X
বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২
২২ আষাঢ় ১৪২৯

সিলেটে সংকটে পশু-পাখিরাও, তাদের কী হবে?

আপডেট : ২৩ জুন ২০২২, ১৫:২৩

সিলেটে স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যার স্থায়িত্ব প্রায় এক সপ্তাহ। এই অঞ্চলের বেশিরভাগ এলাকা তলিয়ে যাওয়ায় স্থানীয় বাসিন্দারা চলে গেছেন আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে। সঙ্গে করে নিয়ে গেছেন গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগিও। বন্যা দীর্ঘায়িত হওয়ায় মানুষের পাশাপাশি পশু-পাখিদেরও খাদ্য ও সুপেয় পানির সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। এ সংকট করুণ পরিস্থিতিতে দাঁড় করিয়েছে বন্য পশুপাখিদের। অবস্থা এমন যে প্রকৃতির এই সদস্যদের ক্ষতিটা কতটুকু; তারও হিসাব এখনও করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, খুব দ্রুত এ অঞ্চলের পশু-পাখির জন্য আলাদা বরাদ্দ দেওয়া না গেলে ভয়াবহ পরিস্থিতি দাঁড়াবে।

প্রত্যাশিত হলেও এখন পর্যন্ত বন্যা কবলিত এলাকার প্রাণিসম্পদ রক্ষায় তেমন কোনও বরাদ্দ দেওয়ার বিষয়টিও সামনে আসেনি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে বরাদ্দের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনও তথ্য পাওয়া যায়নি। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এই অঞ্চলের পশু-পাখিরা দূষিত পানি পান করছে, সেই সঙ্গে বাসস্থানের সমস্যাতো রয়েছেই। ফলে এরই মধ্যে অনেক পশু-পাখির নানাধরনের রোগের দেখা দিয়েছে। 

স্থানীয়ভাবে জেলা ও উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসগুলো গবাদিপশু ও হাঁস-মুরগির সমস্যা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় নানা সীমাবদ্ধতার মধেই চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছে। পরামর্শের সঙ্গে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের ভ্যাকসিন, পেটের সমস্যা ও নিউমোনিয়ার ওষুধ। কোথাও কোথাও ত্রিপল খাঁটিয়ে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে পশু-পাখির।

গত রবিবারের (১৯ জুন) সিলেট জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের হিসাব অনুযায়ী, সিলেট জেলার সবগুলো উপজেলা বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ৭২টি ইউনিয়নে ৫ হাজার ৭৭৪ একর চারণভূমি প্লাবিত হয়েছে। গবাদি খামার, হাঁস-মুরগির খামার, কৃষি ভূমি ও দানাদার খাদ্য, নষ্ট খড় ও ঘাস ও মৃত পশু-পাখি মিলিয়ে মোট ক্ষতি আড়াই কোটি টাকারও বেশি।

বন্যায় সিলেটে ক্ষতিগ্রস্ত মোট গরুর সংখ্যা ২ লাখ ৮১৩টি, মহিষ ২৬ হাজার ৮৭৭টি, ছাগল ৪৮ হাজার ৪১১টি, ভেড়া ১৮ হাজার ১৫৫, মুরগি ৪ লাখ ৫৯ হাজার ৭৩৯টি ও হাঁস ২ লাখ ৪৪ হাজার ১৯২টি। এ জেলায় গবাদি পশুর খামারের সংখ্যা ৭৪৫, পশু আছে ৩০ হাজার ৭৩টি। হাঁস-মুরগির খামারের সংখ্যা ৩৩৫ এবং হাঁস-মুরগির সংখ্যা ৩ লাখ ৩৮ হাজার ১৩১টি।

বন্যার পানিতে নষ্ট হওয়া খড়ের পরিমাণ ১ হাজার ৯৩৪ টন, যার আনুমানিক মূল্য ৯৬ লাখ ৭০ হাজার টাকা এবং ঘাসের পরিমাণ ২ হাজার ৯৬১ টন, যার দাম প্রায় ১ কোটি ৪৮ লাখ ৫ হাজার টাকা। আর মারা গেছে ১১টি গরু, পাঁচটি মহিষ, ২৪টি ছাগল, ১০টি ভেড়া, ২ হাজার ৭১৫টি মুরগি ও হাঁস ৪৯১টি।

স্থানীয় ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসা কার্যক্রম চললেও এই দুর্যোগ মোকাবেলায় ক্ষেত্রে এখনও কোনও বরাদ্দ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন একাধিক জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে বুধবার (২২ জুন) জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. রুস্তম আলী বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, বন্যায় পশু-পাখির খাদ্য সংকটটা সবচেয়ে চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। একই ধরনের সমস্যা দেখা দিয়েছিল মাসখানেক আগের বন্যার সময়ও। সেসময় কোনও বরাদ্দ না পেলেও এবার বরাদ্দ মিলবে বলে আশা করছেন তারা।

পরিস্থিতি জেলা ও বিভাগীয় কর্মকর্তাদের অবহিত করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, আইন অনুযায়ী জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করে সংশ্লিষ্ট প্রাণিসম্পদ অফিস। প্রশাসনিক চ্যানেলে আমরা আমাদের এই খাতের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি তাদের জানিয়েছি। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আগামী দুই-তিন দিনের মধ্যে কিছু বরাদ্দের ব্যবস্থা করার সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে।

সম্প্রতি বন্যা কবলিত এলাকা থেকে তোলা ছবি (ফোকাস বাংলা)

এই ভয়াবহ বন্যায় সিলেটসহ ক্ষতিগ্রস্ত জেলা ও উপজেলাগুলোর প্রাণিসম্পদ খাতে বরাদ্দের বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদার কাছে। বাংলা ট্রিবিউনকে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে বিভাগীয় ও জেলা কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা দেওয়ার পাশাপাশি ক্ষয়ক্ষতির বিষয়টি নিরূপণ করছেন।

গবাদিপশুর ক্ষেত্রে খাদ্যের সংকট সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে উল্লেখ করে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক বলেন, পানি আটকে খড়কুটো ও ঘাস নষ্ট হয়ে গেছে। পানি শুকালে এসব খাদ্য নিরাপদ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। সে জন্য বরাদ্দের প্রয়োজন রয়েছে এবং সেটি প্রক্রিয়াধীন। 

যদিও সম্ভাব্য এই বরাদ্দের পরিমাণ কেমন হতে পারে, সেটি তাৎক্ষণিক জানাতে পারেননি তিনি।

এদিকে, বন্য পশু-পাখিদের আবাস ও খাবার ব্যবস্থার ক্ষেত্রে সংকট দেখা দিলেও কার্যকর কোনও উদ্যোগ নেওয়ার কথা জানাতে পারেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। কেবল পোষ্য প্রাণিসম্পদের কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে ও হচ্ছে, সেটি নিরুপণে কাজ করার বিষয়টি জানিয়েছেন তারা। এ নিয়ে পশু-পাখিপ্রেমীদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে রীতিমতো ক্ষোভ প্রকাশ করতেও দেখা গেছে।

/ইউএস/
বাংলা ট্রিবিউনের সর্বশেষ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে বিবাদে নিহত ১
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মসজিদের টাকার হিসাব নিয়ে বিবাদে নিহত ১
নববধূ সেজে ইয়াবা কিনতে ঢাকা থেকে টেকনাফে
নববধূ সেজে ইয়াবা কিনতে ঢাকা থেকে টেকনাফে
ফেল নয়, বাছাই করে শিক্ষার্থী নিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো: শিক্ষামন্ত্রী
ফেল নয়, বাছাই করে শিক্ষার্থী নিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো: শিক্ষামন্ত্রী
পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার পাশে দুর্ঘটনায় এমপির এপিএসসহ আহত ৩
পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার পাশে দুর্ঘটনায় এমপির এপিএসসহ আহত ৩
এ বিভাগের সর্বশেষ
কমছে সব নদীর পানি
কমছে সব নদীর পানি
বন্যাকবলিত মানুষের পাশে আমিরাত প্রবাসীরা
বন্যাকবলিত মানুষের পাশে আমিরাত প্রবাসীরা
বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে, কমছে নদীর পানি
বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে, কমছে নদীর পানি
বন্যায় আরও ৫ জনের মৃত্যু
বন্যায় আরও ৫ জনের মৃত্যু
বন্যা পরিস্থিতি আরও উন্নতির সম্ভাবনা
বন্যা পরিস্থিতি আরও উন্নতির সম্ভাবনা