তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারিতে বিভক্ত ইইউ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৩৩, অক্টোবর ০১, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:১৯, অক্টোবর ০১, ২০২০

ভূমধ্যসাগরে বিরোধ নিয়ে ইউরোপীয় কাউন্সিলের বৈঠক গত সপ্তাহে স্থগিত হওয়ার পর বৃহস্পতি ও শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মাইকেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর বৈঠক স্থগিত করা হয়। ভূমধ্যসাগরে গ্রিসের সঙ্গে তুরস্কের বিরোধে সাইপ্রাসের পক্ষে ইইউ অবস্থান নিলেও আঙ্কারার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপে দোদুল্যমান। ইউরোপীয় নেতারা ইইউ-তুরস্ক সম্পর্কে ভারসাম্য বজায় রাখতে কঠিন পরিস্থিতির মুখে পড়েছেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ খবর জানিয়েছে।

বুধবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান ইউরোপের ২৭ দেশের নেতার প্রতি এক চিঠিতে লিখেছেন, আমি আবারও কোনও পূর্ব শর্ত ছাড়াই গ্রিসের সঙ্গে সংলাপে বসার প্রস্তুতির কথা গুরুত্বের সঙ্গে জানাতে চাই। দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের এই নতুন পরীক্ষায় ইইউ নিরপেক্ষ থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

তবে বৃহস্পতিবার বৈঠক শুরু হওয়ার আগে সাইপ্রাসের এক কূটনীতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেছেন, ইউরোপীয় দেশগুলো যদি প্রথমে তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ না করে তাহলে তারা বেলারুশের বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপের দৃঢ় বিরোধিতা করবেন।

অন্যদিকে, ইইউ নেতারা তুরস্কের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি চান না। বিশেষ করে তুরস্ক যখন গ্রিসের সঙ্গে সমুদ্রসীমা নিয়ে আলোচনায় বসার আগ্রহের কথা জানাচ্ছে। কিন্তু তুরস্কের বিরুদ্ধে কঠোর নিষেধাজ্ঞার জোরালো চাপ দিয়ে যাচ্ছে সাইপ্রাস। আঙ্কারার বিরুদ্ধে তাদের অবস্থানে কোনও নমনীয়তা দেখা যাচ্ছে না।

জার্মানির পক্ষ থেকে তুরস্ক-গ্রিসের আলোচনায় মধ্যস্থতা করা হচ্ছে। দেশটির পক্ষ থেকে সাইপ্রাসকে বারবার বলা হয়েছে, তুরস্কের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাশা না করতে। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। তুরস্ক নিজের অবস্থান আরও কঠোর করে ফেলতে পারে। 

/এএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ
X