‘তুরাগ টাউনশিপ প্রকল্পে জমি দাতারাও ফ্ল্যাট পাবেন’

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ০৫:৪২, নভেম্বর ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০৫:৫২, নভেম্বর ২১, ২০১৯







শ ম রেজাউল করিমবর্তমান সরকার সবক্ষেত্রে উন্নয়ন নিশ্চিত করছে বলে মন্তব্য করেছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, ‘তুরাগ নদের তীরে কমপ্যাক্ট টাউনশিপ উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য যাদের জমি অধিগ্রহণ করা হবে, তারাও প্লট বা ফ্ল্যাট পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন না।’

বুধবার (২০ নভেম্বর) রাজধানীর হোটেল সোনাগাঁওয়ে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ও চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ করপোরেশনের (সিআরবিসি) মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তুরাগ নদের বন্যা প্রবাহ অঞ্চল সংরক্ষণ ও কমপ্যাক্ট টাউনশিপ উন্নয়ন প্রকল্প এবং ঢাকার কেরানীগঞ্জে প্রস্তাবিত ওয়াটারফ্রন্ট স্মার্ট সিটি প্রকল্পের বিষয়ে প্রতিষ্ঠান দুটির মধ্যে এ সময় সমঝোতা স্মারক সই হয়। রাজউকের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান ড. সুলতান আহমেদ এবং চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ করপোরেশনের পক্ষে স্বাক্ষর করেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান প্রকৌশলী সুন ইয়োগুও।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বলেন, ‘চীন বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার। ইতোমধ্যে চীনা কোম্পানি ও চীন সরকার অনেক অবকাঠামোগত উন্নয়ন করেছে। চট্টগ্রামে চীনা কোম্পানি টানেল নির্মাণ করছে। সিআরবিসি আলোচ্য প্রকল্প ছাড়াও বাংলাদেশের অন্যান্য প্রকল্পে বিনিয়োগ করছে।’

অনুষ্ঠানে গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা একশ’ বছরের জন্য ডেল্টাপ্ল্যান গ্রহণ করেছি। শুধু আজকের নয়, একশ’ বছরের পরের স্বপ্নও দেখি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। তার নেতৃত্বে সরকার সবক্ষেত্রে উন্নয়ন নিশ্চিত করছে। প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা।’ 

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘প্রত্যেক নাগরিকের জন্য, এমনকি জাদের জমি নেই তাদের জন্য বাসস্থান নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। সরকার তৃণমূল গ্রামীণ জনপদ থেকে রাজধানী পর্যন্ত সবার আবাসন নিশ্চিত করতে কাজ করছে। এভাবে আমরা জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছি। এ উন্নয়ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাদুকরী ও আদর্শ নেতৃত্বের কারণে সম্ভব হয়েছে।’

সভাপতির বক্তব্যে রাজউক চেয়ারম্যান বলেন, ‘তুরাগ নদের বন্যা প্রবাহ অঞ্চলে জলাশয় ও ইকোসিস্টেমের জন্য ৭০ শতাংশ ভূমি সংরক্ষণ করা হবে এবং কমপ্যাক্ট টাউনশিপ উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৩০ শতাংশ ভূমি ব্যবহার করা হবে। এ প্রকল্পে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে মাস্টারপ্ল্যান অনুমোদন দিয়েছেন। তুরাগ টাউনশিপ প্রকল্প বাস্তবায়ন মাস্টারপ্ল্যানের একটি অংশ। এ মাস্টারপ্ল্যান এসডিজি-৬ অর্জনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে। তুরাগ টাউনশিপ প্রকল্প রাজউকের ইতিহাসে একটি মাইলস্টোন হিসেবে থাকবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন—গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাজউকের সদস্য (পরিকল্পনা) মো. আজহারুল ইসলাম খান এবং সমাপনী বক্তব্য দেন রাজউকের চেয়ারম্যান ড. সুলতান আহমেদ। আরও বক্তব্য দেন চায়না রোড অ্যান্ড ব্রিজ করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী সুন ইয়োগুও।


 

/এসএস/আইএ/

লাইভ

টপ