করোনাকালে ঘোষিত অর্থনৈতিক পরিকল্পনার বিরুদ্ধে ইকুয়েডরে বিক্ষোভ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:১৮, মে ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:২১, মে ২৬, ২০২০

করোনাভাইরাসের মহামারি ঠেকাতে ঘোষিত সরকারের অর্থনৈতিক পরিকল্পনার প্রতিবাদে ইকুয়েডরের রাজপথে বিক্ষোভ করেছে হাজার হাজার মানুষ। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাজধানী কুইটোর রাজপথে নেমে আসে প্রায় দুই হাজার বিক্ষোভকারী। গত সপ্তাহে দেশটির প্রেসিডেন্ট যে অর্থনৈতিক পরিকল্পনা ঘোষণা করেছেন তাতে বেশ কয়েকটি রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি বন্ধ এবং সরকারি চাকুরিজীবীদের বেতন কেটে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি’র এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী ইকুয়েডরে প্রায় ৩৭ হাজার মানুষের ভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়েছে আর মৃত্যু হয়েছে প্রায় দুই হাজার মানুষের। গত সপ্তাহে ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট জানান, মহামারির কারণে ইতোমধ্যে দেড় লাখ মানুষ চাকরি হারিয়েছে। বাধ্য হয়ে বেতন কমানোর ঘোষণা দিতে হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।

রবিবার সামাজিক বিভিন্ন সংস্থা ও ট্রেড ইউনিয়ন কর্তৃক আয়োজিত বিক্ষোভে মাস্ক পরে এবং পতাকা নিয়ে যোগ দেয় হাজার হাজার মানুষ। রাজধানী কুইটো ছাড়াও বিক্ষোভ হয়েছে দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর গুয়ায়াকুইলেতে। শহরটির এক ট্রেড ইউনিয়ন নেতা বলেন, ‘করোনাভাইরাস আমাদের মারতে না পারলেও সরকার মেরে ফেলবে।’

বিক্ষোভের সময়েও সতর্কতা মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন কুইটোর মেয়র জর্জ ইয়োন্দো মাচাদো। টুইটারে তিনি লিখেছেন, সশরীরে উপস্থিতির বাইরে এসে প্রতিবাদের ভিন্ন উপায় খুঁজতে হবে। তিনি বলেন, এতে সংক্রমণের মারাত্মক ঝুঁকি আছে আমরা একটি স্বাস্থ্যগত জরুরি পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছি।

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মারিয়া পাওলো রোমো সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ইকুয়েডরের বিভিন্ন শহরে প্রায় চার হাজার মানুষে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছে। এক পুলিশ আহত হয়েছে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) সতর্ক করেছে, করোনাভাইরাসের নতুন ভরকেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে দক্ষিণ আমেরিকা। ইতোমধ্যে ভাইরাসটিতে ব্রাজিলে ২৩ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। ইকুয়েডরের প্রতিবেশি পেরুতেও প্রায় এক লাখ ২০ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছে।

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ