টিক টক নিষিদ্ধে নির্বাহী আদেশ জারি করবেন ট্রাম্প

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:২১, আগস্ট ০১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৩০, আগস্ট ০১, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রে চীনা কোম্পানির মালিকানাধীন অ্যাপ টিক টক বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে আবারও ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শনিবার (১ আগস্ট) এ সংক্রান্ত এক নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করার কথা রয়েছে তার। শুক্রবার (৩১ জুলাই) এয়ারফোর্স ওয়ান বিমানে বসে সাংবাদিকদের দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ তথ্য জানিয়েছেন ট্রাম্প। তার অভিযোগ, গুপ্তচরবৃত্তির হাতিয়ার হিসেবে টিক টক ব্যবহার করছে চীন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প

বাণিজ্য যুদ্ধ, দক্ষিণ চীন সাগরের নিয়ন্ত্রণ, হংকংয়ে চীনের নিরাপত্তা আইন জারিসহ নানা বিষয় নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী অর্থনীতির ‍দুই দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বিরোধ চলছে। তাছাড়া বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়ার জন্য চীনকে দোষারোপ করে আসছেন ট্রাম্প।পাল্টাপাল্টি বিরোধের জের ধরে গত মাসে চীনা অ্যাপ টিক টক বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে ঘোষণা দেন তিনি। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে গুঞ্জন চলছিলো যে, টিক টক নিষিদ্ধ না করে চীনা  কোম্পানির অনুমতিক্রমে যুক্তরাষ্ট্রের কোনও কোম্পানি তা চালাতে পারে। তবে শুক্রবার সে গুঞ্জনের অবসান ঘটিয়ে ট্রাম্প জানিয়েছেন, শনিবারই সম্পন্ন হতে পারে টিক টক নিষিদ্ধের প্রক্রিয়া।

সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, ‘টিক টকের ব্যাপারে এটুকু বলতে পারি যে এটিকে যুক্তরাষ্ট্রে আমরা নিষিদ্ধ করছি।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, ‘মাইক্রোসফট কিংবা অন্য কোনও কোম্পানির সঙ্গে এটির বেচা-কেনা সংক্রান্ত যে চুক্তির কথা আপনারা শুনছেন তা হচ্ছে না। আমরা একীভূতকরণ কিংবা অধিগ্রহণ করছি না।’

বাইট ড্যান্স নামে একটি চীনা সংস্থার অ্যাপ এই টিক টক। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা ও আইনপ্রণেতারা অভিযোগ করে আসছেন টিক টক অ্যাপটিকে যুক্তরাষ্ট্রে গুপ্তচরবৃত্তির কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। বাইট ড্যান্স বরাবরই দাবি করে আসছে, তারা কোনও তথ্য চুরি করছে না। টিক টকের মুখপাত্র সম্প্রতি ব্লুমবার্গকে বলেন, ‘মার্কিন সিইও-র নেতৃত্বে চলে টিক টক। যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে এই অ্যাপের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে শতাধিক কর্মী।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কোনও ডাটা চীনে পাঠাইনি, আমাদের পাঠাতে বলাও হয়নি।’

 

/এফইউ/

লাইভ

টপ