ফ্লোরিডায় একই দিনে নির্বাচনি প্রচারে ট্রাম্প ও বাইডেন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৮:৫৩, অক্টোবর ৩০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ০৯:২৬, অক্টোবর ৩০, ২০২০

মার্কিন নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে বৃহস্পতিবার নির্বাচনি সমাবেশ করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাম্প ও তাকে চ্যালেঞ্জকারী জো বাইডেন। ভোটের দিনের মাত্র ৫ দিন আগে নির্বাচনি প্রচারে তারা একে অন্যকে আক্রমণ করে বক্তব্য দিয়েছেন। বাইডেন সমর্থকদের বলেছেন, আপনাদের কাছেই ক্ষমতা। ফ্লোরিডা যদি নীলের (ডেমোক্র্যাট) পক্ষে যায়, তাহলেই হলো। অর্থনৈতিক অগ্রগতির কথা বলে তুলে রিপাবলিকান ট্রাম্প বলেন, তিনি (বাইডেন) জিতলে আপনাদের লক ডাউন করে রাখবেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে।

জাতীয়ভিত্তিক জনমত জরিপে ট্রাম্পের চেয়ে বাইডেন এগিয়ে থাকলেও মাঠ পর্যায়ে ফ্লোরিডার মতো অঙ্গরাজ্যে সেই সুবিধা দেখা যায়নি। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এমন অঙ্গরাজ্যগুলোতে জয় পাওয়া মানে হোয়াইট হাউসের টিকিট নিশ্চিত হওয়া বলে ধরে নেওয়া হয়।

এরই মধ্যে ৮ কোটির বেশি মানুষ ভোট দিয়েছেন। এদের মধ্যে ৫ কোটি ২০ লাখ দিয়েছেন ডাক ভোট। যার ফলে এক শতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোট পড়ার রেকর্ডের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডার থাম্পাতে সমাবেশে ট্রাম্প মার্কিন অর্থনীতির একটি নতুন পূর্বাভাস তুলে ধরেন। এতে বলা হয়েছে অর্থনীতি বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ৩৩.১% শতাংশ হবে। যা করোনা মহামারির প্রথম তিন মাসের চেয়ে অনেক বেশি।

নিজেকে হোয়াইট হাউসে ধরে রাখতে ফ্লোরিডাতে জয় পেতেই হবে ট্রাম্পকে। জনমত জরিপগুলোতে গড়ে ১.৪ পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছেন তিনি।

১০০ মিনিটের সমাবেশে উপস্থিতি হাজার হাজার সমর্থকদের অনেকেই মাস্ক ছাড়া হাজির হন। তাদের উদ্দেশে ট্রাম্প বলেন, জো বাইডেনের পরিকল্পনা হলো লকডাউন দিয়ে শাস্তি দেওয়া। তিনি আপনাদের লকডাউন করে রাখবেন। ঘুম কাতুরে বাইডেন প্রেসিডেন্ট আপনাদের এমন হতাশায় পড়তে হবে যা আগে আপানারা কখনও দেখেননি।

ট্রাম্প আরও বলেন, ইউরোপের তুলনায় আমাদের দেখুন। জার্মানি অনেক ভালো করছে, ফ্রান্সও ভালো করছে। সবাই ভালো করছে। না, তারা খুব ভালো করছে না।

ইউরোপীয়রা মিত্র ছিল তুলে ধরে ট্রাম্প বলে চলেছেন, তাদের সংক্রমিতের সংখ্যা বাড়ছে, তারা অনেক কিছুই বন্ধ করছে, তারা লকডাউন জারি করছে। আমি এমন পদক্ষেপের সঙ্গে একমত নই। আমি আপনাদের আর কখনও লকডাউন করব না। আমরা লকডাউন দিয়েছিলাম, রোগটি সম্পর্কে জেনে গেছি। এখন আমরা অর্থনীতি চালু করেছি।

সমাবেশে ট্রাম্পকে পরিচিত করিয়ে দেন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। নির্বাচিন প্রচারের শেষ মুহূর্তে স্বশরীরের মেলানিয়া বিরল অংশগ্রহনে বলেন, আমরা আশার দেশ, ভয় বা দুর্বলতার নই। আমাদের এমন নেতা রয়েছেন যিনি প্রতিটি দিন আপনাদের সামনে হাজির হয়েছেন।

২৪ মিনিটের উপস্থিতিতে ফ্লোরিডার মিয়ামির ব্রোওয়ার্ড কাউন্টির একটি কলেজে বক্তব্য রাখেন বাইডেন। তিনি বলেন, আপনাদের সঙ্গে করমর্দনের সুযোগ বঞ্চিত হচ্ছি। কিন্তু আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি বাস্তবতা মেনে চলার চেষ্টা করব।

করোনার বিস্তার ঠেকাতে ডেমোক্র্যাট সমর্থকদের অনেকেই নিজেদের গাড়িতে অবস্থান করেন, মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব পালন করেন। এজন্য তাদেরকে ধন্যবাদ জানান বাইডেন।

ট্রাম্পের সমাবেশকে করোনার সুপারস্প্রেডার অনুষ্ঠান হিসেবে আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, ট্রাম্প হাল ছেড়ে দিয়েছেন। আপনারা মাস্ক পরুন। এটি কোনও রাজনৈতিক বক্তব্য নয়, এটি দেশপ্রেমীদের দায়িত্ব। 

/এএ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ