অসুস্থতার মধ্যেও খাদ্য সরবরাহ তদারকি বঙ্গবন্ধুর

Send
উদিসা ইসলাম
প্রকাশিত : ০৭:৫৯, জুলাই ০৮, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:৪২, জুলাই ০৮, ২০২০

অসুস্থতা সত্ত্বেও খাদ্য পরিস্থিতির খবর রাখছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। যদিও তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক তাকে পূর্ণ বিশ্রাম নিতে পরামর্শ দেন। ১৯৭২ সালের ৮ জুলাই তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সেক্রেটারিয়েটের জরুরি কন্ট্রোল রুম থেকে দেশের বিভিন্ন জায়গায় খাদ্য পরিস্থিতি সম্পর্কে খোঁজ-খবর নেন। চালের দামসহ দেশের অন্যান্য স্থানের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম সম্পর্কে কর্মচারীরা তাকে অবহিত করেন। ১৯৭২ সালের ৯ জুলাই প্রকাশিত পত্রিকায় এসব তথ্য জানানো হয়।



প্রকৌশলীদের সম্মেলনে বাণী

দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ করে দেশ গঠন ও অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে বাংলাদেশের বিজ্ঞানী, প্রকৌশলীরা তাদের দায়িত্ব পালনে সমর্থ হবে বলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক বাণীতে আশা প্রকাশ করেন। ১৯৭২ সালের ৯ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলীদের উদ্যোগে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সম্পদ ও শিল্প সম্ভাবনা সম্পর্কে দিনব্যাপী সেমিনার শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের প্রকৌশলীদের উদ্যোগে বাংলাদেশের প্রাকৃতিক সম্পদ ও শিল্প সম্ভাবনার ওপর যে সেমিনারের আয়োজন হয়েছে তা জানতে পেরে অত্যন্ত খুশি হয়েছি। এটা অত্যন্ত প্রশংসনীয় উদ্যোগ। সন্দেহ নেই এ ধরনের উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশে এখনও যেসব প্রাকৃতিক সম্পদ অনাবিষ্কৃত ও অব্যবহৃত রয়েছে সে সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ আলোকপাত হবে। তিনি বলেন গত ২৪ বছর যাবৎ পাকিস্তানি শাসকরা আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদকে ব্যবহার করতে দেয়নি, উপেক্ষা করে এসেছে। বাংলাদেশের প্রচুর প্রাকৃতিক সম্পদ রয়েছে। যদি সে সম্পদ যথার্থভাবে ব্যবহার করা হয় তাহলে তা এদেশের মানুষের জন্য সম্ভাবনা ও উন্নতির নতুন দিনের সূচনা করবে। এসব সম্পদের সুষ্ঠু প্রয়োগে এ দেশের বিজ্ঞানী প্রকৌশলী ও কারিগরদের ওপরে যে দায়িত্ব বর্তেছে তারা সেটা পালনে যথাসম্ভব যোগ্যতার পরিচয় দেবে বলে আশা প্রকাশ করেন বঙ্গবন্ধু।

 

ভুয়া বিল দিয়ে অর্থ আত্মসাৎ

পত্রিকার খবরে জানা যায়, ভুয়া মেডিক্যাল বিল দিয়ে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ করা হচ্ছে। একটি সরকারি অফিসে ৮৩টি ভুয়া মেডিক্যাল বিল ধরা পড়েছে। এই বিলগুলোতে মেডিকেল অফিসারের যে দস্তখত রয়েছে তা জাল বলে অভিযোগ করা হয়েছিল। উক্ত সরকারি অফিসে কর্মচারীদের চিকিৎসার জন্য সরকারি ডাক্তার ছিলেন। অসুখ-বিসুখ হলে ডাক্তারকে দেখিয়ে প্রেসক্রিপশন নিতে হতো এবং খোলাবাজার থেকে ওষুধ কিনে ভাউচারে ডাক্তারের দস্তখত নিয়ে বিল দিলে অফিস টাকা পরিশোধ করতো। কিন্তু চিকিৎসা ভাতা দেওয়ার নিয়ম এর মধ্যে ঢুকে পড়েছে এবং বিপুল পরিমাণ সরকারি টাকা আত্মসাৎ করা হচ্ছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এই দুর্নীতির সঙ্গে ডাক্তার ও কর্মচারীদের যোগসাজশ রয়েছে। দুর্নীতির সঙ্গে যারা জড়িত তারা বাজার থেকে শতকরা ১০ টাকা নগদ মূল্য দিয়ে ওষুধের ভাউচার কিনে আনে।

ইরাকের স্বীকৃতি

১৯৭২ সালের ৮ জুলাই গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দানের সিদ্ধান্তের ঘোষণা করে ইরাক। আরব দেশগুলোর প্রথম দেশ হিসেবে ইরাক বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়। বিশ্ব মুসলিম রাষ্ট্রের মধ্যে তৃতীয়। ইরাকে সরকারি বার্তা সংস্থা ইরাকের বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দানের সিদ্ধান্তের বিষয়টি ঘোষণা করে।

/এমআর/এমএমজে/

লাইভ

টপ