স্পেনে টানা তৃতীয় দিন কমলো করোনায় মৃতের সংখ্যা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৯:৫৩, এপ্রিল ০৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০১, এপ্রিল ০৫, ২০২০

করোনাভাইরাস মহামারিতে টানা তৃতীয় দিনের মতো স্পেনে মৃতের সংখ্যা কমে আসার প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। রবিবার দেশটিতে ৬৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। শনিবারের তুলনায় এদিন মৃতের সংখ্যা কমেছে ১৩৫ জন। গত দশ দিনের মধ্যে রবিবার মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে কম। একদিনে দেশটিতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছিল ২ এপ্রিল। ওই দিন দেশটিতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ছিল ৯৫০ জন। দেশটির সংবাদমাধ্যম এল পাইস এ খবর জানিয়েছে।


স্পেনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে তথ্য অনুসারে, দেশটিতে এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ১২ হাজার ৪১৮ জন। করোনা পজিটিভ ১ লাখ ৩০ হাজার ৭৫৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত শনাক্ত করা হয়েছে ৬ হাজার ২৩ জন, যা সংকট শুরু হওয়ার পর একদিনে সর্বনিম্ন শনাক্তের ঘটনা।
নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়কারী মারিয়া হোসে সিয়েরা জানান, আক্রান্তদের মধ্যে ৩০ হাজার ৮০ জন সুস্থ হয়েছেন। মোট আক্রান্তের মধ্যে সুস্থ হওয়ার হার ২৯ শতাংশ। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যাও কমছে।
এল পাইস জানিয়েছে, করোনার বিস্তার দেশটিতে শুরু হওয়ার পর সাপ্তাহিক ছুটির দিনে অনেক আক্রান্ত ও মৃত্যুর খবর পেতে দেরি হয়। ফলে এই সংখ্যা সতর্কতার সঙ্গে বিবেচনা করা উচিত।
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। উৎপত্তিস্থল চীনে ৮০ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হলেও সেখানে ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব কমে গেছে। তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশে এই ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে। চীনের বাইরে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ১৩ গুণ বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষাপটে গত ১১ মার্চ দুনিয়াজুড়ে এটিকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।
দুনিয়াজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১২ লাখ ছাড়িয়েছে। বাংলাদেশ সময় ৫ এপ্রিল রবিবার রাত আটটায় যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এ তথ্য জানিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয়টির ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারিতে এ পর্যন্ত বিশ্বের ১৮১টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। বিভিন্ন দেশের সরকারি হিসাব অনুযায়ী, এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১২ লাখ ১৮ হাজার ৪৭৪। এরমধ্যে ৬৫ হাজার ৮৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসা গ্রহণের পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন দুই লাখ ৫২ হাজার ৫৩৮ জন।

/এএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ