নেভাদা অঙ্গরাজ্যে এগিয়ে বার্নি স্যান্ডার্স

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:১৫, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:২৩, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে আরেক ধাপ এগিয়ে গেলেন ভারমন্টের সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্স। শনিবার নেভাদা অঙ্গরাজ্যে দলের অভ্যন্তরীণ ভোটাভুটিতে তিনি বিজয়ী হওয়ার পথে রয়েছেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নেভাদায় দৃশ্যত বিজয়ী হতে চলেছেন স্যান্ডার্স। এ পর্যন্ত অর্ধেক ভোট গণনার খবর দিয়েছে সিএনএন। গণনাকৃত ভোটের মধ্যে ৪৬ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট পেয়েছেন স্যান্ডার্স। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন পেয়েছেন ১৯ দশমিক ২ শতাংশ ভোট। ১৫ দশমিক ৪ শতাংশ ভোট নিয়ে ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের সাউথ বেন্ড শহরের সাবেক মেয়র পিট বুটেজ তৃতীয় অবস্থানে রয়েছেন।

নেভাদা অঙ্গরাজ্যের মোট জনসংখ্যার ২৭ দশমিক  ৩ শতাংশই হিস্পানিক ও ল্যাটিনো। এ জনগোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের উদ্যোগ নিয়েছে টিম স্যান্ডার্স। তাদের আকৃষ্ট করতে রেডিও, টেলিভিশন ও সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজ্ঞাপন দেওয়া হচ্ছে। এমনকি প্যানডোরা ও স্পটিফাই-এর মতো মিউজিক স্ট্রিমিং সার্ভিসের মাধ্যমেও হিস্পানিক ও ল্যাটিনোদের মন জয়ের উদ্যোগ নিয়েছে টিম স্যান্ডার্স।

নেভাদা’র আগে আইওয়া ও নিউ হ্যাম্পশায়ারে ডেমোক্র্যাট পার্টির অভ্যন্তরীণ ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হয়। আইওয়া অঙ্গরাজ্যে পিট বুটেজ প্রথম ও স্যান্ডার্স দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন। অন্যদিকে নিউ হ্যাম্পশায়ারে বার্নি স্যান্ডার্স বিজয়ী এবং বুটেজ দ্বিতীয় হন।

এতদিন ধরে আলোচনার শীর্ষে থাকা জো বাইডেন ওই দুই নির্বাচনে তৃতীয় স্থান লাভ করার কারণে দৌড়ে টিকে থাকার জন্য তার নেভাদা অঙ্গরাজ্যে উল্লেখযোগ্য ভোট পাওয়া জরুরি ছিল। এবার তিনি বিজয়ী হতে না পারলেও দ্বিতীয় অবস্থানে উন্নীত হয়েছেন।

আগামী নভেম্বর মাসে আমেরিকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।এতে ঐতিহ্য অনুযায়ী রিপাবলিকান দল বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকেই প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী বাছাইয়ে আগামী শনিবার সাউথ ক্যারোলিনা অঙ্গরাজ্যে ভোটাভুটি হবে। এরপর আগামী ৩ ও ১৩ মার্চ একযোগে যুক্তরাষ্ট্রের ১৪টি প্রদেশে ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে। ওইসব ভোটের ফলের ওপর ভিত্তি করে দলটির চূড়ান্ত প্রার্থী নির্ধারণ করা হবে।

এ পর্যন্ত দৌড়ে এগিয়ে থাকা বার্নি স্যান্ডার্স এরইমধ্যে নিজের যে পররাষ্ট্রনীতি ঘোষণা করেছেন তাতে মধ্যপ্রাচ্য ইস্যু বিশেষভাবে গুরুত্ব পাবে। এ ক্ষেত্রে ইরানের সঙ্গে ছয় জাতিগোষ্ঠীর স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতা পুনর্বহালের পাশাপাশি একে ভিত্তি ধরে আরও এগিয়ে যাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন তিনি। সূত্র: সিএনএন, পার্স টুডে।

 

/এমপি/

লাইভ

টপ