যে ক্যাফে বিড়ালপ্রেমীদের

Send
হৃদয় সম্রাট
প্রকাশিত : ১৭:৪৫, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৪০, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৯

বিড়ালের পদচারণায় মুখরিত কোনও স্থানে যদি দুদণ্ড সময় কাটাতে পারেন, সঙ্গে থাকে মজার সব খাবার- তবে কেমন হয়? পোষা প্রাণী যারা ভালোবাসেন, তাদের এমনই আনন্দের মুহূর্ত উপহার দিতে ৫ বিড়ালপ্রেমী বন্ধু শুরু করেছেন ব্যতিক্রমী একটি রেস্টুরেন্ট। ক্যাপোচিনো ক্যাট ক্যাফেতে বসে যেমন খেতে পারবেন মজার সব খাবার, তেমনি এখানে থাকা বিড়ালগুলোর সঙ্গে কাটাতে পারবেন ইচ্ছেমতো সময়। ক্যাফেটির প্রতিষ্ঠাতা রাহাত রহমান, মিনহাজ উদ্দিন শিবলী, ফাহাদ বিন সাদ, মুঈদ রাসেল এবং তানিমুল হক খান। তারা জানালেন তাদের ভিন্ন এই উদ্যোগের বিষয়ে।


রেসকিউ করা ১৭টি বিড়াল নিয়ে ঢাকার মিরপুরে যাত্রা শুরু করেছিল ক্যাপোচিনো ক্যাট ক্যাফে। সেটি জুলাই মাসের কথা। তবে এই ভিন্ন উদ্যোগকে নগরবাসী স্বাগত জানিয়েছে বেশ ভালোভাবেই। রাহাত জানালেন, প্রাণীপ্রেমীদের পদচারনায় বেশিরভাগ সময়ি মুখরিত থাকে ক্যাফে। মাঝে মাঝেই জায়গা দিতে হিমশিম খেতে হয়। এতেই বোঝা যায় আদুরে এই প্রাণীগুলোকে কত মানুষ ভালোবাসে!  
ক্যাফেতে থাকা প্রাণীগুলোর যত্নের ব্যাপারে কোনও ধরনের আপোষ করা হয় না বলে জানালেন সত্ত্বাধিকারীরা। বিড়ালের যত্ন নেওয়ার জন্য রয়েছে দুইজন। নিজস্ব পেট স্পেশালিস্টের মাধ্যেম ট্রিটমেন্ট হয় তাদের। সারাদিনে চারবার খাবার দেওয়া হয়। অসুস্থ বিড়ালকে সময় মতো ওষুধ ও সেবা দেওয়া হয়।  শীতকালে বিড়ালদের প্রয়োজন হয় খানিকটা বাড়তি যত্নের। তাই তাদের জন্য করা হয়েছে হিটারের ব্যবস্থা। এখানকার বিড়ালরা সুস্থ, সবল, চঞ্চল। খুব দ্রুত তারা বেড়ে ওঠে মানুষের ভালোবাসায়।


ক্যাফেতে খাবারের জোনটি আলাদা রাখা হয়েছে। বিড়ালের লোম যেন খাবারে না পড়ে, সেজন্যই এই ব্যবস্থা। ‘দেশের বাইরের ক্যাট ক্যাফেগুলোতে খাবার আর বিড়াল একসাথেই রাখা হয়। তারা এটাতে অভ্যস্ত হয়ে গেছে। কিন্তু আমাদের দেশে এই ধারণাটি একদম নতুন, তাই আমরা এই বিড়াল এবং খাবার জোনটাকে আলাদা রেখেছি’- বলেন মিনহাজ উদ্দিন শিবলী।


ভোজনরসিকদের রসনা যোগান দেওয়ার পাশাপাশি অসহায় বিড়ালদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে ক্যাট ক্যাফে। বিড়ালদের যেমন এখানে মেলে স্থায়ী আবাস, তেমনি কেউ চাইলে এখান থেকেও এডপ্ট করতে পারেন বিড়াল। ক্যাপোচিনো ক্যাট ক্যাফেতে বিড়ালদের সঙ্গে সময় কাটাতে বিড়ালপ্রেমীদের গুণতে হবে ঘণ্টাপ্রতি ২০০ টাকা।


ছোটবেলা থেকেই বিড়ালপ্রেমী রাহাত  স্বপ্ন দেখতেন ঠিক এমনই একটি ক্যাফের। ‘নিজ হাতে গড়া এই ক্যাফে নিয়ে আমাদের স্বপ্ন ও আবেগটাও অনেক বেশি’- বলেন রাহাত। ক্যাট ক্যাফের আরও অনেকগুলো শাখা ছড়িয়ে দেওয়ার স্বপ্নে বিভোর এখন এই ৫ তরুণ।

/এনএ/

লাইভ

টপ