মৃতদেহ থেকে ভাইরাস ছড়ায় না, তবে দাফনে সাবধানতার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের

Send
জাকিয়া আহমেদ ও সালমান তারেক শাকিল
প্রকাশিত : ২১:৩৩, এপ্রিল ০৬, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৪৭, এপ্রিল ০৬, ২০২০

 

করোনা ভাইরাস

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গেলে তার মরদেহ থেকে এই ভাইরাস ছড়ায় কিনা তা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন ও আতঙ্ক রয়েছে। তবে দেশের বিশিষ্ট চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা গেলে তার মরদেহ থেকে এই রোগের ভাইরাস ছড়ায় না। সুতরাং মরদেহ নিয়ে ভীত হওয়ার কিছু নেই। ফলে তাকে দাফন বা সৎকার নিয়েও অহেতুক ভয় পাওয়ার কারণ নেই। তবে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক থাকা উচিত। বিশেষজ্ঞরা আরও জানিয়েছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্কভাবে বলছে, মৃতদেহ থেকে কেউ করোনা সংক্রমিত হয়েছে এমন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

বিষয়টি দেশে বিশেষভাবে আলোচনায় আসে সোমবার (৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর গণমাধ্যমে একটি বিবৃতি পাঠানোর পরে। ওই বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসে মৃত ব্যক্তিকে নির্ভয়ে শরিয়তের নিয়ম অনুযায়ী দাফন-কাফন করা যাবে। অন্যরাও নির্ভয়ে নিজ নিজ ধর্মের নিয়ম অনুযায়ী মৃত ব্যক্তির সৎকার করুন।’

বিবৃতিতে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী আরও বলেন, ‘মৃত ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস বাঁচতে পারে না, তার বৃদ্ধিও হয় না। করোনায় মৃত ব্যক্তির শরীর থেকে অন্য কোনও ব্যক্তির শরীরে এ রোগ প্রসারিত হয় না। মৃত ব্যক্তিকে ধর্মীয় মতে সাবান দিয়ে গোসল করালে করোনার প্রসার বন্ধ হয়।’

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়।

পরে জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিবৃতিতে যা বলেছি, ঠিকই বলেছি। এটা স্টেটমেন্ট অব ফ্যাক্ট। করোনাভাইরাস বেঁচে থাকার জন্য জীবিত বস্তু লাগে। ভাইরাসের জীবনের জন্যই জীবিত ব্যক্তি লাগে। মৃত ব্যক্তির মধ্যে এই ভাইরাস বেঁচে থাকে না। আর থাকে না বলেই ভাইরাসটি মাটিতে পড়ে ৮-১০ ঘণ্টার বেশি বাঁচতে পারে না। এটি সোজা বিজ্ঞান, এটি না বোঝার কিছু নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘অনেকে এটা বলছেন, করোনাভাইরাসে রোগী মারা গেছে, ছোঁয়া যাবে না। এটা ভুল। বরং এটা বাইরে পড়ে থাকলে অন্য জীবাণুর প্রসার হবে। তাই করোনায় কেউ মারা গেলে মৃত ব্যক্তিকে দ্রুত গোসল করাতে হবে। যারা মৃতদেহের সেবা শুশ্রূষা করবেন, তাদের করোনা হবে না। কিন্তু জীবিত ব্যক্তি যদি হয় এবং তার শরীরে যদি করোনা থাকে, সেটায় আক্রান্ত হবে। এটা সোজা কথা, এটা ভালোভাবে বলা দরকার।’

এ বিষয়ে আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘এটি একটি নতুন ভাইরাস। এ সম্পর্কে প্রতিদিন নতুন নতুন তথ্য পাচ্ছি। তাই আমরা ছড়ানোর ঝুঁকি নিতে চাই না। কেউ পজিটিভ থাকলে বলা হয়, ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত তার ভাইরাস থাকতে পারে। এখন আমরা ছড়ায় না বলে যদি অসাবধান থাকলাম, আর সেখান থেকে ছড়িয়ে গেলো, সেই ঝুঁকি আমরা নিতে চাই না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) যেটা বলেছে—সেটা আমরা বিশ্বাস করছি। কিন্তু তার পরেও অতিরিক্ত সতর্ক থাকার চেষ্টা করছি।’

মৃতদেহ থেকে করোনাভাইরাস ছড়ায় কিনা জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ভাইরোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সাইফ উল্লাহ মুন্সী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মৃতদেহ থেকে যেহেতু শ্বাস-প্রশ্বাস বের হয় না, তাই করোনাভাইরাস ছড়ায় না। তবে এর বায়োফ্লুইড, যেমন– নাকের শ্লেষ্মা, মলমূত্র, সর্দি ইত্যাদি থেকে ছড়াতে পারে। এজন্য যখন সৎকার করা হবে, তখন মৃতদেহ ব্যাগের ভেতরে ঢুকিয়ে চেন (জিপার) দিয়ে আটকে দিতে হবে। সেই ব্যাগের পুরুত্ব হবে ১৫০ মাইক্রোন। ছয় মিটার দূরে থেকে দাফন করতে হবে। সনাতন ধর্ম হলে একই দূরত্বে থেকে পুড়িয়ে ফেলতে হবে।’

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. জাহিদুর রহমান বলেন, ‘মৃত ব্যক্তি থেকে ভাইরাস ছড়ায় না। মৃতদেহ থেকে নমুনা নিয়ে শনাক্ত করা যায়। তবে সংক্রমিত করা যায় না।’

জানতে চাইলে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইডিসিআর) সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, ‘মৃতদেহ থেকে কেউ করোনা সংক্রমিত হয়েছে এমন প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তির মৃতদেহকে সাবান পানি দিয়ে গোসল করালে ভাইরাস শেষ হয়ে যায়। যিনি গোসল করাবেন তাকে পিপিই বা পলিথিনের জামা পরে গোসল করাতে হবে। গোসল করানো ব্যক্তিকেও সাবান-পানি দিয়ে গোসল করতে হবে। তার পরিধেয় পোশাক আধঘণ্টা ধরে সাবান-পানি দিয়ে ভিজিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।’

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অধ্যাপক ডা. শাহনীলা ফেরদৌসীর বক্তব্য জানতে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

/এমএএ/এপিএইচ/এমওএফ/

লাইভ

টপ