ড্যান কেকের কারখানায় একদিন

Send
জুবলী রাহামাত
প্রকাশিত : ১৫:০০, নভেম্বর ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:৩৬, নভেম্বর ২২, ২০১৯

ডেনমার্কে পথচলা শুরু হয়েছিল বেকিং কোম্পানি ‘ড্যান কেক’ এর। সেটা ১৯৩১ সালের কথা। ৮৭ বছর ধরে এক দেশ থেকে আরেক দেশে বিস্তৃত হয়েছে ড্যান কেকের কার্যক্রম। সেই ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালে বাংলাদেশে শুরু হয় বিশ্বখ্যাত কোম্পানিটির পথচলা।


ঢাকার অদূরে সাভারের বিরুলিয়ায় রয়েছে ড্যান কেকের ফ্যাক্টরি।
ফ্যাক্টরির সামনেই দেখা যায় অনেকগুলো তৈরিকৃত কেক সারি-সারি করে বিপণনের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে। পণ্যের মান ও ফ্যাক্টরির পরিচ্ছন্নতা বিষয়েও রাখা হচ্ছে পূর্ণ নজর।


ফ্যাক্টরির প্রধান অংশ বা কারখানায় প্রবেশ করার জন্য কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত পোশাক, মাস্ক ও ক্যাপ পরে এবং সেন্সরের মাধ্যমে হ্যান্ড সেনিটাইজেশন ব্যবহারের পরই কারখানায় প্রবেশ করতে হলো। প্রোডাকশন ফ্লোরটিতে যেন কোনও ধরনের ব্যাকটেরিয়া জন্মাতে না পারে তাই ফ্লোরগুলোতে এফোক্সি ফ্লোর ব্যবহার করা হয়।


ফ্যাক্টরির কোয়ালিটি অ্যাসিউরেন্স ম্যানেজার ইমরান বলেন, ‘কারখানার ভেতরের বাতাসটি প্রাকৃতিক কিন্তু এটি ম্যানুফ্যাকচারিং এর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা হয়। এতে ভেতরে কোনও ধরেনের দূষিত বাতাস প্রবেশ করতে পারে না। মাইক্রোবায়োলোজি ল্যাব রয়েছে। যেখানে প্রতিটি পণ্যের মান  ও কারখানার কর্মীদের স্যানিটাইজেশন পরীক্ষা করা হয়। পরিচ্ছন্নতার দিক থেকে কোনও ছাড় নেই এখানে।’
সব কাঁচামাল স্টোর করে রাখা হয়েছে নির্দিষ্ট স্থানে। এই কাঁচামালগুলো ইউরোপ থেকে আনা হয়। প্রতিটি কাঁচামালের মান পরীক্ষা করেই কারখানার ভেতরে প্রবেশ করানো হয়। প্রস্তুতকরণ জোনে সব কাঁচামাল মেশানোর পর কেকের মান অনুযায়ী সব একত্র করা হয়। এই জোনটি স্বয়ংক্রিয় মেশিন দিয়ে পরিচালনা করা হয়। যেখানে প্রতিটি পণ্যের জন্য নির্দিষ্ট তাপমাত্রা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। ব্লু জোন হলো প্যাকিংয়ের জোন। যেখানে প্যাক করা হয়, ডেট কোডিং করা হয়। ফিনিশড গুড স্টোর হলো সেই জায়গা যেখানে পণ্য গুলো সারি সারি করে রাখা হয়। এখান থেকেই বাংলাদেশের প্রত্যেকটি জায়গায় যায় ড্যান কেক। ইমরান জানান, এখান থেকে কোনও পণ্য যদি বিপণনের জন্য গিয়েও  মানের কোনও তারতাম্য দেখা দেয়, তাহলে তা আবার ফিরিয়ে আনা হয়।
ড্যান কেকের ফ্যাক্টরিতে প্রতিদিন প্রায় ১০ টন কেক উৎপাদন করা হয়। এই ফ্যাক্টরিতে প্রায় ১১০ জন কর্মী কাজ করেন।


ডেনমার্ক থেকে যেমন ইউরোপসহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে কেক রপ্তানি করা হয়, তেমনি বাংলাদেশের ফ্যাক্টরি থেকে নেপাল, মালদ্বীপসহ ভারতে ড্যানকেক ইতোমধ্যে রপ্তানি করা হচ্ছে। জানান ড্যান ফুডস লিমিটেডের বিপণন বিভাগের প্রধান মিনহাজ হোসেইন। ড্রাই কেক তৈরির জন্য যে ঘি ব্যবহার করা হয় তা বিশেষভাবে তৈরি। এছাড়া কোকোনাট ও চকলেট ম্যাকারুনস এর জন্য যে ম্যাকারুন্স ব্যাবহার করা হয় তা ইতালি থেকে আনা হয় এবং যে নারকেল ব্যবহার করা হয়  তা ফিলিপাইন থেকে আমদানি করা হয়- জানান মিনহাজ।
সম্পূর্ণ ইউরোপের টেকনোলজি  ব্যবহার করা হচ্ছে ড্যান কেক প্রস্তুতে। ‘আমাদের এই ফ্যাক্টরিটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালনা করা হয়। কিন্তু মেশিনের পেছনে যে লোকটি রয়েছে, তিনিও আমাদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ’- বলেন ফ্যাক্টরি প্রধান ফায়েজ আহমেদ।

/এনএ/

লাইভ

টপ