মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গুলিতে দুই রোহিঙ্গা নারী নিহত

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:৫৭, জানুয়ারি ২৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:১৬, জানুয়ারি ২৫, ২০২০

মিয়ানমানের স্থানীয় একজন আইনপ্রণেতা ও রাখাইনের একজন বাসিন্দা জানিয়েছেন, শনিবার (২৫ জানুয়ারি) রোহিঙ্গাদের একটি গ্রামে দেশটির সেনাদের কামানের গুলিতে এক অন্তঃসত্ত্বাসহ দুই রোহিঙ্গা নারী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও সাতজন। এ ব্যাপারে সেনাবাহিনীর কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি। জাতিসংঘের সর্বোচ্চ আদালত রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা নিশ্চিতের নির্দেশ দেওয়ার দুই দিনের মাথায় এমন ঘটনার কথা জানা গেলো।

রাখাইন রাজ্য থেকে নির্বাচিত আইনপ্রণেতা মং কিউ জ্যাঁ বলেন, মধ্যরাতে পাশ্ববর্তী ব্যাটলিয়ন থেকে ছোড়া গুলি রোহিঙ্গা গ্রাম কিন তং-এ আঘাত হানে। ওই এলাকায় গত এক বছর ধরে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির (এএ) সংঘর্ষ চলছে। মং কিউ ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ‘তাদের মধ্যে কোনও সংঘর্ষ হয়নি। সেনারা কোনও সংঘর্ষ ছাড়াই ওই গ্রামে কামানের গুলিবর্ষণ করেছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘ওই অঞ্চলে এটা ২০২০ সালের দ্বিতীয় হত্যাকাণ্ড।’ এর আগে জানুয়ারি মাসের গোড়ার দিকে এক বিস্ফোরণে চার রোহিঙ্গা শিশু নিহত হয়। সে ঘটনায় আরাকান আর্মি ও সরকারি বাহিনী পরস্পরকে দায়ী করেছিল।

শনিবার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় রয়টার্সের পক্ষ থেকে সামরিক বাহিনীর দুইজন মুখপাত্রের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তারা এ ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করেননি। অন্যদিকে ওই গ্রাম থেকে এক কিলোমিটার দূরে বসবাসকারী এক রোহিঙ্গা ব্যক্তি সো তুন ওঁ বলেন, বিস্ফোরণে দুইটি বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের সর্বোচ্চ বিচারালয় আইসিজের প্রেসিডেন্ট বিচারপতি আবদুল কাফি আহমেদ ইউসুফ রোহিঙ্গাদের সুরক্ষা নিশ্চিতে চারটি অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ ঘোষণা করেন। এতে গণহত্যা বন্ধ করে তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে আদেশ দেওয়ার মাত্র দুই দিনের মাথায় দুই রোহিঙ্গা নারীকে হত্যা করা হলো।

/এইচকে/বিএ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ