ব্রিটেনে সে দাস ব্যবসায়ীর ভাস্কর্যস্থলে ‍কৃষ্ণাঙ্গ বিক্ষোভকারীর মূর্তি প্রতিস্থাপন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:৩৩, জুলাই ১৫, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৪০, জুলাই ১৫, ২০২০

ব্রিটেনের বন্দর শহর ব্রিস্টলে দাস ব্যবসায়ী এডয়ার্ড কোলস্টোনের অপসারিত মূর্তির জায়গায় জেন রেইড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গ বিক্ষোভকারীর মূর্তি প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। বুধবার (১৫ জুলাই) সকালে শিল্পী মার্ক কুয়িনের নির্দেশনা অনুযায়ী একটি দল মূর্তি প্রতিস্থাপনের কাজ শেষ করে। গত মাসে কোলস্টোনের মূর্তিটি অপসারণের পর সে জায়গায় উঠে মুষ্টিবদ্ধ হাত তুলে দাঁড়িয়ে থাকা জেন রেইডের একটি ছবি ব্যাপক আলোচনার জন্ম দিয়েছিল। সে ছবির আদলেই তৈরি করা হয়েছে তার মূর্তি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

জেন রেইডের মূর্তি

এডয়ার্ড কোলস্টোন ১৬ শতকের শেষ দিকে দাস ব্যবসা করে প্রচুর সম্পদের মালিক হয়েছিলেন। ১৮৯৫ সাল থেকে শহরটিতে তার মূর্তিটি রয়েছে। তবে বহুবর্ণের শহরে এটির উপস্থিতি দিন দিন বিতর্কিত হচ্ছিল। এরমধ্যেই গত ২৫ মে মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হওয়া বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলন যুক্তরাজ্যেও ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের ব্রিস্টল শহরে জমায়েত হওয়া বিক্ষোভকারীরা দাস ব্যবসায়ী এডওয়ার্ড কোলস্টনের মূর্তি রশি দিয়ে টেনে ভেঙে ফেলে। মূর্তিটি উপড়ে ফেলার সময় জমায়েত হওয়া মানুষেরা উল্লাস করতে থাকে। পরে তা ব্রিস্টল বন্দরে নিয়ে সাগরের পানিতে ফেলা হয়।

মূর্তিটি উপড়ে ফেলার পর পরই সে জায়গায় মুষ্টিবদ্ধ হাত তুলে দাঁড়িয়েছিলেন বর্ণবাদবিরোধী বিক্ষোভকারী জেন রেইড। কোলস্টোনের মূর্তির জায়গায় তার মূর্তি তৈরির পরিকল্পনা করেন শ্বেতাঙ্গ শিল্পী কুয়িন। জেন রেইডের সঙ্গে কথা বলেই কাজ এগিয়ে নিয়ে যান তিনি। বুধবার ভোর ৫টা বাজার আগেই লরিতে করে মূর্তিটি নিয়ে আসা হয়। ১০ জনের একটি দল খুব দ্রুত তা প্রতিস্থাপন করেন। এর নিচে লাগানো প্ল্যাকার্ডে লেখা আছে ‘ব্ল্যাক লাইভস স্টিল ম্যাটার’। মূর্তিটি স্থাপনের পর দ্রুত চলে যান ওই লোকগুলো। তারা চলে যাওয়ার পর নিজের ভাস্কর্যের পাদদেশে একই ঢংয়ে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকেন রেইড।

নতুন কাজের ছবি ইন্সটগ্রামে পোস্ট করে কুয়িন লিখেছেন, “স্থানীয় বাসিন্দা জেন রেইড এবং আমি দুইজন মিলে ইংল্যান্ডের ব্রিস্টলে কোলস্টনের অপসারিত মূর্তির জায়গায়  একটি অস্থায়ী ও পাবলিক স্থাপনা উন্মোচন করেছি। এর নাম দিয়েছি- ‘এ্যা সার্জ অব পাওয়ার (জেন রেইড) ২০২০’।”

/এফইউ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ