মার্কিন ঘাঁটিতে চীনের কৃত্রিম হামলার ভিডিও প্রকাশ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০২:১৯, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:২০, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান উত্তেজনার মধ্যে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে চীনের বিমানবাহিনী। এতে  পারমাণবিক ক্ষমতা সম্পন্ন চীনের এইচ-৬ বোমারু বিমানকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় সামরিক ঘাঁটি গুয়ামে হামলা চালাতে দেখা গেছে। কৃত্রিম এই ভিডিওটি গত শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) চীনের পিপল’স লিবারেশন আর্মির বিমান বাহিনীর উইবু অ্যাকাউন্টে প্রকাশ করা হয়। ওইদিনই তাইওয়ানে যুক্তরাষ্ট্রের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার উপস্থিতির মধ্যে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো সামরিক বিমানের মহড়া চালায় বেইজিং। বিশ্লেষকরা বলছেন, ভিডিও প্রকাশের মধ্য দিয়ে মূলত যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে চীন। সোমবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।বিশ্লেষকেরা মনে করেন ভিডিও`র মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছে চীন

চীনের ওপর চাপ বাড়াতে সম্প্রতি তাইওয়ানের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত ১৭ সেপ্টেম্বর (বৃহস্পতিবার) তিন দিনের সফরে তাইওয়ান পৌঁছান যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি কেইথ ক্রাচ। বিগত চার দশকের মধ্যে তাইওয়ান সফরে আসা মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের সবচেয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা তিনি। এই সফর নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করতে নিজেদের দাবিকৃত তাইওয়ান প্রণালীতে টানা তিন দিন যুদ্ধবিমানের মহড়া দেয় চীন।

মহড়ার পাশাপাশি চীনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম উইবুতে দুই মিনিট ১৫ সেকেন্ড দীর্ঘ একটি ভিডিও প্রকাশ করে দেশটির বিমান বাহিনী। ভিডিওটিতে যে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলা চালাতে দেখা গেছে সেই গুয়াম যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বড় সামরিক স্থাপনা। প্রশান্ত মহাসাগরে অবস্থিত এই স্থাপনায় মার্কিন বিমান ঘাঁটিও রয়েছে। এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগর অঞ্চলে যেকোনও সংঘাতের জবাব দিতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই ঘাঁটিটি।

ওই ঘাঁটিতে কৃত্রিম হামলা চালানোর যে ভিডিওটি চীন প্রকাশ করেছে তা শুরু হয়েছে হলিউড সিনেমার মতো নাটকীয় মিউজিক দিয়ে। এই মিউজিকের সঙ্গে সঙ্গে মরু অঞ্চলের কোনও এক ঘাঁটি থেকে এইচ-৬ বোমারু বিমানকে উড়াল শুরু করতে দেখা যায়। ভিডিওটি’র নাম দেওয়া হয়েছে, ‘যুদ্ধের ঈশ্বর এইচ-৬কে আক্রমণ শানাচ্ছে।’

ভিডিওতে দেখা যায়, অর্ধেক পথ পার হয়ে বিমানটির পাইলট বোতাম টিপে সমুদ্র তীরবর্তী কোনও একটি রানওয়েতে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে দেন। স্যাটেলাইট চিত্রের মাধ্যমে ক্ষেপণাস্ত্রটি যে রানওয়েতে বিধ্বস্ত হতে দেখানো হয়ে সেটি অবিকল গুয়ামের অ্যান্ডারসন ঘাঁটির মতো মনে হয়েছে। এসময় হঠাৎ করে মিউজিক বন্ধ হয়ে মাটি কেঁপে ওঠার ছবি ভেসে উঠতে দেখা যায়। এরপরই আকাশ থেকে তোলা বিস্ফোরণের ছবি দেখানো হয়।

ভিডিওটির সংক্ষিপ্ত বর্ণনায় চীনা বিমানবাহিনী লিখেছে, ‘আমরা মাতৃভূমির আকাশ নিরাপত্তা প্রহরী; মাতৃভূমির আকাশ সবসময় সুরক্ষিত রাখার আত্মবিশ্বাস এবং ক্ষমতা দুইই আমাদের আছে।’

ওই ভিডিও নিয়ে চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি। তবে সিঙ্গাপুরের প্রতিরক্ষা এবং কৌশল শিক্ষা ইনস্টিটিউটের রিসার্চ ফেলো কলিন কোহ মনে করেন, ভিডিওটির লক্ষ্য হলো দীর্ঘ পাল্লায় চীনের ক্রমবর্ধমান শক্তি প্রদর্শন। তিনি মনে করেন ভিডিওতে যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে দিয়ে বলা হয়েছে তাইওয়ান কিংবা দক্ষিণ চীন সাগর- যাই হোক না কেন এই অঞ্চলে সংঘাত শুরু হলে গুয়ামের মতো নিরাপদ ভাবা ঘাঁটিতেও হামলা চালাতে পারে চীন।

তাইওয়ান বিমান বাহিনী জানিয়েছে, চীনের এইচ-৬ বোমারু বিমান একাধিকবার তাইওয়ান প্রণালীতে মহড়া দিয়েছে। বেইজিংয়ের সাম্প্রতিক মহড়াতেও যুক্ত ছিলো অত্যাধুনিক মডেলের এই বোমারু বিমান। ১৯৫০’র দশকের সোভিয়েত আমলের টিইউ-১৬ বিমানের ওপর ভিত্তি করেই বানানো হয়েছে নতুন এই চীনা বিমানটি।

এদিকে সোমবার নতুন আরেকটি ভিডিও প্রকাশ করেছে চীনের পূর্বাঞ্চলীয় থিয়েটার কমান্ড। তাইওয়ানে কোনও হামলা চালানো হলে তার দায়িত্ব থাকবে এই কমান্ডের কাছে। ‘আজ যুদ্ধ শুরু হলে কী হবে?’ শিরোনামের ভিডিওতে সেনা সদস্যদের বুনো পাহাড়ে দৌড়াতে এবং ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ করতে দেখা যায়।স ভিডিওটির শেষে বিস্ফোরণের পটভূমিতে চীনা হরফে যে লেখাটি ভেসে উঠতে দেখা যায় তাতে বলা হয়েছে, ‘মাতৃভূমি, প্রতিজ্ঞা করছি আমৃত্যু তোমার জন্য লড়াই করবো।’

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ