অস্ট্রেলিয়ায় জরুরি সহায়তা দরকার ১১৩ প্রজাতির প্রাণীর

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৮:৫০, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:০১, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২০

সাম্প্রতিক দাবানলের পর অস্ট্রেলিয়া ১১৩ প্রজাতির প্রাণী শনাক্ত করেছে; যাদের জরুরি সহায়তা প্রয়োজন। এর মধ্যে বেশিরভাগ প্রজাতিই তাদের ৩০ শতাংশ বাস্তুতন্ত্র হারিয়েছে। সরকার গঠিত একটি বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানিয়েছে, সবচেয়ে বেশি সহায়তা প্রয়োজন এমন প্রজাতিগুলোর মধ্যে রয়েছে কোয়ালা, পাখি, মাছ এবং ব্যাঙ।

অস্ট্রেলিয়ায় গত বছরের সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া দাবানলে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৫০ কোটি প্রাণী প্রাণ হারিয়েছে। অসংখ্য গাছ পুড়েছে, হাজার হাজার বনভূমি উজাড় হয়েছে, ভস্মীভূত হয়েছে কয়েক হাজার বাড়িঘর। 

মঙ্গলবার অস্ট্রেলীয় সরকারের প্রকাশিত এক তালিকায় দেখা গেছে, দাবানলের কবলে পড়া ভূমিতে থাকা প্রজাতিগুলো সংরক্ষণে জরুরি উদ্যোগ প্রয়োজন। সরকার গঠিত একটি বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানিয়েছে, কয়েকটি প্রজাতির বেশিরভাগ আবাসস্থল ধ্বংস হওয়ায় সেগুলো বিলুপ্তির মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে। এসব প্রজাতির মধ্যে রয়েছে পাগস ব্যাং, ব্লু মাউন্টেন ওয়াটার স্কিঙ্ক (এক প্রকার গিরগিটি) এবং ক্যাঙ্গারু দ্বীপের ডানার্ট (ইদুর আকৃতির এক ধরনের প্রাণী)। এছাড়া কোয়ালা এবং স্মোকি মাউসের বাসস্থানের অনেকটাই ধ্বংস হয়েছে। তবে বাকিটা সংরক্ষণে জরুরি সহায়তা দরকার।

অস্ট্রেলীয় সরকারের বিশেষজ্ঞ প্যানেল জানিয়েছে, সর্বমোট ২২ প্রজাতির চিংড়ি, ২০ প্রজাতির উভচর, ১৯ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ১৭ প্রজাতির মাছ এবং পাঁচ প্রজাতির অমেরুদণ্ডি প্রাণী শনাক্ত করা হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার পরিবেশমন্ত্রী সুসান লে জানিয়েছেন, পরবর্তীতে উদ্ভিদ প্রজাতির তালিকা প্রকাশ করা হবে।  

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ