট্রাম্পের বিপাকে পড়ার আশঙ্কা খুবই কম। কারণ সেখানে ক্ষমতাসীন দল রিপাবলিকান পার্টি সংখ্যাগরিষ্ঠ। তারা ইতোমধ্যেই অভিশংসনের বিপক্ষে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছে। মঙ্গলবারের ঘটনায় তা আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

ট্রাম্পের অভিশংসন প্রস্তাবে ডেমোক্র্যাটদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন অ্যাডাম। তিনি বলেন, 'বেশিরভাগ আমেরিকান বিশ্বাস করে সিনেট হবে নিরপেক্ষ'। তিনি উপযুক্ত বিচারক হিসেবে সিনেটরদের কাজ করার আহ্বান জানান।

শুনানিতে ট্রাম্পের বেশ কয়েকটি ভিডিও ক্লিপ তুলে ধরেন অ্যাডাম। সেগুলোতে ট্রাম্পকে বলতে শোনা যায়, সংবিধান তাকে যা খুশি করার ক্ষমতা দিয়েছে। তার বিচারে যেসব কর্মকর্তা সাক্ষ্য দেবেন তাদের জরিমানা করা হবে।

ডেমোক্র্যাট নেতা বলেন, 'জাতীয় নিরাপত্তার নামে ট্রাম্প তার আচরণবিধি লঙ্ঘনের ভয়ঙ্কর সব প্রমাণ আড়াল করতে চান। প্রশ্ন হলো, আপনারা কি তা করতে দেবেন?' সাক্ষ্যের উপসংহারে তিনি বলেন, 'সত্য উন্মোচিত হবেই। প্রশ্ন হলো তা কি সময়মতো আসবে?'

/এমপি/

লাইভ

টপ