বিদেশগামীদের জন্য আরও ১০ করোনা পরীক্ষা কেন্দ্র

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৬:০৩, অক্টোবর ২০, ২০২০ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৪৫, অক্টোবর ২০, ২০২০

করোনা টেস্ট (ছবি: ফোকাস বাংলা)বিদেশগামীদের কোভিড-১৯ পরীক্ষার জন্য আরও ১০টি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে নির্ধারণ করেছে সরকার। সম্প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, বিদেশগামীদের করোনার পরীক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক উদরাময় কেন্দ্র (আইসিডিডিআর,বি), সোবহানবাগের ডিএমএফআর মলিকিউলার ল্যাব অ্যান্ড ডায়াগনস্টিকস, ধানমন্ডির ল্যাবএইড, ইউনিভার্সেল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল (সাবেক আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতাল), মহাখালীর আইদেশি, পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, স্কয়ার হাসপাতাল, এভার কেয়ার হাসপাতাল (সাবেক অ্যাপোলো), বনানীর প্রাভা ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালকে নির্ধারণ করা হয়েছে।

এসব বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কোভিড-১৯ মুক্ত হওয়ার সনদ দেশের সব বিমানবন্দর, স্থলবন্দর ও নৌবন্দরে প্রদর্শন করলে বিদেশ যাওয়ার বিষয়ে অনুমতি দেওয়ার জন্যও অনুরোধ করা হয় চিঠিতে।

২৩ জুলাই থেকে বাংলাদেশ থেকে আকাশপথে বিদেশ গমনকারীদের জন্য করোনা পরীক্ষার সনদ বাধ্যতামূলক করে সরকার। সে পরিপ্রেক্ষিতে গত ২০ জুলাই থেকে বিদেশ গমনেচ্ছুদের করোনার নমুনা নেওয়া হচ্ছে মহাখালীর ডিএনসিসি মার্কেটের অস্থায়ী বুথে। এছাড়া ঢাকার বাইরে ১৩ জেলায় সংশ্লিষ্ট সিভিল সার্জনদের তত্ত্বাবধানে আগামীকাল থেকেই নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, অনেক দেশে যেতে যাত্রীকে ফ্লাইটে যাওয়ার আগে নেগেটিভ সার্টিফিকেট সংগ্রহ করতে হয়। তবে কোনও কোনও দেশে যেতে এই সার্টিফিকেট প্রয়োজন হয় না। আবারও কোনও কোনও দেশে পৌঁছানোর পর যাত্রীর করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট লাগে। যেমন– সিঙ্গাপুর যেতে করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট প্রয়োজন হয় না। যাত্রীরা দেশটিতে পৌঁছানোর পর করোনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার খরচ যাত্রীকেই বহন করতে হয়।

ফ্লাইটে যাওয়ার আগে করোনা নেগেটিভ পরীক্ষা ৭২ ঘণ্টার মধ্যে করার নিয়ম করেছে বেশির ভাগ দেশ। তবে সৌদি আরব ৪৮ ঘণ্টার বিধান করায় যাত্রীদের চাপ বেড়েছে।

 

/জেএ/এমএএ/এমএমজে/

লাইভ

টপ