অনলাইন ক্লাস: শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহায়তা দেবে শাবি প্রশাসন

Send
শাবি প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৭:২১, জুলাই ২৩, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৪, জুলাই ২৩, ২০২০

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (শাবি)করোনাভাইরাস সংক্রমণের এ পরিস্থিতিতে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদেরকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বুধবার (২২ জুলাই) অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের ২১৭ তম সিন্ডিকেট সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে। বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) আর্থিক সহায়তার এ সিদ্ধান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।
উপাচার্য বলেন, একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ১৯ জুলাই থেকে প্রাথমিকভাবে অনলাইনে পরবর্তী সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হয়েছে। তা আমরা সিন্ডিকেটকে অবহিত করেছি। ঈদের পর থেকে অনলাইনে ক্লাস পুরোপুরি শুরু হবে। আর এ ক্লাস পরিচালনা করতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদেরকে নির্দিষ্ট পরিমাণে আর্থিক সহায়তা প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।
শিক্ষার্থীদেরকে সহায়তা প্রদানের বিষয়ে  উপাচার্য বলেন, শিক্ষার্থীদের লজিস্টিক সাপোর্ট দেওয়ার বিষয়ে সিন্ডিকেটে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। আমরা শিক্ষার্থীদেরকে গ্রামীণফোন অপারেটরের সাথে চুক্তি অনুযায়ী ৩০ দিনের জন্য ১৫ জিবি ইন্টারনেট ডাটা প্যাক দেব। তবে এখনই আমরা এ সুবিধা দিচ্ছি না। যেহেতু এর সময়সীমা থাকে এক মাস, সেহেতু আমরা ঈদের পর নতুন করে সিদ্ধান্ত নিয়ে এ সুবিধা দেব। এছাড়া অন্যান্য নেটওয়া্র্ক অপারেটর থেকে সুবিধা নিতে অপারেটর কর্তৃপক্ষের সাথে সাশ্রয়ী মূল্যে ইন্টারনেট সেবা দেওয়ার বিষয়েও কথা হচ্ছে বলে জানান উপাচার্য।
‘সবাইকে এ সুবিধা দেওয়া হবে কিনা?’ এমন প্রশ্নের জবাবে উপাচার্য বলেন, সবাইকে এ সুবিধা দেওয়া সম্ভব হবে না। আর যাদের এ সুবিধার দরকার নেই তাদেরকে দেওয়া হবে না। বিভাগের শিক্ষার্থী অনুযায়ী ৩০-৫০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে এ সুবিধা দেওয়া হবে।
‘হাওর অঞ্চলে বন্যা কবলিত শিক্ষার্থীদেরকে আর্থিক সহায়তা প্রদানের বিষয়টিও সিন্ডিকেটে গৃহীত হয়েছে’ উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, বন্যা কবলিত হাওর অঞ্চলে শিক্ষার্থীদেরকে আর্থিক সহায়তা আমরা দেব। ইতোমধ্যে আমরা বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে আমরা তাদেরকে শনাক্ত করার চেষ্টা করছি। এর মধ্যে যাচাই বাছাই করে আমরা এ সাপোর্ট তাদেরকে দেওয়া হবে।
‘অনলাইনে ক্লাস চালাতে সকল শিক্ষকদেরকেও লজিস্টিক সাপোর্ট দেওয়া হবে’ উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, শিক্ষকদেরকে অনলাইনে ক্লাস নিতে হবে। তাদেরও কিছু সাপোর্টের দরকার আছে। শিক্ষকদেরকে আমরা ‘গ্রাফিক্স প্যাড’ দেব যাতে তারা অনলাইনে ক্লাস সুন্দরভাবে নিতে পারে। এদিকে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করতে প্রত্যেক শিক্ষককে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে একাধিক সিন্ডিকেট সদস্য নিশ্চিত করেছেন।  
‘জুনিয়র শিক্ষকদেরকে ক্লাস নেওয়ার যন্ত্রপাতি ক্রয়ের সাপোর্ট হিসেবে বিনা সুদে ৫০ হাজার টাকা লোন দেওয়া হবে’ উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, প্রভাষক ও সহকারী অধ্যাপকদের আমরা লোন দেব যাতে তারা ক্লাস নেওয়ার যন্ত্রপাতি কিনতে পারে। যা পরবর্তীতে তাদের বেতন থেকে কেটে রাখা হবে।
শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়ার যন্ত্রপাতি (মোবাইল) ক্রয় করে দেওয়া বিষয়ে উপাচার্য বলেন, আইসিটি ও ‍শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আমরা যোগাযোগ করছি যাতে স্বল্পমূল্যে শিক্ষার্থীদেরকে মোবাইল ক্রয় করে দিতে পারি। আর বিভিন্ন কোম্পানির সাথে আইসিটি মন্ত্রী যোগাযোগ করছেন সাশ্রয়ী মূল্যে কোনও ফোন দেওয়া যায় কিনা। আশা করি শীঘ্রই এ নিয়ে আমরা একটি সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারবো।
উপাচার্য জানান, ‘ভার্চুয়াল ক্লাসরুম’ ব্যবহার করার পরিকল্পনা রয়েছে। কেননা এতে ক্লাস উপস্থিতি, কে কখন আসছে-যাচ্ছে, পূর্বের ক্লাস লেকচার দিয়ে দেওয়া, কুইজ নেওয়াসহ বিভিন্ন সুবিধা আছে। আর এজন্য শিক্ষকদেরকে আরও দক্ষ করে তুলতে ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার বিষয়ে একাধিক শিক্ষার্থী জানান, শিক্ষার্থীদের অনেকগুলো দাবি ছিল অনলাইনে ক্লাস করার সিদ্ধান্ত নিয়ে। শিক্ষার্থীদের দাবি বা সমস্যাগুলো সমাধান করে অনলাইনে ক্লাস নিলে সবচেয়ে ভালো। তা না হলে অনেকে এ ক্লাসগুলো মিস করবে। ফলে এখানে বৈষম্য তৈরি হবে। তবে আমরা চাই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট তৈরি না হোক।   
শিক্ষকদেরকে লজিস্টিক সাপোর্টের বিষয়টিকে সাধুবাদ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. রাশেদ তালুকদার বলেন, অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা নিতে শিক্ষকদেরকে লজিস্টিক সাপোর্ট প্রদানের বিষয়ে শিক্ষক সমিতি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অবহিত করি। এর আলোকে সিন্ডিকেটে এ সাপোর্ট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমি মনে করি, এ সাপোর্ট পেলে শিক্ষকরা আরও সুন্দরভাবে ক্লাসগুলো নিতে পারবে।
উল্লেখ্য, গত ৮ জুলাই অনলাইনে অনুষ্ঠিত  বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫৯ তম একাডেমিক কিউন্সিলের সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে ১৯ জুলাই থেকে অনলাইনে নতুন সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হয়েছে। যা সিন্ডিকেট সভায় অনুমোদিত হয়েছে। তবে সামনে ঈদের ছুটি থাকায় ঈদের পর থেকে সম্পূর্ণরূপে চলতি সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হবে। 

 

/এনএ/

সম্পর্কিত

লাইভ

টপ