হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয়ে নারী শিক্ষককে অপদস্ত করায় প্রতিবাদ

Send
হাবিপ্রবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৭:১৯, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৭, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২০

দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফাহিমা খানমকে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ভাষায় গালিগালাজ করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদ এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘রিজেন্ট বোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম। সেই রিজেন্ট বোর্ডের একজন সম্মানিত সদস্য, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সভাপতি এবং পোস্ট গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. ফাহিমা খানমকে অশ্লীল ও কুরুচিপূর্ণ ভাষায় গালিগালাজ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি চালক মো. জাহাঙ্গীর আলম।

যেখানে বর্তমান সরকার কর্মক্ষেত্রে নারীদের সর্বোচ্চ মর্যাদা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতের উপর জোর দিয়ে যাচ্ছেন সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন বয়োজেষ্ঠ্য নারী অধ্যাপককে কুরুচিপূর্ণ ভাষায় গালিগালাজ করা ধৃষ্টতার পরিচয় বহন করে।  

বক্তারা আরও বলেন, অসুস্থ মানসিকতার এসব মানুষ বিশ্ববিদ্যালয়, দেশ ও সমাজের শত্রু। গাড়ি চালকের এ ধরণের ধৃষ্টতা এটাই নতুন নয়। এর পূর্বেও ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৭ সালে এই কর্মচারী শিক্ষক ফোরামের একটি সভায় পূর্বানুমতি ব্যতীত প্রবেশ করে প্রশাসনের সহায়তাকারী শিক্ষকদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে লাঞ্চিত করেন। এছাড়াও ঐ কর্মচারির নেতৃত্বে ৩, ৪ জন উশৃঙ্খল কর্মচারী বিভিন্ন সময়ে প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকবৃন্দকে কুরুচিপূর্ণভাবে ব্যঙ্গ করে থাকেন।

মানববন্ধনে বক্তব্য প্রদান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার প্রফেসর ড. ভবেন্দ্র কুমার বিশ্বাস, প্রক্টর প্রফেসর ড.মো.খালেদ হোসেন, হিসাব শাখার পরিচালক ড. মো. শাহাদত হোসেন খান, আরআরটি শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মো. তারিকুল ইসলাম এবং ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক ড. ইমরান পারভেজ প্রমুখসহ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের নেতৃবৃন্দ। 

 

/এফএএন/

লাইভ

টপ
X