করোনায় মৃত্যুর ঝুঁকি ৫২ শতাংশ কমাতে সক্ষম ভিটামিন ডি?

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:৫০, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৫, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০

যারা পর্যাপ্ত পরিমাণে এই ভিটামিন গ্রহণ করেন তাদের কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকি ৫২ শতাংশ কম। নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য উঠে এসেছে। ডেইলি মেইলের প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে,  বোস্টন ইউনিভার্সিটির ড. মাইকেল হোলিক ও তার দল এই গবেষণা সম্পন্ন করেছেন। তেহরানের এক হাসপাতালে চিকিৎসারত দু্ই শতাধিক কোভিড রোগীর শরীর থেকে নেওয়া রক্তের নমুনা পরীক্ষা শেষে এমন সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন তারা।

আমাদের ইমিউন সিস্টেম অর্থাৎ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ভিটামিন ডি। শরীরে বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের ক্ষেত্রেও বেশ কার্যকরী এই ভিটামিন। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভিটামিন ডি'র বিভিন্ন বৈশিষ্ট্য মানুষের দেহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এই ভাইরাসের কারণে যাদেরকে বেশ ভুগতে হয়েছে তাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রেই দেখা গেছে যে, তাদের দেহে ভিটামিন ডি'র ঘাটতি অনেক বেশি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তাদের দেহে ভিটামিন ডি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

বোস্টন ইউনিভার্সিটির ড. মাইকেল হোলিক তার পূর্ববর্তী একটি গবেষণায় দেখেছেন, যারা পর্যাপ্ত ভিটামিন ডি গ্রহণ করেন তাদের করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হওয়ার আশঙ্কা ৫৪ শতাংশ কম। ওই গবেষণায় তিনি এবং তার টিম দেখেছেন, যাদের দেহে ভিটামিন ডির ঘাটতি রয়েছে তাদের অসুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি, বিভিন্ন ধরনের জটিলতায় বেশি ভোগেন এবং অনেক ক্ষেত্রেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারাচ্ছেন।

নতুন গবেষণায় তিনি ও তার দল দেখেছেন, যাদের শরীরে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ডি রয়েছে তারা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলেও তাদের ইমিউন সিস্টেম করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর প্রতিরোধ তৈরিতে ভূমিকা রাখে। মৃত্যুঝুঁকি কমায় ৫২ শতাংশ। ড. হলিক বলছেন, নতুন গবেষণা সরাসরি প্রমাণ করছে যে, ভিটামিন ডির ঘাটতি রোগের জটিলতাকে কমাতে সক্ষম। বিশেষ করে সাইটোকিন স্টর্ম এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকি কমানো।

ভিটামিন ডি'র আদর্শ মাত্রা এখনও পরিষ্কার নয়। তবে ৩০ ন্যানোগ্রাম পর্যন্ত পর্যাপ্ত বিবেচনা করা হয়। এর কম হলেই অপর্যাপ্ত ধরা হয়। তেহরানের একটি হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কোভিড-১৯ আক্রান্ত ২৩৫ রোগীর দেহ থেকে রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেছিলেন ড. হলিক এবং তার সহকর্মীরা। এদের মধ্যে ৬৭ শতাংশ রোগীর দেহে ভিটামিন ডি ছিল ৩০ ন্যানোগ্রামের নিচে।

ভিটামিন ডি'র প্রধান উৎস সূর্যের আলো। যারা প্রতিদিন এই ভিটামিন গ্রহণ করছেন তাদের মধ্যে ঠিক কী পরিমাণ মানুষ করোনা থেকে প্রাণে বেঁচে যাচ্ছেন তা এখনও পরিষ্কার নয়। তবে আমাদের জানামতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৪২ শতাংশ মানুষের দেহেই ভিটামিন ডি'র ঘাটতি রয়েছে। যদি এই তথ্য সত্যি হয়ে থাকে তবে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এতো বেশি মৃত্যুর জন্য ভিটামিন ডি'র ঘাটতি অন্যতম।

করোনাভাইরাসের ঝুঁকি কমাতে ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করা উচিত কীনা তা নিয়ে এখনও বিতর্ক রয়েই গেছে। তবে এ বিষয়ে সবাই একমত যে, এই ভিটামিন সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং দেহে প্রদাহের মাত্রা কমিয়ে আনতে সক্ষম।

/বিএ/

লাইভ

টপ
X